logo
  • ঢাকা রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৪ কার্তিক ১৪২৬

যুবদল নেতা থেকে এখন প্রভাবশালী যুবলীগ নেতা শামীম

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২০:১৫
যুবদল নেতা থেকে এখন প্রভাবশালী যুবলীগ নেতা শামীম
ফাইল ছবি
যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীম শুক্রবার বিপুল পরিমাণ অর্থ ও অস্ত্রসহ আটক হয়েছেন।

শামীম মানুষটি ছোটখাটো হলেও তার ক্ষমতার দাপট ছিল আকাশসমান। রাজধানীর সবুজবাগ, বাসাবো, মতিঝিলসহ বিভিন্ন এলাকায় তার প্রভাব প্রতিপত্তির খবর সবারই জানা।

বিএনপি-জামায়াত শাসনামলেও গণপূর্ত ভবন ছিল এই শামীম ঠিকাদারের নিয়ন্ত্রণে। ক্ষমতার পালা বদল হলেও গণপূর্ত ভবনটি তার হাত বদল হয়নি। শামীম একইসাথে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি পদেও আছেন। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার সন্মানদী ইউনিয়নের দক্ষিণপাড়া গ্রামের মৃত মো. আফসার উদ্দিন মাস্টারের ছেলে শামীম। আফসার উদ্দিন মাস্টার ছিলেন হরিহরদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। তিন ছেলের মধ্যে জি কে শামীম মেজো।

জি কে শামীম একসময় বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাসের ক্যাডার হিসেবে বাসাবো এলাকায় পরিচিত। বিএনপির আমলে জি কে শামীমের ভয়ে মতিঝিল, পল্টন, শান্তিনগরের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা পালিয়ে বেড়িয়েছেন।

জানা যায়, সারাদেশে কনস্ট্রাকশনের যত বড় বড় কাজ হয় সকল কাজ তার নির্বাচিত ঠিকাদরি প্রতিষ্ঠান ছাড়া কেউ করতে পারে না। যদি কেউ জি কে শামীম-কে না জানিয়ে দরপত্র ক্রয় করেন তবে তার পরিণাম হয় ভয়ঙ্কর।

ছয়জন অস্ত্রধারী দেহরক্ষীর প্রটেকশনে চলেন জি কে শামীম। সবার হাতেই থাকে শটগান। গায়ে বিশেষ সিকিউরিটির পোশাক।

বাসাবো এলাকার স্থানীয়রা জানান, গ্রাম থেকে ঢাকায় আসার পর এজিবি কলোনি, হাসপাতাল জোন এবং মধ্য বাসাবোতেই পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন শামীম। ৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবদলের মাধ্যমেই তার রাজনীতি শুরু। পরবর্তী সময়ে মির্জা আব্বাসের ভাই মির্জা কালু ও মির্জা খোকনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা হয় এবং তাদের সহযোগিতায় ধীরে ধীরে গণপূর্ত ভবনের ঠিকাদারি ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ নেন। এক সময় ঢাকা মহানগর যুবদলের সহসম্পাদকের পদও বাগিয়ে নেন।

জি কে শামীমের বাসাবো এলাকায় পাঁচটি বাড়ি এবং একাধিক প্লট রয়েছে। তবে শামীম কয়েক বছর যাবৎ বাসাবোর বাড়ি ছেড়ে বনানীর ওল্ড ডিওএইচএসে নিজের ফ্ল্যাটে বসবাস করছেন।

এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়