logo
  • ঢাকা শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

ছাত্র ইউনিয়নের প্রার্থী চূড়ান্ত, ছাত্রলীগ অপেক্ষায়, ছাত্রদল এখনও ভাবনায়

সিয়াম সারোয়ার জামিল, আরটিভি অনলাইন
|  ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:৫১ | আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:২৯
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনকে সামনে রেখে দল গোছাচ্ছে ছাত্র সংগঠনগুলো। শীর্ষ স্থানীয় তিন ছাত্র সংগঠনের মধ্যে কেবল ছাত্র ইউনিয়নই প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে। ছাত্রলীগ প্রার্থী চূড়ান্ত করতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের চার শীর্ষ নেতার সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করলেও এখনও প্রার্থী ঠিক করতে পারেনি। দলটির নেতারা এখন গণভবনের দিকে তাকিয়ে আছে। অন্যদিকে ছাত্রদল এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। সংগঠনটির শীর্ষ নেতৃত্ব নির্বাচন নিয়ে এখনও ভাবছে।

bestelectronics
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয় কমিটি গঠনের ছয় মাস হলেও এখনও পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি। তাই ছাত্রত্ব থাকা ছাত্রলীগের বেশির ভাগ নেতাই ডাকসু নির্বাচনে প্রার্থী হতে আগ্রহী। তাই তারা চেষ্টা-তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন বেশ জোরেশোরেই। কেউ কাউকে ঠাঁই দিতে নারাজ। এই অবস্থায় প্যানেল চূড়ান্ত করতে ডাকসু নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের চার শীর্ষ নেতার সঙ্গে বৈঠকও করেছেন ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে গণভবনের দিকেই তাকিয়ে আছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। 

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন আরটিভি অনলাইনকে বলেন, এখনও প্রার্থী চূড়ান্ত হয়নি। দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক হয়েছে। সম্ভব্য সবকিছু নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তফসিলে প্রার্থী চূড়ান্ত করার যে নির্ধারিত সময়সীমা দেয়া হয়েছে, আমরা আশা করছি, সেই সময়ের মধ্যে ছাত্রলীগ তার প্রার্থীদের আপনাদের সামনে তুলে ধরতে পারবে।

এদিকে ছাত্র ইউনিয়ন প্রার্থী নির্বাচনে শুরু থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। এ নিয়ে কয়েক দফা বৈঠকেও বসেছে দলের কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির নেতারা। দলটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দীসহ শীর্ষ তিন নেতাই প্রার্থী হচ্ছেন বলে জানা গেছে। তারা গুছিয়ে এনেছেন হলের প্রার্থীদেরও। তবে দলটির নেতারা বলছেন, চমক দেখাতেই আরও কিছু সময় নেয়া হচ্ছে। শিগগিরই পূর্ণাঙ্গ প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হবে।

এ বিষয়ে ঢাবি ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ আরটিভি অনলাইনকে বলেন, আমাদের কোনো দাবিই প্রশাসন এখনও মেনে নেয়নি। উল্টো ছাত্রলীগের মতামতকে প্রাধান্য দিয়ে হলেই ভোটকেন্দ্র রেখেই তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তারা বলেন, কেন্দ্রীয় সংসদ ও হল সংসদে কারা ছাত্র ইউনিয়ন থেকে প্রার্থী হবেন, সেটা চূড়ান্ত করা হয়েছে। তবে কিছু কৌশলগত কারণে এখনই প্রকাশ করছি না আমরা। শিগগিরই এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করা জানানো হবে। 

অন্যদিকে বিএনপির ছাত্র সংগঠন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল নির্বাচনে অংশ নেবে কিনা এখনও ভাবছে। দলটির শীর্ষ নেতৃত্বের বেশিরভাগই অছাত্র ও বয়স্ক হওয়ায় প্রার্থিতা নিয়ে সংকটে পড়েছে তারা। নিয়মিত শিক্ষার্থী- এমন কর্মী থাকলেও সেই সংখ্যা খুবই কম। ক্যাম্পাসে থাকলেও নির্বাচনের মধ্য দিয়ে পরিচয় প্রকাশ করতে চাইছেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংগঠনিক অবস্থাও অনেকটা দুর্বল। দীর্ঘ নয় বছর পর গত ৭ ফেব্রুয়ারি ক্যাম্পাসে মিছিল করলেও সেখানেও বয়স্ক ও অছাত্রদেরই দেখা মিলেছে। 

ছাত্রদলের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক বাশার সিদ্দিকী আরটিভি অনলাইনকে বলছেন, আমরা প্রশাসনকে সহাবস্থান নিশ্চিতের দাবি জানিয়ে এসেছি। ৭ ফেব্রুয়ারি এ নিয়ে স্বারকলিপি দিয়ে তিন মাস পেছানোর দাবি জানিয়েছি। পাশাপাশি ভোটকেন্দ্র হলের বাইরে রাখার কথা বলেছি। কিন্তু কোনো দাবি না মেনেই তফসিল ঘোষণা করেছে।

তিনি বলেন, হলগুলো তো ছাত্রলীগের দখলে। হলে ভোট হলে যে তা সুষ্ঠু হবে না, সেটা জানা কথা। এ অবস্থায় নির্বাচনে অংশ নেবেন কি না- জানতে চাইলে বাশার বলেন, এ বিষয়ে এখনও আমরা ভাবছি। নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে শিগগিরই সিদ্ধান্ত  জানানো হবে।

এসজে/ এমকে

bestelectronics bestelectronics
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়