logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, ১৫ মাঘ ১৪২৭

শীতে ঘরের ক্ষতিকর বাতাস দূর করবে যে গাছগুলো

লাইফস্টাইল ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ২১ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৫৬ | আপডেট : ০২ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:১৩
শীত, ঘর, ক্ষতিকর বাতাস, গাছ
ক্ষতিকর বাতাসকে দূর করা, সৌন্দর্য আর শখ মেটানোর জন্য অনেকেই ঘরে নানা ধরনের গাছ রাখেন। আপনার শখের ঘরটিকে প্রাচুর্যে ভরিয়ে দিতে পারে দু-একটি অরণ্যের ছোঁয়া। আর তা যদি শীতের আবহাওয়া, তাহলে!

শীতের সময় পরিবেশে তাপমাত্রা কমার সঙ্গে সঙ্গে ঘরের আদ্রতাও কমে যায়। এদিকে দূষণে ভরা আমাদের জনজীবনে সবকিছুর জন্য প্রতিনিয়তই সময় কমে আসছে। যেমন ঘরবাড়ি ঘুছিয়ে রাখার কথাই যদি বলি! অনেক সময় ক্লান্ত শরীর নিয়ে যারা চাকরিজীবী বাইরে থেকে ঘরে ফেরেন তারা মনকে সজীব রাখতে কিংবা বিশুদ্ধ বাতাস পেতে অনেকেই খুঁজে বেড়ান প্রকৃতির সান্নিধ্য। সেক্ষেত্রে কিছু পরিচিত গাছ ঘরে লাগিয়ে আপনি সবসময়ই বিশুদ্ধ বাতাস পেতে পারেন।

১. অ্যালোভেরা

অ্যালোভেরা বাতাস দূষক রাসায়নিক পদার্থের উপস্থিতি কমায়। বাতাসে ক্ষতিকর পদার্থের উপস্থিতি বুঝতে সাহায্য করে, বাতাসে ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থের পরিমাণ অতিরিক্ত বেড়ে গেলে এই গাছের পাতায় বাদামী দাগ দেখা যায়।

২. ইংলিশ আইভি

নাসার মতে, ঘরের দূষিত বাতাস পরিশোধনকারী গাছের মধ্যে একনম্বরেই আছে ইংলিশ আইভি। ফরম্যালডিহাইড শোষণে এটি খুবই কার্যকরী। একে ঝুলিয়ে কিংবা একটু উঁচু স্থানে রাখলেই চলবে।

৩. রাবার গাছ

দ্রুতবর্ধনশীল গাছ হিসেবে রাবার গাছ খুব পরিচিত। কম পরিচর্যাতেও ভালভাবে বেড়ে ওঠা এই গাছটি পরিবেশের বিষাক্ত পদার্থ নিরোধে ভালো কার্যকরী ও বাতাস পরিশোধক।

৪. স্নেক প্ল্যান্ট

স্নেক প্ল্যান্ট রাতে কার্বন-ডাই-অক্সাইড শোষণ করে এবং অক্সিজেন ত্যাগ করে (অন্যান্য গাছ কিন্তু এই কাজ দিনের বেলা করে)। ফলে শয়নকক্ষে একটি স্ন্যাক প্ল্যান্ট রাতে আপনার ঘুমকে করবে আরও আরামদায়ক।

৫. পিস লিলি

দেখতে চমৎকার এই ফুলের গাছটি বাতাসে বিষাক্ত পদার্থের পরিমাণ কমিয়ে দিতে পারে।

৬. ফিলোডেনড্রন

ইংলিশ আইভির মতো এরাও ফরম্যালডিহাইড শোষণে খুবই কার্যকরী। যদি ঠিকমতো যতœ নেয়া যায়, এরা অনেক বছর টিকে থাকবে।

৭. ব্যাম্বো পাম

আকর্ষণীয় ও যন্ত্রণা উপশমকারী গাছ ব্যাম্বো পাম বাতাস পরিশুদ্ধকরণের ৮.৪ মাত্রা নিয়ে নাসার সেরা দশটি গাছের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে। বাতাসে উপস্থিত বেনজিন ও ট্রাইক্লোরোইথিলিন পরিশোষণেও অনেক কার্যকরী ব্যাম্বো পাম।

৮. স্পাইডার প্ল্যান্ট

গাছটি কেবল সৌন্দর্য বর্ধকই নয়, সবচেয়ে ভাল বাতাস-পরিশুদ্ধকারক গাছ হিসেবে নাসার তালিকায়ও এর নাম আছে। ঘরের বাতাসে বেনজিন, ফরম্যালডিহাইড, কার্বন মনোক্সাইড, জাইলিন প্রভৃতি দূষিত পদার্থ পরিশোধন করতে স্পাইডার প্ল্যান্টের জুড়ি নেই।

৯. গোল্ডেন পোথোস

বাতাস বিশুদ্ধকরণে উপযুক্ত গাছ নিয়ে নাসা’র তালিকায় জায়গা করে নেয়া আরেকটি দৃষ্টিনন্দন গাছ গোল্ডেন পোথোস। বাতাস দূষণকারী ফরমালডিহাইড দূর করে।

১০. লাল-প্রাণবন্ত ড্রাসিনা

বাতাসে মিশে থাকা জাইলিন, ট্রাইক্লোরোইথিলিন ও ফরম্যালডিহাইডের মত বিষাক্ত পদার্থ দূর করে।

ঘরের গাছের যত্নে করনীয়

গাছ লাগানোর টবে অবশ্যই ছিদ্র থাকতে হবে, না হলে গাছ মরে যাবে।

প্লাস্টিকের টবে মাটি বা সিরামিকের টবের তুলনায় কম পানি লাগে।

সরাসরি ফ্যান বা এসির বাতাস লাগে এমন জায়গায় গাছ রাখা যাবে না।

রাতে ঘুমানোর সময় মাথার কাছে গাছ না-রাখাই ভালো।

দুই বা এক মাস পর পর গাছের মাটি খুঁচিয়ে জৈব সার দিলে গাছ দীর্ঘদিন ভালো থাকে।

 

এস এস/ জিএ 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • লাইফস্টাইল এর সর্বশেষ
  • লাইফস্টাইল এর পাঠক প্রিয়