Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

কন্যা মায়ের কাছেই থাকছে: হাইকোর্ট

কন্যা মায়ের কাছেই থাকছে

দম্পতি দু’জনই উচ্চ শিক্ষিত। ছাত্রাবস্থায় ২০০৭ সালে ভালোবেসে বিয়ে করেন। তাদের সংসার জীবনে কন্যা সন্তান জন্ম নিলেও বিয়ের এক যুগ পর ভেঙে যায় সংসার। এরপরেই কন্যা সন্তানের অধিকার পেতে দু’জনের মধ্যে শুরু হয় আইনি লড়াই। এই লড়াইয়ে পারিবারিক আদালত কন্যা সন্তানকে বাবার কাছে রাখার রায় দিলেও হাইকোর্ট সেই রায় স্থগিত করে দিয়ে মায়ের কাছেই সন্তান রাখার আদেশ দিয়েছেন। আর বাবাকে বলা হয়েছে সন্তানের সঙ্গে দেখা আসতে পারবেন।

রোববার (০৪ জুলাই) এক আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিমের ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ পারিবারিক আদালতের আদেশ স্থগিত করে দেন। সেইসঙ্গে ১০ বছরের কন্যা সন্তানকে মায়ের জিম্মায় রাখার আদেশ দেন আদালত।

আদালতে মায়ের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ফখরুল ইসলাম ও মাসুদ রানা। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সমরেন্দ্র নাথ বিশ্বাস।

উচ্চ আদালতের আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করে আইনজীবী ফখরুল ইসলাম বলেন, সন্তানটির বাবা-মা দুজনই উচ্চ শিক্ষিত। ২০০৭ সালে তাদের বিয়ে হয়। এরপর ২০১১ সালে একটি কন্যা সন্তান হয়। ২০১৮ সালে তাদের সেপারেশন (পৃথক) হয়ে যায়। যদিও সেটা কার্যকর হয় ২০১৯ সালে। সেপারেশনের পর থেকে সন্তান মায়ের কাছেই ছিল। হঠাৎ দুই বছর পর গত ৬ জুন সন্তান নিজের জিম্মায় চেয়ে পারিবারিক আদালতে একটি মামলা করেন বাবা সৈয়দ খায়রুজ্জামান।

‘তার মামলা আমলে নিয়ে বিচারক আদেশ দেয় সপ্তাহে একদিন ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত বাবা সন্তানকে দেখতে পারবে। এরপর গত ৩০ জুন বাবা আরও একটি নতুন আবেদন করেন। আবেদনে সপ্তাহে পাচঁ দিন বাবার কাছে আর দুই দিন মায়ের কাছে থাকবে এমন দাবি করেন। তার সেই আবেদনের শুনানি নিয়ে পারিবারিক আদালতের বিচারক ২১ দিনের জন্য সন্তানকে বাবার কাছে দিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেয়।’

মায়ের পক্ষের এই আইনজীবী জানান, ২১ দিনের মধ্যে মায়ের হেফাজতে থাকবে শুক্র ও শনিবার। বাকি সময় বাবার কাছে থাকবে। বাবা সন্তানের অনলাইনে স্কুলের ক্লাসের ব্যবস্থাও করবেন। বাদী ও বিবাদীর এবং তাদের পিতামাতার বাসার পরিবেশ দেখা, কার বাসায় কে থাকেন এসব বিষয়ে সার্বিক প্রতিবদন জমা দিতে ২১ দিনের মধ্যে হাজারীবাগ থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছিল বিচারিক আদালত।

তিনি বলেন, বিচারিক আদালতের এ আদেশ চ্যালেঞ্জ করে মা রুবিয়া পারভিন হাইকোর্টে আবেদন করেছিলেন। সেই আবেদনের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট সন্তানকে তার মায়ের জিম্মায় দিয়েছে।

এফএ

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS