logo
  • ঢাকা বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০, ৯ মাঘ ১৪২৭

গঙ্গার ঘাটে হঠাৎ মোদির হোঁচট!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৮:৩৭
নরেন্দ্র মোদি
ছবি সংগৃহীত
জাতীয় গঙ্গা পরিষদের প্রথম বৈঠক। নরেন্দ্র মোদি তাই গতকাল গিয়েছিলেন উত্তরপ্রদেশের কানপুরে। স্পিডবোটে চড়ে ‘নমামি গঙ্গে’ প্রকল্পে গঙ্গা সাফাইয়ের কাজ পরিদর্শন করার পরে ‘অটল ঘাট’-এর সিঁড়ি বেয়ে তরতরিয়েই উঠছিলেন মোদি।

সামনে-পেছনে রয়েছে সতর্ক এসপিজি বাহিনী। আচমকা তাদের, শ’খানেক টিভি ক্যামেরার, ছোটবড় নেতা-কর্মীর, উত্তরপ্রদেশ ও কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মীদের নিঃশ্বাস বন্ধ করে দিয়ে সিঁড়িতে হোঁচট খেলেন মোদি। পড়েই গেলেন। মাথাটা প্রায় নুয়ে পড়ল সামনের ধাপে। ছুটে এসে প্রধানমন্ত্রীকে ধরে তুললেন এসপিজি অফিসাররা। মোদিও দ্রুত সামলে নিলেন নিজেকে।

কিছু উপরে দেখা গেলো ঘাটের ধাপের গায়ে হিন্দিতে লেখা রয়েছে— ‘সাবধান, উঁচু সিঁড়ি!’ যার ফিটনেস ও প্রখর দৃষ্টি কার্যত ‘প্রখর রুদ্র’-সম বলে ভক্তদের বিশ্বাস, এই সতর্কবার্তা তার চোখ এড়ালো কী করে, সেটাই প্রশ্ন। অস্বস্তিও।

অস্বস্তি আরও আছে। জিম করবেট অভয়ারণ্যে বেয়ার গ্রিলসের সঙ্গে অ্যাডভেঞ্চারে এক মুহূর্তের জন্যও মোদির নিরাপত্তা বাহিনীকে দেখা যায়নি ক্যামেরায়। যদিও তারা থাকেন সবসময়। কিন্তু কেদারনাথের গুহায় ধ্যান হোক বা সাত লোককল্যাণ মার্গের লনে শরীর চর্চা, ফ্রেমে মোদি সবসময় একা। প্রতিটি মুহূর্ত যার এমন নিক্তিমাপা, জনসভার বক্তৃতাও যার টেলিপ্রম্পটারে তৈরি, সেই মোদিরই এমন পতন এবং প্রকাশ্যে অন্যের সাহায্য নিয়ে সামলানোর ঘটনা ‘বিরলের মধ্যে বিরলতম’, বলছে শাসক-বিরোধী দুই শিবিরই। একটি ভিডিওতে তো নেপথ্য কণ্ঠকে জোর দিয়ে বলতে শোনা যাচ্ছে, বলছি তো আমি দেখেছি, মোদিজিকে পড়ে যেতে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি যেহেতু দেশের প্রধানমন্ত্রী, তাই সরাসরি এই ঘটনা নিয়ে কোনও মন্তব্য করেনি বিরোধী শিবির। যদিও ‘#মোদিফলস’ ট্রেন্ডিং হয়েছে টুইটারে। ছড়িয়েছে রসিকতা, মিম। যারা করেছেন, তাদের কেউ কেউ বিরোধী মনোভাবাপন্ন বলেই পরিচিত।

তবে মোদির পতনের সঙ্গে সবচেয়ে বেশি তুলনা হয়েছে অর্থনীতি তথা জিএসটির। একজন মোদির ভিডিওসহ চটজলদি চুটকি বানিয়েছেন— সাংবাদিক: স্যার, দেশের অর্থনীতি কীভাবে টলমল করছে? মোদি: এইভাবে। আরেকজনের রসিকতা, জিডিপি ও প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে মিল কোথায়? দুজনেই পড়ে যান! হাল্কা

মেজাজেই অনেকে মনে করাচ্ছেন, বহুদিন পর পুরনো ঝাঁঝে দিল্লির রামলীলা ময়দানে মুখ খুলেছেন রাহুল গান্ধী। সাবেক কংগ্রেস সভাপতি আগে বলেছিলেন, তিনি সংসদে মুখ খুললে ভূমিকম্প হবে। কানপুরে শনিবার ভূমিকম্প হয়নি তো!

যদিও এমন রসিকতা পছন্দ হয়নি মোদির শিবিরের। কংগ্রেস নেতারাও বলছেন, অতি উৎসাহের বশেও এমন মস্করা ঠিক নয়। তবে এটাও ঠিক, বিজেপি তো সবসময়ই বলে, ‘পাপ্পু’ রাহুল ছাড়া এতো মজার খোরাক কোথাও নেই! কাজেই ৫৬ ইঞ্চি ছাতি এই মামুলি হোঁচটকে আমল না দিলেই হলো!

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়