logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬

ইউরেনিয়ামের মজুদ বাড়িয়ে পরমাণু সমঝোতা লঙ্ঘন করিনি: জারিফ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ০২ জুলাই ২০১৯, ০৯:০৮ | আপডেট : ০২ জুলাই ২০১৯, ০৯:১৫
ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ
ইরানের একটি পরমাণু স্থাপনার ছবি
ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ বলেছেন, তার দেশ পাশ্চাত্যের সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা অনুসরণ করেই সমৃদ্ধ ইউরেনিয়ামের মজুদ বাড়িয়েছে। তিনি সোমবার রাতে নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেজে দেয়া এক পোস্টে এ তথ্য জানিয়েছেন।

এর আগে সোমবার বিকেলে এক বক্তব্যে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, তার দেশ সমৃদ্ধ ইউরেনিয়ামের মজুদ ৩০০ কেজির সীমা বাড়িয়েছে। এর কিছুক্ষণ পর আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা বা আইএইএ ভিয়েনায় এ কথার সত্যতা নিশ্চিত করে। এদিকে  এ তথ্য প্রকাশের পর যুক্তরাষ্ট্র ও জাতিসংঘসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

হোয়াইট হাউজ এক বিবৃতিতে ইরানকে পরমাণু সমঝোতা পুরোপুরি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউ বলছে, ইইউ ইরানকে সমৃদ্ধ ইউরেনিয়ামের পরিমাণ আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছে।

অন্যদিকে জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র বলেছেন, তার সংস্থা কূটনৈতিক অঙ্গনের গুরুত্বপূর্ণ অর্জন হিসেবে সব সময় পরমাণু সমঝোতা বাস্তবায়নের ওপর জোর দিয়ে এসেছে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র এ সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কারণে এই আন্তর্জাতিক চুক্তির বাস্তবায়ন কঠিন হয়ে পড়েছে।

এর জবাবে জারিফ তার টুইটার পোস্টে বলেন, পরমাণু সমঝোতার ৩৬ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে-এক পক্ষ এ সমঝোতা লঙ্ঘন করলে অন্য পক্ষ এতে দেয়া প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন স্থগিত রাখতে পারে।

ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর ইরান ইউরোপীয় দেশগুলোকে এ সমঝোতা বাস্তবায়নের জন্য কয়েক সপ্তাহ সময় দেয়। কিন্তু ৬০ সপ্তাহ পরও তারা তা বাস্তবায়ন না করার পর ইরান ৩৬ নম্বর ধারা মেনেই সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম মজুদের সীমা ছাড়িয়েছে।  ইউরোপীয়রা তাদের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করলে ইরানও তার মজুদের পরিমাণ ৩০০ কেজির নিচে নামিয়ে আনবে।

এ/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়