• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১
logo

দুর্দান্ত শুরুতেও অস্ট্রেলিয়ার রানের পাহাড় টপকাতে পারল না ইংল্যান্ড 

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি নিউজ

  ০৯ জুন ২০২৪, ০২:৪৭
দুর্দান্ত শুরুতেও অস্ট্রেলিয়ার রানের পাহাড় টপকাতে পারল না ইংল্যান্ড 
ব্যর্থতা মাথায় নিয়ে জনি বেয়ারস্টোর এ ফিরে যাওয়ার মধ্য দিয়েই নিভে যেতে থাকে ইংল্যান্ডের জয়ের আশা। ছবি: সংগৃহীত

দুই ওপেনারের দুর্দান্ত শুরুতেও অস্ট্রেলিয়ার রানের পাহাড় টপকাতে পারল না ইংল্যান্ড। ফলে এবারের টি২০ বিশ্বকাপ আসরের দুই ম্যাচ শেষেও কাঙ্ক্ষিত জয় অধরাই থেকে গেল থ্রি লায়ন্সদের। ওয়ান ডাউন পরবর্তী ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় এই মুহূর্তে তাদের অবস্থান দুর্বল নামিবিয়ারও নিচে।

অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানদের সম্মিলিত চেষ্টায় গড়া রানের পাহাড় টপকানোর চ্যালেঞ্জ নিয়ে ব্যাট করতে নেমে ওপেনার ফিল সল্টকে সঙ্গে করে দুর্দান্ত এক সূচনাই করেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক জস বাটলার। টার্গেট অনুযায়ী ওভারপ্রতি ১০ গড়ে রান তুলে পাওয়ার প্লেটা পার করে দেন নির্বিঘ্নে। প্রথম ৭ ওভারে ইংলিশ দুই ওপেনার স্কোরবোর্ডে যোগ করে ফেলেন ৭৩ রান। যেভাবে দুজন এগুচ্ছিলেন, অস্ট্রেলিয়ার ২০২ রানের লক্ষ্যটা হাতের নাগালেই বলে মনে হতে শুরু করেছিল এ পর্যায়ে। কিন্তু তখনই জাম্পার আঘাত!

সপ্তম ওভার শেষে এসে প্রথম বলেই ডানহাতি লেগ স্পিনে স্ট্যাম্প ভেঙে দেন ফিল সল্টের। দুই ছয় আর চার চারে ৩৭ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান ইংলিশ ওপেনার। ওয়ান ডাউনে নেমে সাবধানী ব্যাটিং শুরু করেন উইল জ্যাকস। আর অপর প্রান্তে অধিনায়ক বাটলার খেলছিলেন পরিস্থিতি বুঝে শট; হিসেব মিলিয়ে প্রয়োজনীয় রান রেট অনুযায়ী ঠিক রাখছিলেন রানের গতি। কিন্তু দশম ওভারের পঞ্চম বলে দৃশ্যপটে আবার জাম্পা। এবার তার শিকার থ্রি লায়ন্সদের ব্যাটিংয়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ জস বাটলার। দলের স্কোর ৯২তে রেখে বাটলার ফেরেন ৪২ রানে। পাঁচ চার আর দুই ছয়ে দারুণ এ ইনিংসটি তিনি সাজিয়েছিলেন মাত্র ২৮ বলে।

পরের ওভারেই ওয়ান ডাউনে নামা উইল জ্যাকসকে প্যাভিলিয়নে ফেরান অলরাউন্ডার মার্কাস স্টয়নিস। ১০ বলে ১০ রান করে জ্যাকস যখন মাঠ ছাড়ছিলেন ইংল্যান্ডের স্কোর তখন ১০.৫ ওভারে ৯৬/৩। অধপতনের এই শুরু।

বেয়ারস্টো আর মঈন আলী মিলে ধাক্কা সামলানোর চেষ্টা করে গেলেও রান না ওঠায় ক্রমে ম্যাচ থেকে ছিটকে যেতে থাকে থ্রি লায়ন্সরা। ১৫তম ওভারের প্রথম বলে হ্যাজেলউডের বলে ম্যাক্সওয়েলের হাতে ক্যাচ দিয়ে যখন ফিরছিলেন বেয়ারস্টো, ২৯ বলে ৭৮ রান দরকার ইংল্যান্ডের। প্রয়োজনীয় রান রেট তখন ১৩ এর বেশি। কিন্তু পরবর্তী ৯ বলে স্কোরবোর্ডে আর মাত্র চার রান যোগ করেই ফিরে যান মঈন আলীও।

এরপর প্রায় অসম্ভব হয়ে ওঠা লক্ষ্য তাড়ায় একটু প্রচেষ্টা চালিয়েছেন হ্যারি ব্রুক আর লিয়াম লিভিংস্টোন। কিন্তু যথেষ্ট ছিল না তা। ব্রুক ১৬ বলে ২০ রান করে অপরাজিত থেকে গেলেও কামিন্সের ১৯তম ওভার শেষ হওয়ার আগের বলে স্টার্কের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন লিভিংস্টোন। এরপর ক্রিজে নেমে ৩ বলে মাত্র এক রান করতে পারেন ক্রিস জর্ডান। আর নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটের বিনিময়ে ১৬৫ রান করে মাঠ ছাড়তে হয় ইংল্যান্ডকে। ব্যাটসম্যানদের দারুণ ব্যাটিংয়ের পর বোলারদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ৩৬ রানের জয় পায় অস্ট্রেলিয়া।

এ নিয়ে টানা দুই জয়ে অস্ট্রেলিয়া এখন গ্রুপ-বি এর শীর্ষে। পক্ষান্তরে জয়হীন টানা দুই ম্যাচের বদৌলতে খাদের কিনারায় ইংল্যান্ড। শেষ আট নিশ্চিত করতে নামিবিয়া এবং ওমানের বিরুদ্ধে তো জিততে হবেই, সঙ্গে তাকিয়ে থাকতে হবে দুর্বল স্কটল্যান্ডের দিকে।

মন্তব্য করুন

  • খেলা এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
সরে দাঁড়ালেন ইংল্যান্ডের কোচ সাউথগেট
ব্রিটিশদের আক্ষেপে পুড়িয়ে ইউরোপের রাজার আসনে স্পেন 
ইউরোর শিরোপা জিতবে কে, স্পেন নাকি ইংল্যান্ড
উজ্জীবিত ইংল্যান্ডের মুখোমুখি অপরাজিত স্পেন