logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭

মৌসুমি ফল কেন খাবেন, জেনে নিন

লাইফস্টাইল ডেস্ক, আরটিভি নিউজ
|  ১৪ জুলাই ২০২০, ২২:৪৯ | আপডেট : ১৪ জুলাই ২০২০, ২৩:১৬
Seasonal fruits, why eat, find out, nutrition
ফলমূল। ফাইল ছবি।
আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে মৌসুমি ফলের বিকল্প নেই। আমরা যারা ডায়েট করি তাদের জন্য ফল খুবই উপযোগী। তাই প্রতিদিনের খাবারে রাখতে হবে ফল। কিন্তু কী ধরনের ফল খাবেন? কোন ফল স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী, কোন ফল রোগের ঝুঁকি কমায়? তা জানতে হবে। শুধুমাত্র পুষ্টিগুণ নয়। আরও নানা কারণে দেশীয় ফল বেশি খেতে বলছেন চিকিৎসক ও পুষ্টিবিদরা। তবে শুধুমাত্র পুষ্টিগুণ নয়, আরও নানা কারণে অ্যাভোকাডো, কিউই, ব্লু বেরি, রাস্প বেরি, ড্রাগন ফ্রুটের থেকে আম, কলা, পেয়ারাকেই এগিয়ে রাখছেন তারা।

দেশীয় ফলের ক্ষেত্রে ফলনের কিছু দিনের মধ্যেই তা বাজারে চলে আসে। এমনকি বাড়ির গাছ হলে সে ক্ষেত্রে ফল পাকলেই তা খাওয়ার সুযোগ রয়েছে। মৌসুমি ফলের ক্ষেত্রে উৎসেচকের পরিমাণ বেশি থাকায় তা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। দেশীয় এলাকার মাটি, পানি, বাতাসেই বেড়ে ওঠে এই ফলের গাছ। তাই স্থানীয় সংক্রমণ বা মৌসুমি সংক্রমণের ক্ষেত্রে এদের রোগ প্রতিরোধী ক্ষমতাও বেশি। কিন্তু বিদেশ থেকে আমদানিকৃত ফল স্বাদে অনেক সময় অতুলনীয় হলেও এই ফল আমদানি করার সময় অনেক ক্ষেত্রেই সতেজ দেখানোর জন্য মেশানো হয় প্রিজারভেটিভ। ভেঙে যায় উৎসেচক, কমে পুষ্টিগুণ।

ভারতীয় পুষ্টিবিদ সোমা চক্রবর্তী বলেন, বিদেশি ফলের তুলনায় মৌসুমি দেশীয় ফলের দাম বাজারে তুলনামূলক ভাবে কম থাকে। কারণ এ ক্ষেত্রে পরিবহণের খরচ কম থাকে। এ ছাড়াও দেশীয় ফল অর্থনীতির ক্ষেত্রেও একটা প্রভাব ফেলে। টাটকা তো বটেই, এ জাতীয় ফলের ক্ষেত্রে স্বাদও অনেক বেশি থাকে। দেশীয় ফলের ক্ষেত্রে মৌসুমি ফলের একটা বড় ভূমিকা রয়েছে। যেমন গরমকালে আম-জাম-কাঁঠাল-লিচু-তরমুজ-বেদানা, বর্ষাকালে আনারস-মুসাম্বি, শীতকালে আঙুর-আপেল-কমলা লেবু। তাই নানারকম ফল খাওয়ার সুযোগও হয়। ফলে একঘেয়েমিও কমে। আর আমদানিকৃত ফল বা এক্সোটিক ফ্রুটের ক্ষেত্রে ফল পাকার অনেক আগেই গাছ থেকে পেড়ে নেওয়া হয়। পরিবহণের খরচ জুড়ে যাওয়ায় ফলের দামও বেশি হয়। নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছে যাওয়ার পরও ফল সতেজ রাখার জন্য রাসায়নিক স্প্রে করা অনেক ক্ষেত্রেই। তাই মৌসুমি মেলায় আনারসকেই কি‌উই কিংবা রাস্প বেরি থেকে এগিয়ে রাখছেন পুষ্টিবিদরা। যদিও স্বাদ বদলের জন্য মাঝে মাঝে এক্সোটিক ফ্রুট বা আমদানিকৃত ফল খাওয়া যেতে পারে, এমনটাও উল্লেখ করছেন তারা।

কিছু দেশীয় ফল নির্দিষ্ট কোনও এলাকায়, নির্দিষ্ট মৌসুমে বেশি পাওয়া যায়। যেমন টোপা কুল, বোম্বাই কুল-সহ নানা ধরনের কুলের দেখা মেলে বাজারে। অল্প সময়ের জন্য নির্দিষ্ট মৌসুমি যে ফল পাওয়া যায়, তা ডায়েটে অবশ্যই রাখতে বলছেন পুষ্টিবিদরা। তবে ডায়াবেটিস ও কিডনির অসুখ বা অন্য কোনও সমস্যা থাকলে কোন ফল খাবেন আর কোনটা খাবেন না, তা জানতে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতেই হবে। কিছু ফল যেমন খেজুর, নোনা, আতা, বেল, আমলকী, কাজু বাদাম, নারকেল এই ফলগুলোও প্রোটিন ও খনিজ সমৃদ্ধ। গাছে ফলন এবং ফল খাওয়া এ দুইয়ের মধ্যে সময় যত কম, পুষ্টিগুণ তত বেশি। এ কথা মাথায় রেখেই প্রতিদিনের ডায়েটে ফল খেতে বলছেন পুষ্টিবিদ সোমা চক্রবর্তী।


সূত্র- আনন্দবাজার পত্রিকা। 
এনএম/ জিএ

RTVPLUS
corona
দেশ আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ২০৬৬৪৯৮ ১৫৩০৮৯ ৩৫১৩
বিশ্ব ২০৫৫৩৩২৮ ১৩৪৬৫৬৪২ ৭৪৬৬৫২
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • লাইফস্টাইল এর সর্বশেষ
  • লাইফস্টাইল এর পাঠক প্রিয়