• ঢাকা রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ২ পৌষ ১৪২৬

পরিবহন শ্রমিকদের কর্মবিরতিতে ছাড় পাচ্ছে না অ্যাম্বুলেন্সও

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৮ অক্টোবর ২০১৮, ১৫:৩৫ | আপডেট : ২৮ অক্টোবর ২০১৮, ১৯:৩১
যত কড়াকড়ি আইনি নিরাপত্তা হোক না কেন কিংবা ধর্মঘট, সবখানেই অ্যাম্বুলেন্স চলাচলে ছাড় পায়। কিন্তু পরিবহন শ্রমিকদের কর্মবিরতিতে ঘটেছে উল্টোটা। চলতে দেয়া হচ্ছে না অ্যাম্বুলেন্সও। শুধু তাই নয় অ্যাম্বুলেন্স এ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে দেয়া হচ্ছে পোড়া মবিল।

রোববার সকাল থেকে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে এমন চিত্র দেখা যায়।

western রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, গাবতলী, উত্তরা, মহাখালী, নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ডসহ বিভিন্ন স্থানে দেখা যায়, পরিবহন শ্রমিকরা ধর্মঘটের কারণে অনেক স্থানে যানবাহন চলতে দিচ্ছে না। সিএনজি, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাসকে থামিয়ে দেয়া হচ্ছে। তবে অ্যাম্বুলেন্স এ রোগী থাকলে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। রোগী না থাকলে আটকে দিয়ে ড্রাইভারের মুখে পোড়া মোবিল মাখিয়ে দেয়া হচ্ছে।

গাড়িতে মোবিল দেয়া ও ড্রাইভারের মুখে কালি দেয়ার বেশ কয়েকটি ছবি এরই মধ্যে ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে পড়েছে। সড়ক পরিবহন আইনের কয়েকটি ধারা বাতিলসহ ৮ দফা দাবিতে সারাদেশে শ্রমিকদের ডাকা টানা ৪৮ ঘণ্টার কর্মবিরতি শুরু হয়েছে।

রাজধানী ঢাকাসহ দেশব্যাপী শুরু হওয়া এ কর্মবিরতিতে রাস্তাঘাটে গণপরিবহন না থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন দেশের সাধারণ মানুষ। শুধু তাই নয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা বিপদে পড়েছেন যানবাহন না পেয়ে।

এদিকে রোববার সকালে রাজধানীর মহাখালী বাসস্ট্যান্ডে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী বলেন, জামিন অযোগ্য আইন বাতিল না করা পর্যন্ত গাড়ি চালাবে না চালকরা। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় যদি না বসে তাহলে এ কর্মসূচি আরও দীর্ঘায়িত করবে। ৪৮ ঘণ্টা শেষে ৯৬ ঘণ্টার ধর্মঘট চলবে। এরপর লাগাতর কর্মবিরতিতে যাবে।

এছাড়া রোববার সকালে রাজধানীর সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সেতু ভবনে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এ মুহূর্তে পরিবর্তনের সুযোগ নেই। পরিবহন শ্রমিকদের দাবির বিষয় নিয়ে আলোচনা হতে পারে। পরবর্তী সংসদের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

আরও পড়ুন :

এমসি/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়