Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৭ জানুয়ারি ২০২২, ৩ মাঘ ১৪২৮
discover

দেশব্যাপী প্রযুক্তি পণ্য ছড়িয়ে দিচ্ছে কম্পিউটার সিটি সেন্টার : মোস্তাফা জব্বার

দেশব্যাপী প্রযুক্তি পণ্য ছড়িয়ে দিচ্ছে কম্পিউটার সিটি সেন্টার: মোস্তাফা জব্বার

রাজধানীর নিউ এলিফ্যান্ট রোডে অবস্থিত দেশের সর্ববৃহৎ আইটি মার্কেট কম্পিউটার সিটি সেন্টারে (মাল্টিপ্ল্যান) শুরু হলো মাসব্যাপী প্রযুক্তি পণ্যে ‘বিজয় উৎসব-২০২১’।

১ ডিসেম্বর বেলা ১১টায় বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত এই উৎসব চলবে ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এই আয়োজন সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশে এখন কম্পিউটার পণ্য বা সেবা পৌঁছে দিচ্ছে আমাদের কম্পিউটার ব্যবসায়ীরা। আমি ধন্যবাদ জানাই কম্পিউটার সিটি সেন্টারকে, যারা দেশব্যাপী কম্পিউটার পণ্য ও সেবা পৌঁছে দিচ্ছে। করোনার এই অবস্থায়ও ব্যবসায়ীরা যে সেবা দিয়ে গেছে, তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা। বিজয়ের এই কম্পিউটার উৎসব দেশব্যাপী ছড়িয়ে যাক ও সফল হোক।’

তিনি আরও বলেন, আমরা ১২ ডিসেম্বরে ফাইভ-জিতে প্রবেশ করব। স্যামসাং, নোকিয়াসহ অনেকেই বাংলাদেশে কাজ শুরু করেছে। আমরা এখন বাংলাদেশ থেকে কম্পিউটার কম্পিউটারসহ অনেক প্রযুক্তি পণ্য রপ্তানি করছি। উন্নত দেশ হতে আমাদের ৪১ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে না।

অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধকালে ঢাকা জেলা কমান্ডার (বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্স, বিএলএফ) ও সাবেক সংসদ সদস্য মোস্তফা মহসীন মন্টু। তিনি তার বক্তৃতায়, সাইবার নিরাপত্তার বিষয়টি জোরালোভাবে তুলে ধরেন এবং জন কল্যাণে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করার তাগিদ দেন। তথ্যপ্রযুক্তি জাতির জন্য তখনই সুফল বয়ে আনবে, যখন মানবকল্যাণে এর ব্যবহার হবে।

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন এ আয়োজনের আহ্বায়ক ও কম্পিউটার সিটি সেন্টারের সভাপতি তৌফিক এহেসান।

তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মধ্যে বৃহত্তম আইটি পণ্যের শপিং মল হিসেবে ইতোমধ্যে সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কম্পিউটার সিটি সেন্টার পরিচিতি লাভ করেছে। শুধু তাই নয়, এই মার্কেটটি প্রযুক্তি পণ্যেও মান ও প্রতিযোগিতামূলক দামের জন্যও সারাদেশে প্রযুক্তি পণ্য ক্রেতাদের কাছে বিশ্বস্ত একটি নামও বটে। আমাদের লক্ষ্য দেশের সর্বস্তরের মানুষের মাঝে ও ঘরে ঘরে তথ্যপ্রযুক্তি পৌঁছে দেওয়া, কম্পিউটারসহ তথ্যপ্রযুক্তি পণ্যের ব্যবহারের বিস্তৃতি ব্যাপক হারে বাড়ানো।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র, গ্লোবাল ব্র্যান্ড (প্রা.) লিমিটেডের চেয়ারম্যান আবদুল ফাত্তাহ, স্মার্ট টেকনোলজিস (বিডি) লিমিটেডের পরিচালক জাফর আহমেদ, এক্সেল টেকনোলজিস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গৌতম সাহা, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এর ১নং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কাজী মোর্শেদ হোসেন (কামাল)। এ ছাড়াও আয়োজক কমিটির সব সদস্য, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদকর্মী এবং দেশের খ্যাতিমান আইসিটি ব্যবসায়ীরা ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

প্রথম থেকে দশম তলা পর্যন্ত বিশাল জায়গাজুড়ে ৭৫০টি প্রতিষ্ঠান তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পের সর্বাধুনিক প্রযুক্তিপণ্য ও কলাকৌশল প্রদর্শন করবে।

বিজয় উৎসবে থাকবে প্রযুক্তি পণ্যের ওপর বিশেষ মূল্যছাড়, বিভিন্ন অফার, উপহার সামগ্রীসহ বিভিন্ন ইভেন্টের আয়োজন। থাকবে মুজিব শতবর্ষের আলোচনা সভা, চারটি সেমিনার, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিষয়ক বিশেষ উপস্থাপনা, বিজয় উৎসব উপলক্ষে সাত দিন ফ্রি সার্ভিসিং, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, বিজয়ের গানের প্রতিযোগিতা, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে অবদান রাখা মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা এবং আরও থাকছে ১২ ডিসেম্বর ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবসের বিশেষ র‌্যালি।

আয়োজনে স্পন্সর হিসেবে যুক্ত হয়েছে আসুস, এসার, বেনকিউ, করসিয়ার, ফ্যানটেক, গেমডিয়াস, গিগাবাইট, হিকভিশন, ক্যাসপারস্কি, কিংসম্যান, এলজি, লেনোভো, এমএসআই, মিশন, এমএসআই, নেটিস, নেক্সটজেন, র‌্যাপো, রায়ান্স, সিডনিসান, টেনডা, থার্মালটেক, টগি, টিপি-লিংক, ট্রানসেন্ড, ইউএনভি ইউনিআরস, ভিউসনিক, ওয়াল্টন কম্পিউটার, ওয়াল্টন ল্যাপটপ এবং টিপসই।

এমএন/টিআই

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS