logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

লাইফস্টাইল ডেস্ক, আরটিভি নিউজ

  ২২ নভেম্বর ২০২০, ১৫:১০
আপডেট : ২২ নভেম্বর ২০২০, ১৬:৩৪

ভুলে যাওয়ার সমস্যা প্রতিরোধ করতে যা করবেন

Symbolic image
প্রতীকী ছবি
হাতে মোবাইলফোন কিংবা চাবি নিয়ে, গলায় গামছা নিয়ে ঘরের সবখানে এসব জিনিস খুঁজে বেড়ান এমন মানুষ আমাদের আশপাশে অনেকেই আছেন। ডিমেনশিয়া বা ভুলে যাওয়া শুধুই যে বেশি বয়সের মানুষদের সমস্যা, তা নয়। ছোটরাও এই সমস্যায় ভোগে।

ভারতীয় নিউরোলজিস্ট অংশু সেন জানান, বাচ্চাদের পড়া ভুলে যাওয়ার মূলে আছে অমনোযোগ। কিন্তু বড়দের, বিশেষ করে বয়স্কদের ভুলে যাওয়ার পিছনে মস্তিষ্কের অসুখ অ্যালজাইমার ডিজিজ বা পার্কিনসনস থাকতে পারে। আবার দুর্ঘটনায় মাথায় আঘাত লেগে স্মৃতিশক্তি হারিয়ে যাচ্ছে, এই রকম ঘটনাও ঘটতে পারে। ডাক্তারি পরিভাষায় একে বলে ‘পোস্ট ট্রমাটিক অ্যামেনশিয়া’। তবে মাথায় আঘাত লাগা মাত্রই যে চেনা মানুষকে ভুলে যাবেন বা কোনও গান শুনে স্মৃতি ফিরে পাবেন, এমন নাটকীয় ঘটনা বিরল। 

অংশু সেন জানান, স্নায়ুতন্ত্রের কেন্দ্র মস্তিষ্কের প্রধান তিনটি অংশ হলো— সেরিব্রাম, সেরিবেলাম আর ব্রেন স্টেম। মনে রাখা বা না রাখা ছাড়াও একজন মানুষের যাবতীয় শারীরিক ও মানসিক কাজ নিয়ন্ত্রিত হয় ব্রেন থেকেই। 

মস্তিষ্কের সব থেকে বড় অংশ সেরিব্রামের ( মস্তিষ্কের মোট ওজনের ৮৫% ও আয়তনের ৭৫%) দু’টি হেমিস্ফিয়ার আছে। সেরিব্রাম ঢাকা থাকে সেরিব্রাল কর্টেক্স নামের এক আবরণী দিয়ে। মস্তিষ্কের এই আবরণ আমাদের ভাবনা-চিন্তা, বুদ্ধি, মনোযোগ ও স্মৃতিশক্তি বাড়াতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়। সেরিব্রাল কর্টেক্স-এর চারটি লোব বা ভাগ আছে। এদের মধ্যে অ্যামিগডালা ও হিপ্পোক্যাম্পাস অংশ মনে রাখতে সাহায্য করে। হিপ্পোক্যাম্পাস অংশে স্নায়ুকোষ নিউরন তৈরি হয়। বিভিন্ন কারণে নিউরন তৈরির হার কমে গেলে বুদ্ধি ও স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়া সহ বিভিন্ন অসুবিধে হয়। 
যখনই ভুলে যাওয়ার ঘটনা বাড়তে থাকে, তখন অবশ্যই কোনও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। যারা দীর্ঘদিন ধরে ডিপ্রেশনে ভুগছেন, তাদের  মনঃসংযোগ কমে যাওয়ার পাশাপাশি ভুলে যাওয়ার ঝুঁকি অনেক বেশি। 

করণীয়- 

বংশে যদি অ্যালজাইমারস বা পার্কিনসন্সের ইতিহাস থাকলে ছোট থেকেই মন ভালো রাখতে গান শোনা কিংবা পছন্দের বাজনা বাজানো বা শোনার অভ্যাস তৈরি করতে হবে বলে পরামর্শ দিলেন অংশু সেন। এছাড়া বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নিয়ম করে সুডোকু খেলার অভ্যাস বিস্মৃতিকে পিছিয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নেয়।

তিনি বলেন, স্মৃতিশক্তি ধারালো রাখতে সপ্তাহে কমপক্ষে ১৫০ মিনিট ব্যায়াম করতে হবে। হিংসা, রাগ, অকারণ ভয় ভুলে মন ভালো রাখতে নিজের জন্যে কিছুটা সময় রাখতে হবে। গান শোনা, গান গাওয়ার পাশাপাশি ধূমপান মদ্যপান ছাড়তে হবে। টাটকা শাক সবজি, ফল, মাছসহ পুষ্টিকর খাবার খেলে ভুলে যাওয়ার সমস্যা প্রতিরোধ করা যায়।

জিএ/এম  

RTVPLUS