• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
logo

গরুর মাংস আমদানি নিয়ে বিরোধ, যা বলছে খামারিরা

আরটিভি নিউজ

  ১১ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:০৩
গো-খাদ্য, দাম কমানোর, দাবি খামারিদের
ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশে গরুর মাংস রপ্তানি করতে চায় ব্রাজিল। কোরবানির ঈদের আগে ব্রাজিল থেকে গরু আমদানি করতে চায় বাংলাদেশ সরকার। সম্প্রতি ব্রাজিলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাউরো ভিয়েরার ঢাকা সফরে এ বিষয় আলোচনায় আসে।

ব্রাজিল দিতে চায় গরুর মাংস আর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় চায় জীবন্ত গরু আমদানি করতে। কিন্তু এর কোনোটাই চাচ্ছে না প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর।

দেশে প্রাণিজ আমিষ জোগানের দায়িত্বে রয়েছে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর।

সরকারি প্রতিষ্ঠানটি বলছে, দেশে গরুর মাংসের চাহিদার চেয়ে জোগান বেশি। তাই আমদানির প্রয়োজন নেই।

খামারিরা বলছেন, গরুর মাংসের দাম বেশি কারণ গো-খাদ্যের দাম বেশি। সরকারের উচিত গো-খাদ্যের দাম কমানোর ব্যবস্থা করা। তাহলে দেশেও সস্তায় মাংস উৎপাদন সম্ভব হবে।

এদিকে ব্রাজিল থেকে গরুর মাংস কিংবা জীবন্ত গরু আমদানি হতে পারে। এমন খবরে কপালে চিন্তার রেখা প্রান্তিক খামারিদের। তারা বলছেন, অনেক যুবক পড়াশোনা শেষে উদ্যোক্তা হয়েছেন। ডেইরি শিল্পে এসেছেন। গরু পালন করছেন। মাংস উৎপাদন করছেন। যদি বাইরে থেকে মাংস আমদানি করা হয়, তাহলে প্রান্তিক খামারিরা ধ্বংস হয়ে যাবে।

গরু ও গরুর মাংস আমদানির বিষয়ে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরকে কিছুই জানায়নি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এমন দাবি প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক রেয়াজুল হকের।

তিনি গণমাধ্যমকে জানান, বাংলাদেশ গরুর মাংস উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। প্রতি কুরবানির ঈদে অবিক্রিত থাকে কয়েক লাখ গরু। তিনি আরও বলেন, গত কুরবানিতে ২০ লাখ বড় পশু অবিক্রিত থাকে। এক্ষেত্রে লুকানোর কিছু নেই। আমদানির সুযোগ নেই।

প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, ২০২৩ সালে কুরবানির প্রাণির চাহিদা ছিল ১ কোটি ৪ লাখ, বিপরীতে জোগান ছিল ১ কোটি ২৫ লাখ।

একই কথা বলছে বাংলাদেশ ডেইরি ফারমার্স এসোসিয়েশনও। সংগঠনটির সভাপতির আহ্বান, গো-মাংস আমদানির মতো সিদ্ধান্ত না নিয়ে, সরকারের সস্তায় গো-খাদ্য সরবরাহের দিকে নজর দেয়া উচিত।

ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) হিসাব অনুযায়ী, ২০১৪ সালে রাজধানীর বাজারে প্রতি কেজি গরুর মাংসের দাম ছিল গড়ে ৩০০ টাকা।

ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মঙ্গলবারের হিসাব অনুযায়ী, ঢাকার বাজারে প্রতি কেজি গরুর মাংস বিক্রি হয়েছে ৭৫০ থেকে ৭৮০ টাকায়। অর্থাৎ ২০১৪ সালের তুলনায় এখন গরুর মাংসের দাম এখন ১৫০ শতাংশের বেশি।

তবে ঈদকে সামনে রেখে বিভিন্ন খুচরা বাজারে গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৮০০ টাকায়।

প্রসঙ্গত, ৭ মার্চ ঢাকায় সফরত ব্রাজিলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাউরো ভিয়েরোর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। তখন গরুর মাংস রপ্তানির জন্য আগ্রহ দেখায় ব্রাজিল। কুরবানির ঈদকে সামনে রেখে জীবন্ত গরু আমদানি করতে চাচ্ছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

মন্তব্য করুন

daraz
  • বাংলাদেশ এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
আমদানির পরেও ধরাছোঁয়ার বাইরে কাঁচামরিচ 
দীর্ঘ ৬ মাস পর হিলি বন্দর দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি শুরু 
৮ দিনেও বিক্রি হয়নি হিলি বন্দর দিয়ে আমদানি করা পেঁয়াজ
৫ দিন পর বেনাপোল দিয়ে আমদানি-রপ্তানি শুরু
X
Fresh