Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১ কার্তিক ১৪২৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি নিউজ

  ০৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৪৫

চরম তাপমাত্রার শহরের তালিকায় শীর্ষে ঢাকা: গবেষণা

তাপমাত্রার শীর্ষে ঢাকা

শহরে উষ্ণতার সঙ্গে জনসংখ্যার চাপ বাড়ছে। বিশ্বে উষ্ণতা বাড়ার শহরগুলোর তালিকার শীর্ষে রয়েছে ঢাকা। আন্তর্জাতিক গবেষণায় এ তথ্য এসেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব মিনেসোটা, ইউনিভার্সিটি অব অ্যারিজোনা ও ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার একদল গবেষক যৌথভাবে গবেষণা করেন। গত সোমবার (৪ অক্টোবর) বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী প্রসিডিংস অব দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অব সায়েন্সেস-এ ওই গবেষণার ফল প্রকাশ করা হয়েছে।

গবেষণায় রাজধানী ঢাকা নিয়ে বলা হয়েছে, ঢাকায় ১৯৮৩ সালে ৪০ লাখ মানুষ বসবাস করতেন। বর্তমানে ২ কোটি ২০ লাখ মানুষ বসবাস করছেন।

চরম তাপমাত্রা বৃদ্ধির তালিকায় শীর্ষস্থানে ভারত, এরপরই বাংলাদেশ।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চরম উষ্ণতার কারণে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার চার ভাগের এক ভাগ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। গবেষকরা দেখেছেন, আফ্রিকা ও দক্ষিণ এশিয়ার শহরগুলোতে বসবাসরত দরিদ্র মানুষ নাগরিক সুবিধার অনেক কিছু থেকেই বঞ্চিত।

গবেষকরা ১৯৮৩ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত টানা ৩৩ বছর বিশ্বের ১৩ হাজার শহরে উষ্ণতা ও আর্দ্রতা পর্যবেক্ষণ করেছেন। যেসব শহরে তাপমাত্রা ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপর থাকে, তাদেরই চরম তাপমাত্রায় ক্ষতিগ্রস্ত হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। এরপর অন্য শহরগুলোর বাসিন্দাদের তথ্যের সঙ্গে সেগুলো তুলনা করা হয়।

গবেষক দলের প্রধান ও যুক্তরাষ্ট্রের আর্থ ইউনিভার্সিটির আর্থ ইনস্টিটিউটের গবেষক ক্যাসকেড টুহলস্কি বলেন, চরম তাপমাত্রার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে মানুষের কর্মক্ষমতার ওপর। ফলে তাদের আয়-রোজগার কমে যাচ্ছে, স্বাস্থ্যেরও অবনতি হচ্ছে।

চরম তাপমাত্রায় ক্ষতিগ্রস্ত শহরের তালিকায় ঢাকার পরই ভারতের দিল্লি, কলকাতা, মুম্বাই ও থাইল্যান্ডের ব্যাংকক। এসব শহরে গত ৩২ বছরে উষ্ণতা প্রায় তিনগুণ বেড়েছে।

গবেষকরা বলছেন, বাংলাদেশের তাপমাত্রা বৃদ্ধির পেছনে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির প্রভাব ৩৭ শতাংশ, বাকি ৬৩ শতাংশের জন্য দায়ী স্থানীয় কারণ।

সূত্র:বিবিসি বাংলা

এফএ

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS