Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

সমাজচ্যুত মুক্তিযোদ্ধা পরিবার, ডিসি-এসপিকে ব্যবস্থার নির্দেশ

সমাজচ্যুত মুক্তিযোদ্ধা পরিবার, ডিসি-এসপিকে ব্যবস্থার নির্দেশ
ফাইল ছবি

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার তেগুরিয়া ইউনিয়নের রামপুরা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরুজ আলীর পরিবারকে সমাজচ্যুত করার অভিযোগের ঘটনায় জেলা প্রশাসক (ডিসি), পুলিশ সুপার (এসপি)সহ সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে এ ঘটনায় রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

আজ সোমবার (১৯ এপ্রিল) বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. সুরুজ আলীর করা এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এছাড়া আদালত রুল জারির পাশাপাশি জেলা প্রশাসকের কাছে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের দেওয়া আবেদন নিষ্পত্তি করতে বলেছেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী গৌরাঙ্গ চন্দ্র কর ও আইনজীবী দেলোয়ার হোসেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দু কুমার রায়।

সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দু কুমার রায় বলেন, আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া জেলা প্রশাসকের কাছে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের দেওয়া আবেদন নিষ্পত্তি করতেও নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আইনজীবী গৌরাঙ্গ চন্দ্র কর জানান, গেল ২৬ মার্চ মারামারির ঘটনাকে কেন্দ্র করে হবিগঞ্জের রামপুরা গ্রামের আব্দুর রবের সভাপতিত্বে সমাজপতিরা সালিশ শেষে মুক্তিযোদ্ধা সুরুজ আলীকে (৭৪) সমাজচ্যুত করার সিদ্ধান্ত দেয়। সামাজিক সব কর্মকাণ্ডে তাকে নিষিদ্ধ করা হয়। এছাড়া সুরুজ আলীর পরিবারকে খাদ্যদ্রব্য ও সিলিন্ডার গ্যাস সরবরাহ করতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। যদি কোনও দোকানদার তার কাছে মালামাল বিক্রি করে, তবে সেই দোকানদারকেও জরিমানা করা হবে এমন হুমকি দেওয়া হয়। সালিশ থেকে আরও ঘোষণা দেওয়া হয়, সুরুজ আলী ও তার পরিবারকে যে বা যারা সহযোগিতা করবে তাদের ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে।

পরে এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে সুরুজ আলী জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে আবেদন করেন। এতে সাড়া না পেয়ে গত ১১ এপ্রিল তিনি হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন।

এসএস

RTV Drama
RTVPLUS