• ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০১৯, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

ট্রফি জেতার জন্যই মাঠে নামবে অনূর্ধ্ব-১৯ নারী দল: কোচ

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১৮:০৮ | আপডেট : ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১৮:৪১
গোলাম রাব্বানী ছোটন ||| ছবি: বাফুফে
একটি দল নিয়েই গেল কয়েক বছর ধরে জাতীয় ও বয়সভিত্তিক বিভিন্ন টুর্নামেন্ট অংশ নিচ্ছে খেলছে বাংলাদেশের নারী ফুটবলাররা। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্বে রানার্সআপ হতে হয়েছিল নারী দলকে। দেশে ফেরার পরই গোলাম রাব্বানী ছোটনের শিষ্যরা খেলতে চলে যায় সাফ নারী ফুটবলের ২০১৯ সালের আসরে। নেপালের দক্ষিণ এশিয়ার নারীদের জাতীয় দলগুলো নিয়ে আয়োজিত এই টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে ভারতের কাছে হেরে বিদায় নিতে হয়েছিল বাংলাদেশকে। এবার চ্যালেঞ্জ বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ মহিলা আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপের। আগামী ২২ এপ্রিল থেকে শুরু হতে চলা ৬ জাতীর এই আসরটি চলবে ৩ মার্চ পর্যন্ত।

আন্তর্জাতিক এই টুর্নামেন্ট শুরুর আগে শনিবার সব শেষ প্রস্তুতির বিস্তারিত জানাতে মুখোমুখি হয়েছিল স্বাগতিক দল।

বাফুফে ভবনে গোলাম রাব্বানী ছোটন জানিয়েছেন, টুর্নামেন্ট নামার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। তিনি বলেন, মেয়েরা ধারাবাহিক ভাবে প্রস্তুতির মধ্যেই আছে। ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চে দুটি বড় টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছে তারা। নেপাল ও মিয়ানমারের ভুল ত্রুটি গুলো শুধরে নেয়ার চেষ্টা চলছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের নামে প্রথমবারের মতো ঘরের মাঠে এত বড় আয়োজন। বাংলাদেশ কোচ জানালেন, শিরোপা তোলা ছাড়া আর কিছুই ভাবছেন না তারা। ছোটন বলেন, আমাদের শ্রদ্ধেয় বঙ্গমাতার নামে টুর্নামেন্ট। আর তাই ফাইনালে গিয়ে এটি স্মরণীয় করতে চাই।

টুর্নামেন্টে অংশ নিতে চলা তাজাকিস্তান, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও কিরগিজস্তানের সঙ্গে বয়স ভিত্তিক বিভিন্ন খেলায় অংশ নিয়েছে বাংলাদেশের মেয়েরা। কোচ বলেন, মঙ্গোলিয়া ও লাওসের সঙ্গে খেলার অভিজ্ঞা নেই।

জয়ের জন্য মাঠে নামবো উল্লেখ করে কোচ আরও বলেন, সময় অনুযায়ী ফরম্যাট সাজানো হবে। তার মতে, আমাদের মেয়েরা ট্যাকটিক্যালি-টেকনিক্যালি ভালো করছে। আর সেগুলো মাঠেই প্রমাণ করতে চাই। 

ঘরের মাঠে এত বড় আয়োজন এ নিয়ে কোনো বাড়তি চাপ অথবা চ্যালেঞ্জ রয়েছে কি? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, চ্যালেঞ্জ তো থাকবেই, তবে চাপ অনুভব করছি না। চ্যালেঞ্জ ওভারকাম করেই ১০০% দেয়ার চেষ্টা করবে মেয়েরা।

মার্চের ২৮ তারিখ থেকে কঠোর পরিশ্রম চলছে। ট্রফি জেতার জন্য সবোর্চ্চ চেষ্টা করব। প্রতিটা দলই শক্তিশালী, সবার সঙ্গে নিজের সেরাটা দিতে হবে। 

টুর্নামেন্টকে ঘিরে বেশ আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের অধিনায়ক মিসরাত জাহান মৌসুমী। তিনি বলেন, প্রথম বারের মতো টুর্নামেন্টটি আয়োজন হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর মায়ের নামে। আমাদের দলে কোনো ইনজুরির সমস্যা নেই। সবাই দোয়া করবেন। আমরা যাতে ফাইনালে গিয়ে শিরোপা নিতে পারি।   

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) ও টুর্নামেন্টের স্বত্বাধিকারী প্রতিষ্ঠান কে-স্পোর্টস টুর্নামেন্টকে ঘিরে নিয়েছে অনেক পদক্ষেপ, এগুলো কি দলের জন্য বাড়তি চাপ? মৌসুমী বললেন, বাড়তি কোনো চাপ নেই। এটা অবশ্যই আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা। 

সংবাদ সম্মেলনে বাফুফে কার্যনির্বাহী সদস্য এবং নারী ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণ, ফেডারেশন সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ, কার্যনির্বাহী সদস্য ও দলের ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবু, টেকনিক্যাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক ডিরেক্টার পল স্মলি উপস্থিত ছিলেন। 

ওয়াই

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়