logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭

ভৈরবে ঘন কুয়াশায় বিপাকে খেটে খাওয়া মানুষ

In Bhairab, people are suffering in the thick fog
ভৈরবে ঘন কুয়াশায় বিপাকে খেটে খাওয়া মানুষ

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে শীতের শেষ সময়ে গেল প্রায় ১৫ দিন ধরে ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা পড়ছে উপজেলাটির সড়ক, মাঠ ও ঘাট। একই সঙ্গে বইছে হিমেল হাওয়া। ফলে ঠাণ্ডাজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা। এছাড়াও কনকনে ঠাণ্ডার কারণে বিপাকে পড়েছে খেটে খাওয়া মানুষজন। বিশেষ করে সমাজের ছিন্নমূল ও ভাসমান মানুষজন সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছে। শহরের কোথাও কোথাও আগুন জ্বালিয়ে কেউ কেউ শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন। তাই, সমাজের বিত্তবানসহ বিভিন্ন মহল এবং বিভিন্ন সংগঠনকে শীতে উষ্ণতা ছড়াতে এবং এসব শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে আহ্বান জানিয়েছেন অসহায় মানুষজন।

জানা গেছে, পৌষের শেষ এবং মাঘের প্রথম থেকেই রাত ৮টার পর থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে শুরু করে সকাল ১০টা পর্যন্ত ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন থাকে শহরের বিভিন্ন সড়ক। আবার কখনও কখনও দুপুরে কিংবা বিকেলেও সূর্যের আলোর দেখা মেলে না। ফলে সড়কে হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করে বিভিন্ন যানবাহন। এছাড়াও ঘন কুয়াশার কারণে মেঘনা নদীতে নৌযান চলাচলেও হিমশিম খাচ্ছে চালকরা। শুধু তাই নয়, এই ঘন কুয়াশার কারণে শহরের বিভিন্ন সড়কে চুরি ছিনতাইয়ের ঘটনাও বেড়েছে।

শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা গেছে, কনকনে ঠাণ্ডার কারণে বিপাকে পড়েছে খেটে খাওয়া মানুষ। এছাড়াও ঘন কুয়াশার সঙ্গে হিমেল হাওয়ার কারণে শিশুরা কাশি, নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। ফলে প্রতিদিনই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ শহরের বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে ভিড় করছেন তাদের অভিভাবকরা।

এই শীতে শিশুদের ঠাণ্ডাজনিত রোগ প্রতিরোধে মায়েদের আরও সচেতন হতে হবে এবং শিশুদের বাড়তি যত্ন নিতে হবে বলে জানান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিএইচও ডা. মো. খোরশেদ আলম।

অন্যদিকে এই ঘন কুয়াশার কারণে মানুষজন সহজে ঘরের বাইরে বের না হবার কারণে এবং সড়কে মানুষজনের চলাচল কম থাকার সুযোগে শহরের চন্ডিবের-কালিপুর সড়কের সেতু এলাকায় একের পর এক ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। গেল ১০ দিনে কমপক্ষে ৫টি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। ছিনতাইকারীরা পথচারী ও বিভিন্ন সিএনজি যাত্রীদের কাছ থেকে নগদ টাকাসহ বেশ কয়েকটি মোবাইল ফোন হাতিয়ে নিয়েছে বলে জানায় তারা।

আগানগর ইউনিয়নের আকবর হোসেন জানান, গত কয়েকদিনে বেশ কয়েকটা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। ফলে সন্ধ্যার পর কিংবা সকালে আমরা জরুরি প্রয়োজনেও শহরে যেতে সাহস পাই না। আর গেলেও সব সময় আতঙ্কে থাকি। কোন সময় জানি কোন অঘটন ঘটে।

ভৈরব থানার ওসি মো. শাহিন আরটিভি নিউজকে বলেন, এসব ছিনতাইয়ের ঘটনায় থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। লিখিত অভিযোগ পেলে অবশ্যই অপরাদীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পি

RTV Drama
RTVPLUS