logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

কয়েক ঘণ্টার বিদ্যুৎ বিভ্রাটে থমকে গেল যুক্তরাজ্য

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১০ আগস্ট ২০১৯, ১৯:৪৭
যুক্তরাজ্য, বিদ্যুৎ বিভ্রাট
ছবি: সংগৃহীত
যুক্তরাজ্যে গতকাল রাতে ভয়াবহ এক বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের ঘটনায় ভুক্তভোগী হয়েছেন প্রায় ১০ লাখ মানুষ। ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের ব্যাপক এলাকাজুড়ে কয়েক ঘণ্টার ওই বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ঘটনায় বহু ঘরবাড়ি বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। এছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয় রেল ও বিমান যোগাযোগ।

যুক্তরাজ্যের জাতীয় গ্রিড জানিয়েছে, দুটি পাওয়ার জেনারেটরে সমস্যা হওয়ার কারণে ওই বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটেছে। তবে ওই সমস্যার এখন সমাধান করা হয়েছে বলে জানিয়েছে তারা।

মিডল্যান্ডস, দক্ষিণ-পূর্ব, দক্ষিণ-পশ্চিম ও উত্তর-পূর্ব ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ঘটনা ঘটে। বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের ঘটনায় ট্রেন আসতে দেরি হওয়ায় এবং ট্রেন চলাচল বাতিল হওয়ায় কিংস ক্রস স্টেশনে আটকা পড়েন শত শত যাত্রী।

পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ ছিল যে, কোনও এলাকায় ট্র্যাফিক লাইটও কাজ করা বন্ধ করে দেয়।

পরিবহন বিভাগ জানিয়েছে, শুক্রবারের বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে পরিবহন ব্যবস্থায় ব্যাপক প্রভাব পড়ে। তারা জানায়, আমরা রেল নেটওয়ার্ক ও অন্যান্য সিস্টেম যত দ্রুত সম্ভব ঠিক করে সবার নিরাপদ যাত্রা নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছি।

ব্যস্ত সময়ে ওই বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের ঘটনায় কিংস ক্রস স্টেশনে বহু ট্রেন যাত্রা স্থগিত এবং বাতিল হয়ে যাওয়ার পর যাত্রীদের স্টেশন ছাড়তে ঘোষণা দেয় কর্তৃপক্ষ। খবরে বলা হচ্ছে, স্থানীয় সময় রাত ৯টার দিকে কিংস ক্রস স্টেশনে প্রায় এক হাজারের বেশি যাত্রীকে অপেক্ষমাণ থাকতে দেখা যায়।

অবশ্য কয়েক ঘণ্টা পর রেল চলাচল কিছুটা স্বাভাবিক হয়ে আসে। লন্ডনের কিংস ক্রস স্টেশন থেকে এডিনবার্গগামী একজন যাত্রী বিবিসি রেডিও ফাইভকে বলেন, তার গন্তব্যস্থলে পৌঁছাতে প্রায় ১৩ ঘন্টা লেগেছে। এটুকু দুরত্বে যাতায়াত করতে সাধারণত পাঁচ ঘণ্টার কম লাগে বলে জানান ওই যাত্রী।

হ্যারিয়েট জ্যাকসন নামের ২৬ বছর বয়সী একজন যাত্রী বলেন, ব্যাটারসির নর্থকোট রোডে ‘পুরোপুরি অন্ধকারচ্ছন্ন’ হয়ে গিয়েছিল। এসময় ট্র্যাফিক লাইট বন্ধ হয়ে গিয়েছিল; কিন্তু গাড়ি চলাচল বন্ধ হচ্ছিল না। নিজের অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, শুক্রবার আপনি কখনও এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে চাইবেন না।

এদিকে নিউক্যাসেল এয়ারপোর্টের যাত্রীরা জানিয়েছেন, সেখানে প্রায় ১৫ মিনিট ধরে বিদ্যুৎ ছিল না। কিন্তু হিথ্রো, গ্যাটউইক ও লুটন বিমানবন্দরের কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সেখানে বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ঘটনা ঘটেনি।

কার্ডিফের বাসিন্দা ৩১ বছর বয়সী স্কট ম্যাককেঞ্জি বলেন, নিউক্যাসেল বিমানবন্দরে ‘বিভিন্ন ধরনের অ্যালার্ম বেজে ওঠে।’ তিনি বলেন, আমরা পুরোপুরি অন্ধকারে ডুবে যাই এবং মানুষজন আশপাশের মানুষজনকে দেখার জন্য মোবাইল ফোনের টর্চ জ্বালায়।

ওয়েস্টার্ন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি জানিয়েছে, সেখানে প্রায় পাঁচ লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে; এর মধ্যে ওয়েলসের প্রায় ৪৪ হাজার ৫০০ গ্রাহক রয়েছেন। তবে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টার কিছুক্ষণ পর সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ পুনস্থাপন করা হয়।

নর্দার্ন পাওয়ারগ্রিড বলছে, তাদের প্রায় এক লাখ ১০ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছিল। আর ইলেকট্রিসিটি নর্থ ওয়েস্ট জানিয়েছে, তাদের কমপক্ষে ২৬ হাজার মানুষ বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কবলে পড়েছিল।

যুক্তরাজ্যের পাওয়ার নেটওয়ার্কসের একজন মুখপাত্র বলেন, লন্ডন ও দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ডের তিন লাখ মানুষ বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কবলে পড়েন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়