• ঢাকা রবিবার, ১৯ মে ২০১৯, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

প্রার্থনা শেষে বাড়ি ফিরেছে থাই খুদে ফুটবলাররা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৪ আগস্ট ২০১৮, ২৩:২৫
থাইল্যান্ডের গুহায় আটকে পড়েছিলেন ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচ। পরে তাদের সবাইকে উদ্ধার করা হয়। একজন ছাড়া ক্ষুদে ফুটবলার ও তাদের কোচ ঐতিহ্য অনুযায়ী বৌদ্ধভিক্ষুর জীবন অতিবাহিত করার পর ঘরে ফিরেছে। দেশটির থাম লুয়াং গুহা থেকে উদ্ধারের পর চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী সাধনায় যায় ১১ জন বালক ও তাদের কোচ। খবর বিবিসি।

৯ দিনের সাধনা শেষে থাই শিশুরা ঘরে ফিরলেও তাদের ২৫ বছর বয়সী কোচকে দীর্ঘ ৩ মাস যাবত ভিক্ষুর জীবন কাটাতে বলেছে ধর্মগুরুরা। শনিবার থাই ফুটবল দলের এই ১১ সদস্যকে মে সাই প্রদেশের মন্দির থেকে বের হতে দেখা যায়।

থাইল্যান্ডে কোনও বিপদ থেকে উদ্ধারের পর পুরুষদের সাধনা করার নিয়ম আছে। ভিক্ষু হয়ে সাধনার এই অভিজ্ঞতা শিশুদের আত্মিক শুদ্ধতা দেবে এবং তাদের উদ্ধার করে গিয়ে নিহত হওয়া থাই নেভি সিলের সাবেক ডুবুরি সামান কুনানের প্রতি প্রতিশ্রুতি রক্ষা করবে। সাধনার পুরোটা সময় জুড়ে এই শিশুরা ধ্যান, প্রার্থনা এবং মন্দির পরিষ্কার করে। মন্দির ছাড়ার আগে ধর্মগুরুর কাছ থেকে আশীর্বাদ নেয় তারা।

গত নয়দিন ধরে থাইল্যান্ডের এই খুদেরা আশ্রমে প্রার্থনা করাসহ পরিষ্কারের কাজ করেছে। থাইল্যান্ডে মনে করা হয় সৌভাগ্যের নম্বর সংখ্যা ৯। সে কারণে নয়দিন ধরে তারা আশ্রমে থেকেছে।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের সঙ্গে সীমান্তের কাছে ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ থাম লুয়াং গুহা থাইল্যান্ডের দীর্ঘতম গুহা। কম চওড়া আর অনেক প্রকোষ্ঠ থাকায় গুহার ভেতরে চলাচল করা কঠিন। ওই গুহায় ঢোকার পর গত ২৩ জুন নিখোঁজ হয় ১২ খুদে ফুটবলার ও তাদের কোচ। খুদে ফুটবলারদের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। আর তাদের সহকারী কোচ এক্কাপোল জানথাওংয়ের বয়স ২৫ বছর। তারা মু পা নামের একটি ফুটবলদলের সদস্য।

এপি/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়