Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ০৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮

জমি দখলে নিতেই ‘অলৌকিক আগুনের’ নাটক

জমি দখলে নিতেই ’অলৌকিক আগুনের’ নাটক
জমি দখলে নিতেই ’অলৌকিক আগুনের’ নাটক

ঠাকুরগাঁও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় বাড়ি পোড়ানোর মামলা থেকে বাঁচতে ‘অলৌকিক আগুনের নাটক’ সাজিয়ে মানুষের মাঝে ভীতি সৃষ্টির অভিযোগে ১২ জনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

রোববার (২ মে) রাতে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক আকরাম আলী গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। এর আগে শনিবার (১ মে) দিনগত রাত দেড়টার দিকে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার চাড়োল ইউনিয়নের ছোট সিঙ্গিয়া মুন্সিপাড়া গ্রাম থেকে তাদের আটক করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা গুজব ছড়িয়ে অলৌকিক আগুনের নাটক সাজিয়েছিলেন বলে স্বীকার করেছেন তারা।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, ছোট সিঙ্গিয়া মুন্সিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা সামসুজ্জোহা, মকসেদুল ইসলাম, এহেতাসাম উল্লাহ, ইন্তাজ আলী, কফিল উদ্দীন, দেলোয়ার হোসেন, ওবায়দুল্লাহ, তহিদুর রহমান, আজিম উদ্দীন চৌধুরী, মন্টু আলম, মেহেরুন নেছা ও বিলকিস আক্তার।

মামলার বরাত দিয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আকরাম আলী বলেন, ২০২০ সালের ১৭ ডিসেম্বর সালেহা বেগমের স্বামী মকবুল হোসেনের মৃত্যু হয়। এরপর গ্রামের কিছু মানুষ মকবুল হোসেনের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন প্রকার গুজব রটায় এবং ওই পরিবারের লোকজনকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করে। ২০২১ সালের ২৮ মার্চ কে বা কারা সালেহা বেগমের ৪টি গোয়ালঘর ও দুই বিঘা জমির গমে আগুন দেয়। ৬ এপ্রিল সালেহার চাচা সিরাজ উদ্দিনের খড় রাখার ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এতে ৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে মামলায় করা হয়।

পরে গত ৮ এপ্রিল দুপুরে প্রতিবেশী ইনতাজ আলীর বাড়ির কাপড় কাঁচার বালতিতে আগুন ধরে এমন মিথ্যা গুজব ছড়িয়ে বাদী ও সালেহা বেগমের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেন গ্রামের বেশ কয়েকজন মানুষ। তবে গ্রামবাসীর কাছে বিষয়গুলো নিয়ে সালেহা বেগম কথা বললে এই গুজবের সত্যতা দেখাতে পারেননি তারা। এ ঘটনার ২৯ এপ্রিল সালেহা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের আসামি করে বালিয়াডাঙ্গী থানায় একটি মামলা করেন।

এলাকাবাসী জানান, ছোট সিঙ্গিয়া মুন্সিপাড়া গ্রামের ৫টি বাড়িতে ‘প্রতিদিন অলৌকিক আগুনের’ ঘটনা ঘটছে। প্রায় একমাস আগে হঠাৎ করে দিনের বেলা গ্রামের বাসিন্দা মুসলিম উদ্দিনের খড়ের ঘরে প্রথমে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসকে সংবাদ দেয়া হলে তারা এসে আগুন নেভায়। এ সময় গ্রামের সিরাজ উদ্দিনের বাড়িতে খড় সংরক্ষণের ঘরেও আগুন লাগে। আবারও ফায়ার সার্ভিসকে সংবাদ দেয়া হয়। বেশ কয়েক দিন পর গ্রামের বাসিন্দা বাবুল হোসেন ও আব্দুস সালামের বাড়ির খড়ে আগুন লাগে। তারপর থেকে প্রতিদিনই ওই গ্রামের দেলোয়ার হোসেন, মুরাদ হোসেন, মকসেদুল ইসলাম, মো. সাইফুল্লাহ ও নাঈম হোসেনের মধ্যে কারও না কারও খড়ের গাদা, ঘরে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে গ্রামের সাধারণ মানুষ।

ঠাকুরগাঁও কোর্ট ইন্সপেক্টর জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আরিফুর রহমান গ্রেপ্তারকৃত ১২ জনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। সেই সঙ্গে আসামিদের রিমান্ডের জন্য তদন্ত কর্মকর্তার আবেদনের বিষয়ে ৬ মে শুনানি দিন ধার্য করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক আকরাম আলী বলেন, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় সন্দেহ হলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১২ জনকে আটক করা হয়। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার সঙ্গে আটক ব্যক্তিদের সম্পৃক্ততা রয়েছে এমন কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। এজন্য তদেরকে সালেহা বেগমের দায়েরকৃত মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সালেহা বেগমের দায়েরকৃত মামলা থেকে বাঁচতে গ্রামে অলৌকিক আগুনের সাজানো নাটক সাজানো হয়েছিল। তাদের উদ্দেশ্য ছিল মানুষের মাঝে ভীতি সৃষ্টি করা এবং সালেহা বেগমের জমি দখল করা।

জিএম/পি

RTV Drama
RTVPLUS