logo
  • ঢাকা সোমবার, ২০ জানুয়ারি ২০২০, ৭ মাঘ ১৪২৭

দিল্লির বিক্ষোভে ‘১৫ অবৈধ বাংলাদেশির’ সংযোগ পেলো পুলিশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৪ জানুয়ারি ২০২০, ১০:৫৮
15 illegal bangladeshi behind seelampur clash
ছবি সংগৃহীত
নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাস হওয়ার পর ভারতের বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভের আগুন জ্বলেছে। বাদ যায়নি রাজধানী দিল্লিও। কিন্তু তদন্তে নেমে সেই বিক্ষোভে ‘অবৈধ বাংলাদেশিদের’ হাত খুঁজে পেয়েছে পুলিশ।

গত মাসে দিল্লির সিলমপুরে যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছিল, সেটির পেছনে অন্তত ১৫ জন বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী ছিল বলে দাবি করেছে দিল্লি পুলিশের স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিম। জড়িত ওই ১৫ জনের সবাইকেই চিহ্নিত করা গেছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

সিলমপুরে শুক্রবারের নামাজের পর সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ। আর সেই জমায়েতে ছিল ১৫ জন বাংলাদেশি, যারা অবৈধভাবে ভারতে বসবাস করছে। কিন্তু ওই বিক্ষোভের জন্য অর্থ কোথা থেকে এলো সেটাই খুঁজছে পুলিশ।

ভারতীয় গণমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে’র রিপোর্ট অনুযায়ী, দিল্লি পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ বলছে- অবৈধ বাংলাদেশি মুসলিমরাই ছিল ওই দিনের সংঘর্ষের পেছনে।

সিলমপুর অঞ্চলে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে জমায়েতকে কেন্দ্র করেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল ওই এলাকা। বিক্ষোভকারীরা বাইকে আগুন ধরিয়ে দেয়, বাস ভাঙচুর করে। বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণে আনতে কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে পুলিশ। পরিস্থিতির জেরে বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল দিল্লির ৬টি মেট্রো স্টেশন।

পুরো এলাকা ঘিরে ফেলে পুলিশ বাহিনী। এই ঘটনার জেরে দরিয়াগঞ্জ থেকে দিল্লি গেট পর্যন্ত বাস পরিসেবা ব্যাহত হয়। জোহরি এনক্লেভ, শিব বিহার, গোকুলপুর, ওয়েলকাম, জাফরাবাদ, মওজপুর-বাবরপুর মেট্রো স্টেশনের এন্ট্রি ও এক্সিট গেট বন্ধও করে দেয়া হয়।

হাজার হাজার বিক্ষোভকারী পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। নষ্ট করে দেয়া হয় পুলিশের গাড়ি এবং পুলিশ পোস্ট নষ্ট করে দেয়ার অভিযোগও পাওয়া যায়। সিলমপুর এবং এর আশপাশের এলাকার প্রায় ১০ হাজার বাসিন্দা দুপুরে জাফরাবাদের দিকে মিছিল এগিয়ে নিয়ে যায়। শান্তিপূর্ণ মিছিলের পরে হঠাৎ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। উত্তেজিত জনতা স্কুল এবং দিল্লি সরকারের বাস নষ্ট করে দেয়।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়