logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯, ৮ কার্তিক ১৪২৬

মেসির মন্তব্য অগ্রহণযোগ্য: কনমেবল

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৭ জুলাই ২০১৯, ১৫:৩২ | আপডেট : ০৭ জুলাই ২০১৯, ১৬:০৮
কোপা আমেরিকা
ছবি- সংগৃহীত
কোপা আমেরিকার মাঠ নিয়ে আগেই অখুশি ছিলেন লিওনেল মেসি। গ্রুপ পর্বে কাতারের বিপক্ষে জয়ের পরও তিনি মাঠের মান নিয়ে  হতাশার কথা জানিয়েছিলেন সাংবাদিকদের কাছে। সেমি-ফাইনালে ব্রাজিল ম্যাচে ভিডিও অ্যাসিট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) ব্যবহার না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। তার দাবি দুটি পেনাল্টি না দিয়ে দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবল কনফেডারেশন  (কনমেবল) উল্টো ব্রাজিলের পক্ষ নিয়েছে। রেফারিদের সিদ্ধান্তের তুমুল সমালোচনা করেন মেসি। টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে যাওয়ার পর তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে চিলির বিপক্ষে নেমেছিল আর্জেন্টিনা। এই ম্যাচের প্রথমার্ধে বিতর্কিত লাল কার্ড পেয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে দলটির সবচেয়ে বড় তারকাকে। এদিনও কনমেবলকে তুলোধোনা করেছেন মেসি।

যদিও মেসির মন্তব্যকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ হিসেবে উল্লেখ করেছে দক্ষিণ আমেরিকা ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থাটি। তাদের দাবি ফল মেনে নেয়াই খেলার অংশ।

এক বিবৃতিতে কনমেবল জানায়, ‘ফুটবলে আপনি কখনো জিতবেন, কখনো হারবেন। সম্মানের সঙ্গে সে ফল মেনে নেয়াই ফেয়ার-প্লে’র অন্যতম অংশ। এটা রেফারির ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। রেফারিরাও মানুষ সব সময় তাদের সব সিদ্ধান্ত সঠিক নাও হতে পারে।’ 

এ ধরনের মন্তব্য অগ্রহণযোগ্য উল্লেখ করে মহাদেশীয় এই ফুটবল সংস্থাটি জানায়, ১২ জাতির এ টুর্নামেন্টে নিয়ম সবার জন্যই একই। এমন মন্তব্য কোটা আমেরিকার প্রতি সম্মান না থাকাটা বোঝায়। কনমেবলে কয়েকশ ফুটবলার রয়েছে। ২০১৬ সাল থেকে প্রতিষ্ঠানটি দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবলের প্রতি বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে। 

চিলির বিপক্ষে ম্যাচের ১২ মিনিটে মেসির পাস থেকেই গোল করে পায় আর্জেন্টিনা। দলকে এগিয়ে দেন ম্যানচেস্টার সিটি স্ট্রাইকার সার্জিও আগুয়েরো। ম্যাচের ২২তম মিনিটে জিওভানি লো সেলসোর বাড়ানো বল থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড পাউলো দিবালা। 

৩৭ মিনিটের মাথায় মেসির বিতর্কিত লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয়। ৫৯ মিনিটে আতুরো ভিদালের স্পট কিকে ব্যবধান কমায় চিলি। যদিও শেষ পর্যন্ত হার এড়াতে পারেনি টানা দুইবারের চ্যাম্পিয়ন চিলি। শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলে জয় নিয়ে তৃতীয় স্থান দখল করে আলবিসেলেস্তেরা।

কোপায় তৃতীয় হবার মেডেল ও নিতে দেখা যায়নি মেসি। এমনকি চিলির কোনও খেলোয়াড়ের সঙ্গে হাতও মেলাতে দেখা যায়নি পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ীকে।

ম্যাচ শেষে মেসি দাবি করেন, ভিএআরের ব্যবহার করা হলে ছবিটা অন্যরকম হয়ে পারত। আসলে টুর্নামেন্টে সব কিছুই ব্রাজিলকে সুবিধা করে দেয়ার জন্য চলছে। আমি এই দুর্নীতির অংশ হতে চাই না। আমাদের উচিতও নয়। যেভাবে টুর্নামেন্টে আমাকে সম্মান করা হয়েছে, তা মেনে নেয়া যায় না।

ওয়াই

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়