• ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
logo

জাতিসংঘে ফিলিস্তিনের সদস্যপদ আটকে দিল যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি নিউজ

  ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২৮
ছবি : আল জাজিরা

জাতিসংঘে ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের পূর্ণ সদস্যপদ লাভের পথ প্রশস্ত করতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে (ইউএনএসসি) বহুল সমর্থিত একটি প্রস্তাবে ভেটো দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) নিউইয়র্কে নিরাপত্তা পরিষদের এক ঘণ্টাব্যাপী অধিবেশনে ১২টি দেশ প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয় এবং অন্য দুটি দেশ ব্রিটেন ও সুইজারল্যান্ড ভোটদানে বিরত থাকে। খবর আল জাজিরার

প্রস্তাবে ভেটো দেওয়ার পর জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন উপ-দূত রবার্ট উড বলেছেন, ওয়াশিংটন বিশ্বাস করে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে আলোচনা ছাড়া ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আর কোনো পথ নেই।

উড বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে পরিষ্কার করে আসছি যে, নিউইয়র্কে অকাল পদক্ষেপ নেওয়া, এমনকি সর্বোত্তম উদ্দেশ্য নিয়েও, ফিলিস্তিনি জনগণের জন্য রাষ্ট্রের মর্যাদা অর্জন করবে না।

ইসরায়েলের ঘনিষ্ঠ মিত্র যুক্তরাষ্ট্র নিরাপত্তা পরিষদে ভেটো ক্ষমতার অধিকারী এবং এটি পাসের বিরোধিতা করায় প্রস্তাবটি ব্যর্থ হবে বলে ব্যাপকভাবে ধারণা করা হচ্ছিল।

গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের বোমাবর্ষণের ছয় মাসেরও বেশি সময় পরে এই ভোট অনুষ্ঠিত হয়, ইসরায়েল ৩৩ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে এবং গাজাকে মানবিক বিপর্যয়ের মধ্যে নিমজ্জিত করেছে।

আল জাজিরার জ্যেষ্ঠ রাজনৈতিক বিশ্লেষক মারওয়ান বিশারা বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের ভেটো এটাই প্রমাণ করে যে, ফিলিস্তিনিদের ব্যাপারে ওয়াশিংটনের ‌‘মাই ওয়ে অর দ্য হাইওয়ে’ নীতি রয়েছে।

বিশারা বলেন, ফিলিস্তিন কেবল তখনই একটি দেশ হতে পারে যেভাবে যুক্তরাষ্ট্র এটিকে দেখে বা ইসরায়েল এটিকে দেখে, কেবল তখনই যখন এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভূ-রাজনীতি এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বৈশ্বিক স্বার্থের মধ্যে উপযুক্ত।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইলের অহংকারী ও সংকীর্ণ স্বার্থের জন্য ফিলিস্তিনি জনগণের স্বাধীনতা বিসর্জন দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

ফিলিস্তিন রাষ্ট্র বর্তমানে জাতিসংঘের পর্যবেক্ষক নয়। কিন্তু জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্য হওয়ার জন্য একটি আবেদনপত্র নিরাপত্তা পরিষদ এবং পরে সাধারণ পরিষদের কমপক্ষে দুই-তৃতীয়াংশের অনুমোদন নিতে হয়।

বৃহস্পতিবার বিকেলে ভোটাভুটির আগে ফিলিস্তিন বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি জিয়াদ আবু আমর সমর্থনের আবেদন জানান।

আবু আমর পরিষদকে বলেন, আমরা এখনও বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো একটি স্বাধীন রাষ্ট্রে স্বাধীনতা, নিরাপত্তা ও শান্তিতে বসবাসের অধিকার অনুশীলন করতে চাই।

তিনি বলেন, ফিলিস্তিনিরা এই লক্ষ্য অর্জনে মহান ত্যাগ স্বীকার করেছে এবং অব্যাহত রেখেছে।

আবু আমর এই দাবিও প্রত্যাখ্যান করেছেন যে এই প্রস্তাবটি রাজনৈতিক আলোচনা এবং শান্তির সম্ভাবনাকে বিপন্ন করবে। তিনি বলেন, যারা বলেন যে ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিতে হবে আলোচনার মাধ্যমে, জাতিসংঘের প্রস্তাবের মাধ্যমে নয়, তাদের আমরা বলি: ইসরায়েল রাষ্ট্র কীভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল? সেটা কি জাতিসংঘের রেজুলেশনের মাধ্যমে হয়নি, যা ছিল রেজুলেশন ১৮১?

এই প্রস্তাব আলোচনা ও অমীমাংসিত সমস্যা সমাধানের বিকল্প হবে না। এই আশা বিলীন হয়ে যাওয়ার পর এটি ফিলিস্তিনিদের একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের আশা জোগাবে।

আমরা আশা করি, আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা অর্জনে কাজ করে যাওয়া আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অবিচ্ছেদ্য অংশ হওয়ার সুযোগ আপনি আমাদের দেবেন।

জাতিসংঘে নিযুক্ত ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূত গিলাদ এরদান নিরাপত্তা পরিষদে দেওয়া ভাষণে সংস্থাটিকে রাজনীতিকরণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন। তিনি এই প্রস্তাবকে ৭ অক্টোবর গাজা নিয়ন্ত্রণকারী ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী হামাসের হামলায় জড়িত ‘সন্ত্রাসীদের পুরস্কার’ হিসেবেও বর্ণনা করেন।

মন্তব্য করুন

daraz
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
যে কারণে ১২ দেশে নিষিদ্ধ টিকটক
মার্কিন নিষেধাজ্ঞার প্রতিক্রিয়ায় যা বললেন সাবেক সেনাপ্রধান 
ভিসানী‌তির অধীনে আজিজকে নিষেধাজ্ঞা দেয়নি যুক্তরাষ্ট্র: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
সাবেক সেনাপ্রধানের ওপর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
X
Fresh