• ঢাকা শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯, ৮ চৈত্র ১৪২৫

‘আমারই গ্যাস নাই, তারে পালুম ক্যামতে’

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২১:৩৯
‘আমারই গ্যাস নাই, বুকে শ্বাস কষ্ট। তারে পালুম ক্যামতে। তার তো শরীর পুইড়া শ্যাষ। আমারে খাওয়াইবো কে?’ বলে বিলাপ শুরু করতে লাগলেন রিকশাচালক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী হাজেরা।

গত বুধবার রাতে চকবাজারের চুড়িহাট্টায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে আনোয়ার দগ্ধ হন। আনোয়ার হোসেনের শরীরের ২৮ শতাংশ পুড়ে গেছে। বার্ন ইউনিটের দ্বিতীয়তলায় আইসিউতে আনোয়ার হোসেনকে সারা শরীরে ব্যান্ডেজ মোড়ানো অবস্থায় শুয়ে আছেন।

আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী জানান, তার স্বামী পেশায় রিকশাচালক। পাঁচ সন্তানসহ তারা কামরাঙ্গীরচরে থাকেন। তার স্বামীর উপার্জন দিয়ে তাদের সংসার চলে। আইসিওতে ১ নম্বর কেবিনে আছেন তিনি। তার মেয়ে বিথি তার সাথে আছেন।

তিনি জানান, তার স্বামী বেঁচে থেকেও আজ মৃত। তার কর্মক্ষমতা সে হারিয়ে ফেলেছে। কীভাবে এতো জন মানুষের মুখে ভাত তুলে দিবেন। তিনি নিজেও শ্বাস কষ্টে ভুগছে। স্বামীর এ অবস্থা দেখে সহ্য করে যাচ্ছে শত কষ্টেও।

বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের প্রধান সমন্বয়কারী ডা. সামন্ত লাল সেন জানান, ভর্তি ৯ জনের মধ্যে কারও অবস্থাই ভালো না। প্রায় সবারই শ্বাসনালী পুড়ে গেছে।

বার্ন ইউনিটে মোট ১৪ জন দগ্ধ রোগী এসেছিলেন বলে তিনি জানান।

এছাড়া আইসিউতে থাকা সোহাগের শরীরের ৬০ শতাংশ, পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ডে ৮ জনের মধ্যে রেজাউল করিমের ৫৭ শতাংশ, জাকির হোসেনের ৩৮ শতাংশ, মুজাফফর আহমদের ৩০ শতাংশ, হেলালউদ্দিনের ১৬ শতাংশ, সেলিমের ১৪ শতাংশ, মাহমুদের ১৩ শতাংশ আর সালাউদ্দিন ১০ শতাংশ পোড়া শরীর নিয়ে বার্ন ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন।

চকবাজারের এ অগ্নিকাণ্ডে ৬৭ জন নিহত হয়েছেন। আহত অর্ধশত। এদিকে আহতদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

এমসি/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়