logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২ ফাল্গুন ১৪২৭

জ্যোতিষশাস্ত্রী ফকির ইয়াসির আরাফাত

  ০১ জানুয়ারি ২০২১, ১৭:২৯
আপডেট : ০১ জানুয়ারি ২০২১, ১৮:৪৭

জ্যোতিষীর চোখে 

কেমন যাবে ২০২১ সালের বাংলাদেশ ও বিশ্ব

How will Bangladesh and the world go in 2021
কেমন যাবে ২০২১ সালের বাংলাদেশ ও বিশ্ব

বাংলাদেশ ও দেশের মানুষের জন্য খুবই সম্ভাবনাময় বছর এই ২০২১ সাল। সুবর্ণজয়ন্তীর এ বছরে দেশের সকল সূচকই থাকবে ঊর্ধ্বমুখী। ১৬ ডিসেম্বর বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশের জন্ম হওয়ায় বাংলাদেশকে ধনু রাশির অন্তর্গত হিসেবে ধরেই বিচার করেছি আমি।

দেশের সার্বিক উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী চিন্তাভাবনার প্রতিফলন দেখতে পাওয়া যাবে এ বছর। বৈশ্বিক মহামারি করোনার মধ্যেও দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। কূটনৈতিক তৎপরতার জন্য বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের উন্নতি হতে পারে। এমনকি বৃহৎ পরাশক্তি চীন ও ভারত উভয়কে পাশে রেখেই তরান্বিত হবে দেশের অগ্রযাত্রা। এক্ষেত্রে রাষ্ট্রপ্রধানের সুকৌশলের প্রশংসা না করলেই নয়।

এবছরও দেশের রিজার্ভ ও আয় বৃহস্পতি-শনির কল্যাণে বৃদ্ধির তালিকায়। তবে বছরের মাঝামাঝি সময়ে আর্থিক অবস্থা রহস্যজনক কারণে নাজুক হতে পারে। কৃষকরা খাদ্য উৎপাদনে এবছরও সাফল্যের পরিচয় দেবে। তাই বলা যেতে পারে খাদ্য ঘাটতির কোনো আশঙ্কা নেই। বরং রাহুর দৃষ্টির জন্য কিছু কিছু খাদ্যশস্য বিদেশে রপ্তানি হওয়ারও সম্ভাবনা থাকবে। নেপচুনের প্রভাবে রাষ্ট্রের যোগাযোগের কৌশলগত কারণে আন্তর্জাতিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে সকল শত্রু ও মিত্র নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাবে দেশ। তবে অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের জন্য গুপ্ত হত্যা, গণমাধ্যমের ওপর চাপ এবং বিশিষ্ট গণমাধ্যমকর্মী ও ব্যক্তিদের রহস্যজনক মৃত্যুর আশঙ্কা রয়েছে।

দেশের উন্নয়নে থাকা প্রত্যাশাগুলো এবার দুর্দান্তভাবে শুরু করার ক্ষেত্রে শনির বাধা বিপত্তি থাকবে। এতে করে বড় বড় প্রকল্পব্যতীত অন্যান্য উন্নয়নের ধারা মন্থর হতে পারে। সুখবর হলো শিশুর জন্মহার ও শিক্ষা ব্যবস্থায় উন্নতি হবে। রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন সহায়তায় শিক্ষার দিকে বেশ এগিয়ে যাবে দেশ। বিশেষ করে কারিগরি শিক্ষায় সরকারের বিশেষ নজরের জন্য ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীরা আবারও শিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় আসবে। নারী শিক্ষা ও চিকিৎসা বিজ্ঞানে উচ্চতর গবেষণায় অর্থ ব্যয়ে কোনো কার্পণ্য করবে না সরকার। সরকারের বিভিন্ন খাত ও উন্নয়নের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল মাস রাহু মঙ্গলের মৃত্তিকা রাশিতে সহাবস্থান হচ্ছে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, ভূমিধস, ভূমিকম্প, অগ্নি দুর্ঘটনা, সড়ক দুর্ঘটনা বা কোনো প্রকার বিমান দুর্ঘটনায় বহু জানমালের ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। জুন থেকে জুলাই মাস পর্যন্ত মঙ্গলের কর্কটে নীচাবস্থানের জন্য নৌ-দুর্ঘটনা, বন্যা, খরা ও মশাবাহিত রোগে ভোগান্তি হবে দেশের মানুষের। এই সময় চিকিৎসা বিভ্রাটসহ এ খাতের দুর্নীতি বা কোনো গাফিলতির জন্য মৃত্যুর মিছিল বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

দেশের সীমান্ত এলাকায় অরাজকতা দেখা দিবে। সীমান্তে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনার জন্য জানমালের ক্ষতি হতে পারে। তবে এই সময়ে দেশের নিরাপত্তাবাহিনীতে কোনো ষড়যন্ত্রের আশঙ্কাকে উড়িয়ে দেওয়া যায় না। বৈদেশিক ষড়যন্ত্রকে কঠোর হাতে মোকাবিলা করতে হবে। দেশের মানুষ এই সময় উত্তপ্ত হওয়ার চেষ্টা করবে। কিন্তু সরকার তা শক্তহাতে মোকাবিলা করবে।

এ বছর আন্তর্জাতিক ও বৈদেশিক ব্যবসা বাণিজ্যের চলমান স্থবিরতা কাটতে শুরু করবে। শিল্প উৎপাদনের যন্ত্রপাতি ও কাঁচামালের আমদানি হবে। দেশের রপ্তানি বাণিজ্য ফের মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে। বৈদেশিক মিত্রদের কাছ থেকেও দেশের উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য সহজ শর্তে ঋণ আনতে সক্ষম হবে বাংলাদেশ। প্রকৃত অর্থে দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে এ ঋণ খুবই প্রয়োজনীয় হয়ে পড়বে।

সকলের জন্য পেনশন স্কিম গ্রহণের মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় কোষাগারকে মজবুত করার পদক্ষেপ নিতে পারে সরকার। নিরাপত্তার দিকে কোনো হুমকি না থাকলেও নিরাপত্তা সরঞ্জাম ক্রয়ে অন্যান্যবারের মতো এবারও অর্থ ব্যয় হতে পারে। এ বছর পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের দ্বিতীয় প্রকল্প নিয়ে সরকারের চিন্তা-ভাবনা প্রকাশ পাবে।

শুক্র কেতুর জন্য সরকারের উচ্চপর্যায়ে এবং সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে দুর্নীতি পরায়ণতা ও চারিত্রিক পদস্খলনের বা কেলেঙ্কারির খবর প্রকাশ্যে আসতে পারে। এ নিয়ে বিপাকে পড়বে সরকার। দুর্নীতি দমনে সরকারের একাধিক প্রচেষ্টা মাঠেই মারা যাবে।

২০২১ সাল শেয়ারবাজারের জন্য সাফল্যের বছর। শুভ বৃহস্পতির দৃষ্টির জন্য বছরের শুরুতে ও শেষদিকে চাঙাভাব থাকবে শেয়ার বাজার। নতুন প্রতিষ্ঠানগুলো শেয়ার বাজারে বিনিয়োগে আগ্রহী হবে। এবারও সরকারি কূটনৈতিক তৎপরতার পরও বিদেশে জনশক্তি রপ্তানি প্রক্রিয়ায় দীর্ঘসূত্রিতা দেখা যাবে। মন্ত্রিপরিষদে পরিবর্তন এনে নতুন মন্ত্রী করার সুফল তাৎক্ষণিকভাবে পেতে থাকবেন সরকার প্রধান।

অসাধু ব্যবসায়ী ও আড়ৎদারদের অপতৎপরতার জন্য খাদ্যপণ্যের মূল্য ঈদের পূর্বে অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। পেঁয়াজ, তেল, চাল, শিশু খাদ্য, মসলাপাতি ও তরিতরকারির দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধির আশঙ্কা থাকবে। এতে সরকারের প্রতি বিরূপ ধারণা সৃষ্টি হবে জনগণের। স্বার্থান্বেষী কিছু মহল জনগণের এই ক্ষোভকে পুঁজি করে সরকার উৎখাতের অপচেষ্টা চালাতে পারে। মন্ত্রিপরিষদের অনেকের জীবনাবসান ও চোরাগোপ্ত হামলার আশঙ্কা প্রবল।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শরীর-স্বাস্থ্য ভালো যাবে না। বছরের মাঝামাঝি সময়ে বড় ধরনের কোনো রোগে ভুগতে পারেন তিনি। দলীয় ও পারিবারিক বিশৃঙ্খলা দমনে ব্যস্ত সময় পার করবেন প্রধানমন্ত্রী। প্রবল মানসিক চাপ শারীরিক উপসর্গকে বাড়িয়ে দেবে তার।

সুবর্ণজয়ন্তীর এ বছরে পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, কর্ণফুলী টানেল, গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ ও দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা আসতে যাচ্ছে। এবারও বেকারত্বের হার খুব একটা নিম্নমুখী হচ্ছে না। তবে সরকারি-বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানগুলোয় ব্যাপকহারে লোক নিয়োগের প্রয়োজন হবে। বেসরকারিখাতের উন্নতিতে সরকারের নেওয়া অধিকাংশ সুযোগ-সুবিধা সুবিধালোভী মালিকপক্ষ গ্রহণ করবেন। তবে কর্মসংস্থান বৃদ্ধিতে মালিকপক্ষের উৎসাহ থাকবে না। এ কারণে বৈশ্বিক মহামারি করোনায় বেকার হয়ে পড়া বিশাল কর্মশক্তির জন্য ভালো কোনো সংবাদ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

ভারতে ২০২১ সালের পরিস্থিতি : প্রায় ভঙ্গুর দেশটির আর্থসামাজিক অবস্থা চলতি বছরে পুনরুদ্ধারের চেষ্টা সফল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বৈশ্বিক মহামারি করোনার জন্য বাণিজ্যিকভাবে ঘুরে দাঁড়াতে খানিকটা সময় লাগবে ভারতের। বিভিন্ন রাজ্যের আন্তঃকোন্দলের জন্য ও সরকারবিরোধী মনোভাবের জন্য সামগ্রিক উন্নতি ব্যহত হবে। এবারও বিভিন্ন ধর্ম ও জাতিভিত্তিক ইস্যুর জন্য দেশটির জনতা পার্টির প্রধান নরেন্দ্র মোদীর জনপ্রিয়তা হ্রাস পেতে থাকবে। ভারতের অভ্যন্তরে প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেসের একাধিক বর্ষীয়ান নেতার মৃত্যু ও খুনের ঘটনায় বিপদে পড়তে পারে সরকার। আম আদমি পার্টির প্রধানকে সতর্ক থাকতে হবে।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর অনড় অবস্থানের জন্য ভারতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কের উন্নয়ন এ বছরও সম্ভব নয়। অন্যান্যবারের থেকে এবার দেশটিতে বেকারত্বের হার তুলনামূলক বৃদ্ধি পাবে। ধর্ষণ ও মানবপাচারের মতো ঘটনার জন্য প্রশ্নবিদ্ধ হবে ভারতের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকাণ্ড। চীনের সাথে সীমানা সংক্রান্ত বিরোধ বাড়বে। সেই সঙ্গে পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, নেপাল ও ভুটানের সাথে অবনতি হতে যাচ্ছে ভারতের সম্পর্কের। বিশ্ব ব্যাংক বা এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক থেকে ঋণ করার যোগ প্রবল। আশার কথা হলো, দেশটির উৎপাদিত করোনার ভ্যাকসিন সফলভাবে বিশ্ব দরবারে গ্রহণযোগ্য হবে। একাধিক বলিউড ও দক্ষিণী সিনেমার সুপারস্টারের অপমৃত্যু ও স্বাভাবিক মৃত্যুর আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়াও দেশটির সমগ্র সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতে মাফিয়াদের কালোছায়া নামতে চলছে।

রাশিয়ায় ২০২১ সালের পরিস্থিতি : বাংলাদেশের পরম মিত্র ও উন্নয়নের অংশীদার রাশিয়ার জন্য এ বছরটি মিশ্র সম্ভাবনার। এবার নানা ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও অনাকাঙ্ক্ষিত কোনো ঘটনায় জানমালের ব্যাপক হানি হতে পারে। সামগ্রিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন অব্যাহত থাকবে।

প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের দূরদর্শী চিন্তাভাবনা ও তাৎক্ষণিক পদক্ষেপের জন্য দেশের অভ্যন্তরীণ কোন্দল কঠোর হাতে দমন হবে। ইউক্রেন ও ক্রোয়েশিয়াকে কেন্দ্র করে বিদেশি পরাশক্তির সাথে কোনো প্রকার সংঘর্ষে জড়িয়ে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে। এ বছর শিল্প ও খাদ্য উৎপাদনে অন্যান্য বছরের সকল রেকর্ড ভেঙে দিবে ও নিজেদের পরাশক্তির তকমা বজায় রাখবে। তবে পারমাণবিক শক্তিধর রাশিয়াতে এবার কোনো প্রকার পারমাণবিক দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক কোন্দল মাথাচাড়া দেওয়ার চেষ্টা করলেও তা সফল হবে না। কোনো প্রকার রাসায়নিক বিক্রিয়া বা জীবাণু বিক্রিয়ায় প্রতিবেশীদের কাছে হুমকি স্বরূপ হয়ে উঠতে চলছে দেশটি।

চীনের ২০২১ সালের পরিস্থিতি : বিশ্বের অন্যতম পরাশক্তি ও বাংলাদেশের উন্নয়নের সহায়ক বন্ধু চীনের জন্য সম্ভাবনাময় নতুন এ বছরটি। এবারও দেশটির অর্থনীতির অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের জন্য সকল উন্নত দেশের শিল্প-কারখানা বন্ধ থাকায় অসংখ্য মানুষ বেকার, সেই সময়ে দেশটির কলকারখানার উৎপাদন অব্যাহত থাকবে। ইউরোপ আমেরিকা ও কানাডাসহ বিশ্বের সকল দেশের সাথে একচেটিয়া বাণিজ্যিক কার্যক্রম চলতে থাকবে চীনের।

বিশ্বের অন্যান্য পরাশক্তির সাথে এবারও চলমান থাকবে চীনের দ্বন্দ্ব। তবে চীনের সাথে বাংলাদেশের বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্পের চুক্তি হতে পারে। ঋণগ্রস্ত মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা, দক্ষিণ আমেরিকার বিভিন্ন দেশের জন্য ত্রাতা হয়ে উঠবে চীন। এবারও দেশটির খাদ্য উৎপাদন ও শিল্প উৎপাদন অব্যাহতভাবে বৃদ্ধি পাবে। তবে জুন-জুলাই মাসে কোনো প্রকার প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কবলে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। দেশটির রাষ্ট্রপ্রধানের উচ্চাকাঙ্ক্ষী মনোভাবের জন্য সীমান্তবর্তী রাষ্ট্রগুলোর সাথে মনস্তাত্ত্বিক লড়াই অব্যাহত থাকবে। ভারতের সাথে সীমান্তবর্তী সংঘাতের আশঙ্কা থেকেই যাবে। নতুন নতুন ভূখণ্ড দাবি করা অব্যাহত থাকবে চীনের। নতুন উপনিবেশিক মনোভাব পোষণের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে চীনের তিক্ত সম্পর্ক বৃদ্ধি পাবে।

যুক্তরাষ্ট্রের ২০২১ সালের পরিস্থিতি : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের আগমনের জন্য দেশটির আন্তর্জাতিক পলিসির কিছুটা পরিবর্তন হতে যাচ্ছে। তবে সীমান্ত বিষয়ক সমস্যার সমাধান হবে না। করোনা পরিস্থিতি ও আর্থ-সামাজিক অবস্থার পরিবর্তনে বাইডেনের উদ্যোগ সফল হবে। তবে ফলাফল পেতে সময় লাগবে। বিদেশ নীতিতে সামরিক বাহিনীর হস্তক্ষেপের জন্য ট্রাম্প প্রশাসনের নেওয়া সিদ্ধান্তগুলোর প্রতিফলন দেখা যাবে। একাধিকবার ভূমিকম্প, খরা, অগ্নুৎপাত ও ঘূর্ণিঝড়ের মতো ঘটনার জন্য জানমাল ও ফসলের অনেক ক্ষতি হবে।

দেশের অভ্যন্তরে ধর্মীয় উগ্রবাদের জন্য যুব সমাজের এক অংশ চরম পন্থা অবলম্বন করতে পারে। দেশে জিম্মি, ছিনতাই, রাহাজানির মতো ঘটনা ও বড় বড় দুর্ঘটনার আশঙ্কা বৃদ্ধি পাবে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সাথে সম্পর্কের অবনতি হতে থাকবে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিভক্তিতে মার্কিন প্রশাসনের কোনো গোপন তথ্য ফাঁস হয়ে চাঞ্চল্যের জন্ম দিতে পারে। এ বছর প্রাচ্য দেশীয় পরাশক্তির সাথে মার্কিনীদের অর্থনৈতিক দ্বন্দ্ব বাড়বে। নভোমণ্ডলের কোনো যান বিস্ফোরিত হয়ে অনেক নভোচারীর মৃত্যু হতে পারে। করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা ও বিভিন্ন কলকারখানায় সহায়তা করতে গিয়ে মার্কিন অর্থনীতি নাজুক পরিস্থিতিতে পড়তে পারে।

জাপানের ২০২১ সালের পরিস্থিতি : বাংলাদেশের সকল উন্নয়নে একমাত্র নির্ভরযোগ্য দেশ জাপানের জন্য ২০২১ সাল ভালো যাবে। তবে একাধিক প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা থাকছে। সকল বাধা-বিপত্তি পার করে এবারও সকল অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখবে পরিশ্রমী ও বিনয়ী জাতি জাপান।

চলতি বছর দেশটির রাজা বা ধর্মীয় কোনো গুরুর মৃত্যু হতে পারে। দেশটির আন্তর্জাতিক নীতিতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের অনেক দেশের অংশগ্রহণের যোগ। বিশেষ করে জাপান চীন থেকে তাদের বিনিয়োগ ধীরে ধীরে সরিয়ে প্রাচ্যের দেশের দিকে মনোযোগ দেবে। জাপানের এই বিনিয়োগের অংশীদার হওয়া দেশগুলো অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হবে। দেশটির খাদ্য আমদানি ও শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে কিছু বাধা বিপত্তির আশঙ্কা থাকবে। শিক্ষা ও চিকিৎসা বিজ্ঞানের উন্নত গবেষণায় এক বা একাধিক জাপানি নাগরিক নোবেল পুরস্কার অর্জন করতে যাচ্ছে। রাষ্ট্রের ভেতর তেমন কোনো সংকট নেই। তবে রেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানির আশঙ্কা থেকে যায়।

এসআর/পি

RTV Drama
RTVPLUS