logo
  • ঢাকা রবিবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০, ১৩ মাঘ ১৪২৭

ইরানি স্থাপনায় ট্রাম্পের হামলার হুমকি যুদ্ধাপরাধের সামিল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৭ জানুয়ারি ২০২০, ১১:০৫ | আপডেট : ০৭ জানুয়ারি ২০২০, ১১:২৩
Trump's threat to attack on the Iranian establishment amount to war crimes
ছবি সংগৃহীত
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যে ভাষায় ইরানের সাংস্কৃতিক স্থাপনাকেও হামলার টার্গেট করা হতে পারে বলে হুমকি দিয়েছেন সেটিকে যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে তুলনা করেছেন অনেক মার্কিন রাজনীতিক এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন।

এই হুমকি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প প্রথমে দিয়েছিলেন গত শনিবার। তিনি বলেছিলেন, ইরান যুক্তরাষ্ট্রের ওপর আঘাত হানলে পাল্টা জবাব দেয়ার জন্য ইরানের ৫২টি টার্গেট বাছাই করে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র, যার মধ্যে অনেক সাংস্কৃতিক স্থাপনাও আছে। খবর বিবিসি বাংলার।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এই হুমকি দিয়েছিলেন ইরান তাদের শীর্ষস্থানীয় জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার কঠোর প্রতিশোধ নেয়ার ঘোষণা দেয়ার পর।

রোববার আবারও এই হুমকির পুনরাবৃত্তি করে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার পক্ষে যুক্তি দেয়ার চেষ্টা করেন। তিনি বলেন, যদি তারা মার্কিন নাগরিকদের হত্যা করে, নির্যাতন করে, রাস্তার ধারে বোমা মেরে মার্কিনিদের উড়িয়ে দেয়, তাহলে আমরা কেন ওদের সাংস্কৃতিক স্থাপনায় হামলা চালাতে পারবো না?

---------------------------------------------------------------
আরো পড়ুন: ইরাক থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার সংক্রান্ত চিঠি নিয়ে বিভ্রান্তি
---------------------------------------------------------------

তার এই কথার সমালোচনা শুধু আন্তর্জাতিকভাবেই নয়, স্বদেশেও হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এটিকে সরাসরি যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে তুলনা করেছে। তারা এক বিবৃতিতে বলেছে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যদি এই কাজ করেন, সেটা হবে যুদ্ধাপরাধের সামিল।

যুদ্ধ সম্পর্কিত যে জেনেভা কনভেনশন, তার ৫৩ ধারার কথা উল্লেখ করে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলেছে, কোনও ধরনের সাংস্কৃতিক স্থাপনায় হামলা একেবারেই নিষিদ্ধ।

ডেমোক্র্যাট দলের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আসলে যুদ্ধাপরাধ করার হুমকি দিচ্ছেন।

আর সবচেয়ে কঠোর জবাব এসেছে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফের কাছ থেকে। তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের হুমকিকে ইসলামিক স্টেট যেভাবে মধ্যপ্রাচ্যের সাংস্কৃতিক স্থাপনা ধ্বংসের চেষ্টা করেছিল, তার সঙ্গে তুলনা করেছেন।

 

তিনি বলেছেন, হাজার বছর ধরে যে বর্বররা এসে ইরানের নগরীগুলো ধ্বংস করেছে, সভ্যতা ধ্বংস করেছে, পাঠাগার পুড়িয়ে দিয়েছে, তারা এখন কোথায়? ইরানিরা এখনও দাঁড়িয়ে আছে আরও শক্তিশালী হয়ে।

এদিকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইরানের বিরুদ্ধে যেসব রণহুংকার দিচ্ছেন, তাতে তিনি কংগ্রেসের অনুমতি ছাড়াই যুক্তরাষ্ট্রকে যুদ্ধে জড়িয়ে ফেলতে পারেন, এমন আশংকা তৈরি হয়েছে ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রায় সব নেতাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বেপরোয়া ইরান-নীতির কঠোর সমালোচনা করেছেন।

জো বাইডেন বলেছেন, জেনারেল সোলাইমানি যত খারাপ লোকই হোক, মনে রাখতে হবে তিনি ইরান সরকারের একজন উচ্চপদস্থ ব্যক্তি, তাকে হত্যার ফলে ইরান এখন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে প্রতিশোধের হুমকি দিচ্ছে।

সিনেটর চাক শুমার বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্র একটি দীর্ঘমেয়াদী যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে পারে, এমন আশু হুমকি তৈরি হয়েছে। অন্যদিকে ডেমোক্রেটদের সবচেয়ে ক্ষমতাধর নেতা, কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বলেছেন, ইরানের বিরুদ্ধে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সামরিক ব্যবস্থা গ্রহণের ক্ষমতা সীমিত করতে তিনি হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে প্রস্তাব আনবেন। এর লক্ষ্য হবে ইরানের বিরুদ্ধে যেকোনো সামরিক ব্যবস্থা যেন ৩০ দিনের বেশি দীর্ঘ না হয়।

এর আগে দুজন ডেমোক্র্যাট কংগ্রেস সদস্য এমন বিল আনার ঘোষণা দিয়েছেন, যেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একতরফাভাবে ইরানের বিরুদ্ধে যুদ্ধই ঘোষণা করতে না পারেন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়