logo
  • ঢাকা রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬

ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব কঙ্গোতে ইবোলায় মৃতের সংখ্যা ১৫০০ ছাড়িয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ২৬ জুন ২০১৯, ০২:০৪ | আপডেট : ২৬ জুন ২০১৯, ০৮:২৩

আফ্রিকার দেশ ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব কঙ্গো’র (ডিআরসি) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সোমবার জানিয়েছে, দেশটিতে ইবোলা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে প্রায় দশ মাসে দেড় হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন।

ফ্রান্সের সংবাদ সংস্থা এএফপি’র বরাত দিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে ইয়াহু নিউজ। রোববার পর্যন্ত ইবোলা আক্রান্ত দুই হাজার ২৩৯ জনের মধ্যে এক হাজার ৫০৬ জন মারা গেছেন বলে জানায় মন্ত্রণালয়টি।

এই মাসের শুরুতে ডিআরসি সফর করা পার্শ্ববর্তী দেশ উগান্ডার একটি পরিবারের দুজন ইবোলায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে জানা গেছে।

দেশটির ইতুরি ও নর্থ কিভু প্রদেশের এই ভাইরাসের প্রকোপ সবচেয়ে বেশি। এই দুই প্রদেশের প্রায় এক লাখ ৪১ হাজার মানুষকে এই ভাইরাস প্রতিরোধক ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে।

এই অঞ্চলে অনেক দিনের সহিংসতা এবং সামরিক কার্যক্রমের পাশাপাশি চিকিৎসা সেবাদানকারী দলগুলোর প্রতি স্থানীয়দের শত্রুভাবাপন্ন দৃষ্টিভঙ্গির ফলে এই রোগ দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে।

সোমবার নর্থ কিভুর বেনি শহরের একদল জনতা ইবোলায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া দুজনের মরদেহ মাটি দেয়ার বিরোধিতা করে এবং একটি হেলথ টিমের গাড়ি পুড়িয়ে দেয়।

ফ্রান্সের সংবাদ সংস্থাটিকে একথা জানায় স্থানীয় পুলিশ প্রধান কর্নেল সাফারি কাজিঙ্গুফু। তিনি জানান, এই মেডিকেল টিমের এক সদস্য তাদের হামলায় আহত হলে তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়।

মে মাসে জাতিসংঘকে এই সংকট মোকাবেলার জন্য জরুরি সমন্বয়ক হতে আহ্বান করা হয়। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চলতি মাসে জানিয়েছে, এটি এখনও বৈশ্বিক হুমকিতে পরিণত হয়নি।

এর আগে ২০১৪ থেকে ২০১৬ সালে লাইবেরিয়া, গিনি ও সিয়েরা লিওনে মহামারীর মতো ছড়িয়ে পড়ে ইবোলা। এর ফলে এসব দেশের প্রায় ১১ হাজার ৩০০ মানুষ মারা যান।

কোনও সংক্রমিত পশুর রক্ত বা শরীর রসের সংস্পর্শ থেকে এই ভাইরাসের সংক্রমণ হতে পারে। বিশ্বাস করা হয়, বাদুড় নিজে আক্রান্ত না হয়ে এই রোগ বহন করে ও ছড়ায়।

মানব শরীরে একবার সংক্রমিত হলে মানুষের মধ্যে এই রোগ ছড়িয়ে পড়তে পারে। জীবিত পুরুষের বীর্যের মাধ্যমে এই রোগ প্রায় দুই মাস পর্যন্ত পরিবাহিত হতে সক্ষম।

কে/জিএ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়