Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ২২ মে ২০২২, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

পরীক্ষা শুরুর ২ মিনিটেই প্রশ্ন ফাঁস করতেন তারা

প্রশ্ন ফাঁস করতেন তারা

পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর মাত্র ২ মিনিটের মধ্যে একটি চক্র প্রশ্ন ফাঁস করেছে। প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত থাকায় সরকারি কর্মকর্তা ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ চক্রের ১০ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজ শনিবার (২২ জানুয়ারি) ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।

মিরপুর ও গুলশানাসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গতকাল শুক্রবার বিকেল ৩টায় প্রতিরক্ষা মহাহিসাব নিরীক্ষকের কার্যালয়ে অডিটর নিয়োগ পরীক্ষা শুরু হয়। চক্রটি পরীক্ষা শুরুর দুই মিনিটের মধ্যে হল থেকে প্রশ্ন ফাঁস করে।

গ্রেপ্তারকৃতরা- নোমান সিদ্দিকী, মাহমুদুল হাসান আজাদ, আল আমিন রনি, নাহিদ হাসান, শহীদ উল্লাহ, তানজির আহমেদ, মাহবুবা নাসরীন রুপা, রাজু আহমেদ, হাসিবুল হাসান ও রাকিবুল হাসান। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে মাহমুদুল হাসান আজাদ হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কার্যালয় (সিজিএ) অফিসের বরখাস্তকৃত কর্মকর্তা এবং মাহবুবা নাসরীন রুপা বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান।

গ্রেপ্তারের সময় তাদের কাছ থেকে ইয়ার ডিভাইস ছয়টি, মাস্টারকার্ড মোবাইল সিম হোল্ডার ছয়টি, ব্যাংকের চেক পাঁচটি, নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প সাতটি, স্মার্ট ফোন ১০টি, বাটন মোবাইল ছয়টি, প্রবেশপত্র ১৮টি ও চলমান পরীক্ষার ফাঁস হওয়া তিন সেট প্রশ্নপত্র জব্দ করা হয়।

ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশ কাকরাইলের নিউ শাহিন হোটেল থেকে অসাধু উপায় অবলম্বনকারী দুজন পরীক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করে। তাদের দেওয়া তথ্যমতে কাফরুল সেনপাড়া পর্বতা এলাকার একটি অ্যাপার্টমেন্ট থেকে ডিভাইস, প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্রের খসড়াসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় ডিবি পুলিশের আরেকটি দল বিজি প্রেস উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে পরীক্ষার্থী এবং অন্যতম পরিকল্পনাকারী মাহবুবা নাসরীন রুপাকে নগদ টাকা ও ডিজিটাল ডিভাইসসহ গ্রেপ্তার করা হয়। পরবর্তীতে তার দেওয়া তথ্যমতে অন্য আসামিদের গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি বলেন, প্রতিরক্ষা মহাহিসাব নিরীক্ষকের কার্যালয়ের ডিফেন্স ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের ৫৫০টি অডিটর পদে নিয়োগের জন্য শুক্রবার বিকেল ৩টা থেকে সোয়া ৪টা পর্যন্ত ৭০ নম্বরের এমসিকিউ পরীক্ষা ঢাকার বিভিন্ন এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনুষ্ঠিত হয়।

হাফিজ আক্তার আরও বলেন, ঢাকা মহানগর ডিবি পুলিশের কাছে তথ্য ছিল, এর আগেও বিভিন্ন সময় গ্রেপ্তার হওয়া কয়েকজন ইলেকট্রনিক ডিভাইস, মোবাইল অ্যাপস এবং ব্যক্তি পরিবর্তন করে পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস, উত্তর সমাধান করে সরবরাহ করতে পারে। এ তথ্যের ভিত্তিতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার চক্রের সদস্যরা পরীক্ষা শুরুর দুই মিনিটের মধ্যে হলের বাইরে প্রশ্ন ফাঁস করে দেয়।

এফএ/টিআই

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS