logo
  • ঢাকা বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬

আমার এসি লাগে না, এখনও ফ্যানেই সন্তুষ্ট: মতিয়া

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০১ জুন ২০১৯, ২২:০৮ | আপডেট : ০১ জুন ২০১৯, ২২:৩৪
মানুষ এখন অনেক বেশি আরামপ্রিয় হয়ে গেছে। বাংলাদেশে এয়ার কন্ডিশনার ব্যবহারও মাত্রা ছাড়িয়েছে। এসি ব্যবহার করলে পরিবেশ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। এটি ব্যবহারে লাগামছাড়া হলে চলবে না। ঘর শীতল করার জন্য আমার এয়ারকন্ডিশনের (এসি) হাওয়া লাগে না। আমি এখনও ফ্যান ব্যবহারেই সন্তুষ্ট থাকি। বললেন সাবেক কৃষিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্য মতিয়া চৌধুরী। 

শনিবার (১ জুন) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটি আয়োজিত ‘বায়ুদূষণ: আমাদের করণীয় ও পদক্ষেপ’ শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

মতিয়া চৌধুরী বলেন, প্রকৃতির প্রতিশোধ বড় নির্মম। কিন্তু সেসব ভুলে আমরা অনেক বেশি বস্তুবাদী ও ভোগবাদী হয়ে যাচ্ছি। আরামপ্রিয়তার স্বভাব আমাদের ছাড়তে হবে। এর জন্য কষ্ট করতে হবে।

সাবেক এই কৃষিমন্ত্রী বলেন, বিজ্ঞানের আবিষ্কারের ভালোটা নিতে হবে। মন্দটা পরিত্যাগ করতে হবে। এয়ার কন্ডিশনের অতি ব্যবহারের কারণে পরিবেশ বিপর্যয় হচ্ছে। এসি ব্যবহার করা মানে দূষণকে নিমন্ত্রণ করে বাড়িতে আনা।

তিনি বলেন, সিরডাপের মোড়ে ২০০ বছরের পুরোনো একটি অশ্বত্থ গাছ ছিল, দেড়শ বছরের পুরোনো বাগানবিলাস ছিল। এগুলো মেজর জিয়ার শাসনামলে কাটা হয়েছে। এই মার্শালরা ক্ষমতায় বসে ঢাকা শহরকে তিলেতিলে খুন করেছে।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. মো. আফতাব আলী শেখ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের এই অধ্যাপক বলেন, বাংলাদেশের বায়ুতে অন্যসব গ্যাসীয় উপাদানের মাত্রা ক্ষতিকর সীমার নিচে থাকলেও ধূলিকণার পরিমাণ অনেক বেশি। এই কারণে মানব দেহ ও জীবজগতে মারাত্মক প্রভাব পড়ছে। এ দূষণ রোধ করতে সরকারকে আইন প্রণয়নসহ নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

সেমিনারে অন্যদের মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রাণ গোপাল দত্ত, ইউজিসির সাবেক চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, বাংলাদেশ পরিবেশ সাংবাদিক ফোরামের কামরুল ইসলাম, সাংবাদিক মঞ্জুরুল ইসলাম, ঢাবি শিক্ষক হাফিজুর রহমান কার্জন, হাফিজা খাতুনসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

এসজে/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়