logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ

অপরাধীকে খুঁজে বের করতে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে: পুলিশ

অপরাধীকে খুঁজে বের করতে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে: পুলিশ
ছবি: সংগৃহীত
পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী জানিয়েছেন, রাজধানীর কুর্মিটোলায় ধর্ষণের ঘটনায় অপরাধীকে খুঁজে বের করতে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে।

আজ সোমবার (৬ জানুয়ারি) কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবের পাশের রাস্তায় তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, আমরা এই ঘটনাটি নিবিড়ভাবে তদন্তের চেষ্টা করছি। অপরাধীকে খুঁজে বের করার জন্য আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তিন ভাগে (ডিবি, পুলিশ, র‍্যাব) অপরাধীকে ধরার চেষ্টা চলছে। এই জন্য আমরা প্রযুক্তি ও ম্যানুয়েলিও কাজ করছি।
 
তিনি বলেন, আলামত হিসেবে ভিকটিমের বস্ত্র, একটি ঘড়ি, দুটি ইনহেলার, একজোড়া জুতা, বইসহ আরও কিছু আলামত সিআইডি সংগ্রহ করেছে। পরীক্ষা করার পর বিস্তারিত বলা যাবে। 

তিনি আরও বলেন, ভিকটিমের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে অভিযুক্ত একজন ছিল। এই এলাকায় সাধারণত সবাই রানিংয়ে থাকেন। জায়গাটা নির্জন হওয়ায় এ ঘটনা ঘটাতে সাহস পেয়েছে অপরাধী। 

ঢামেক হাসপাতাল ফাঁড়ির দায়িত্বে থাকা পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আব্দুল হাই জানান, রোববার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক্ষণিকা’ বাসে রাজধানীর শেওড়ার উদ্দেশে রওনা দেন ওই শিক্ষার্থী। সন্ধ্যা ৭টার দিকে কুর্মিটোলা বাস স্টপেজে নামার পর অজ্ঞাত কয়েকজন ব্যক্তি তার মুখ চেপে ধরে নির্জন জায়গায় নিয়ে যায়। সেখানে তাকে মারধর এবং অজ্ঞান করে ধর্ষণ করা হয়। রাত ১০টার দিকে তিনি জ্ঞান ফিরে পান। এরপর সিএনজিচালিত অটোরিকশায় গন্তব্যে যান। সেখান থেকে বন্ধুরা তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে আসেন।
এ ঘটনার পর ভুক্তভোগী ছাত্রীকে দেখতে ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রাব্বানী, শিক্ষক সাদেকা হালিমসহ তার সহপাঠীরা ঢামেক হাসপাতালে যান।

এসএস

RTVPLUS