logo
  • ঢাকা বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬

হিমায়িত গরুর মাংস আমদানি প্রক্রিয়া বন্ধের দাবি ১০ সংগঠনের (ভিডিও)

আরটভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৭:০৫ | আপডেট : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:২১
বিদেশ থেকে হিমায়িত গরুর মাংস আমদানি প্রক্রিয়া বন্ধের দাবি জানিয়েছেন গরুর মাংস উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাতকরণের সাথে সংযুক্ত ১০টি সংগঠন।

সংগঠনগুলোর নেতারা বলছেন, বিদেশ থেকে গরুর মাংস আমদানি করলে দেশীয় উদ্যোক্তা ও প্রান্তিক খামারিরা চরম আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হবেন। ফলে বিশাল যুব সমাজ তথা উদ্যোক্তারা বেকার হয়ে পড়বেন। যার প্রভাব পড়বে গ্রামীণ অর্থনীতি, সামাজিক নিরাপত্তা, খাদ্য নিরাপত্তা ও কৃষি খাতে।

সোমবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানিয়েছেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে অ্যানিমেল হেলথ কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশনের (আহকাব) সভাপতি ড. নজরুল ইসলাম বলেন, ডেইরি ও ক্যাটল শিল্প দেশের একটি মৌলিক শিল্প। তাই বিদেশ থেকে আমদানি করে এই শিল্পকে ধ্বংস করা যাবে না।

মাংসের উৎপাদনের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, জনপ্রতি দৈনিক ১২০ গ্রাম মাংসের চাহিদা হিসাবে বছরে মাংসের চাহিদা ৭২.৯৭ লাখ টন। কিন্তু গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগি থেকে মোট মাংস উৎপাদন হয়েছে ৭৫.১৪ লাখ টন। অর্থাৎ চাহিদা মেটানোর পরও ২ দশমিক ১৭ লাখ টন মাংস উদ্বৃত্ত রয়ে গেছে। তাহলে কেন মাংস আমদানি করতে হবে?

---------------------------------------------------------------
আরো পড়ুন: এরশাদকে সঙ্গে নিয়ে ক্ষমতা দখল করে আছেন শেখ হাসিনা: ফখরুল
---------------------------------------------------------------

আমদানি করলে দেশের কী ক্ষতি হবে এ বিষয়ে নানা যুক্তি তুলে ধরে নজরুল ইসলাম বলেন, গত কয়েক বছরে বিদেশ থেকে অবাধে গরু চোরাচালান বন্ধের প্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয়তার নিরীখে দেশে ডেইরি ও ক্যাটল শিল্প বিকশিত হতে শুরু করেছে। শিক্ষিত বেকার যুবক ও নারীরা গরু মোটা-তাজাকরণ ও দুগ্ধ শিল্পে নিজেদের আত্মনিয়োগ করেছেন। সরকারও স্বল্প সুদে তাদের ঋণ দিচ্ছে। ফলে বর্তমানে কোরবানির সময় দেশীয় গরু দিয়ে সম্পূর্ণ চাহিদা মেটানো যাচ্ছে। এই শিল্পের বর্তমান ধারা অব্যাহত থাকলে দেশের সব চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হবে।

এসজে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়