logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২১, ১৪ মাঘ ১৪২৭

শিক্ষার্থীদের নতুন সিলেবাস তৈরি করছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়

Ministry, Education, new syllabus, students
শিক্ষার্থীদের নতুন সিলেবাস তৈরি করছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়
বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস মানুষের চলাচলের গতিপথ পরিবর্তন করে দিয়েছে। চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে শিক্ষার্থীদের জীবনেও ব্যাপক পরিবর্তন এনেষে। ইতোমধ্যে করোনাভাইরাসের প্রকোপে শিক্ষার্থীদের অটোপাস দিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু এখনও করোনার প্রকোপ কমেনি। তাই আগেভাগেই সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরি করে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেওয়ার উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, শীতের মৌসুম করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আসার আশঙ্কা রয়েছে। করোনার প্রকোপের কারণে আগামী বছরেও যেন শিক্ষার্থীদের অটোপাসের মতো কোনো সিদ্ধান্ত না নিতে হয়, সেজন্য আগেভাগেই শিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরিতে কাজ করছে। সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেওয়া হবে।

আজ বুধবার (২৫ নভেম্বর) স্কুলে ভর্তি নিয়ে আয়োজিত এক ভার্চুয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা আগামী বছর দুই থেকে এক মাস পিছিয়ে যাবে। একই সঙ্গে আগামী বছর যাদের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা দেওয়ার কথা, তাদের জন্য ‘তিন মাসে শেষ করা যায়’- এমন একটি সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে, তার আলোকে তাদের তিন মাস ক্লাস করিয়ে তাদের পরীক্ষা নেওয়া হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের আলোকে আমরা তাদের তিন মাস ক্লাস করাতে চাই। সে কারণে হয়ত এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা ২/১ মাস পিছিয়ে যাবে।

কয়েক বছর ধরে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি এবং ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হয়ে আসছে। ওই দিনগুলো সরকারি ছুটি থাকলে পরের দিন থেকে এসব পরীক্ষা শুরু হয়। এবার এসএসসি পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ে নেওয়া গেলেও দেশে করোনাভাইসের প্রকোপ বাড়তে শুরু করলে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। ফলে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা আটকে যায়। বছরের শেষভাগে এসে জানানো হয়, এবার মহামাররি মধ্যে আর এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হবে না, পরীক্ষার্থীদের অষ্টমের সমাপনী এবং এসএসসি ও সমমানের ফলফলের ভিত্তিতে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল ঘোষণা করা হবে। ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীদের সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে সাপ্তাহিক অ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে মূল্যায়নের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ২০২১ শিক্ষাবর্ষে ১ম থেকে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ভর্তি করা হবে। আগের মতো স্কুলে ডেকে পরীক্ষা নেয়া হবে না। বিভিন্ন প্রস্তাবের ভিত্তিতে সময়োপযোগী লটারির মাধ্যমে ভর্তি পদ্ধতিকে বেছে নেয়া হয়েছে। আগামী ১০ থেকে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে লটারির মাধ্যমে ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে।

লটারির মাধ্যমে ভর্তি হলে মেধাবী শিক্ষার্থীরা ভালো স্কুলে ভর্তি থেকে বঞ্চিত হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রত্যাশিত স্কুলে ভর্তি হতে না পেরে কেউ কেউ রাগান্বিত হবেন। এক্ষেত্রে ভাগ্যের ওপর নির্ভর করতে হবে। তবে গুটিকয়েক স্কুলে ভর্তি হলেই মেধাবীদের সফলতা নির্ভর করে না। কিভাবে পড়ানো হচ্ছে সেটাই বিবেচ্য বিষয়।

এফএ

RTV Drama
RTVPLUS