• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
logo

ছবিতে ডিজিটাল কেরামতি দেখিয়ে আবার শিরোনামে ব্রিটিশ রাজপরিবার

ডয়েচে ভেলে

  ২২ মার্চ ২০২৪, ১৫:২০
রাজপরিবার
সংগৃহীত

কেট মিডলটনের ছবির পর এবার নাতি-নাতনি সমেত রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের ছবিকে ঘিরে বিতর্ক৷ এবারও অভিযোগ ডিজিটাল কারসাজিতে ছবির মানোন্নয়নের৷

বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানায়, যুক্তরাজ্যের যুবরাজ উইলিয়াম ও তার স্ত্রী কেট মিডলটনের কার্যালয় কেনসিংটন প্যালেস আরো একটি ছবি সংবাদমাধ্যমকে দেন৷ কিন্তু রয়টার্সের নিজস্ব ফটো এডিটরদের মতে, রাজপরিবারের এই ছবিটিও সম্প্রতি প্রকাশ হওয়া কেট মিডলটনের ছবির মতোই পরিবর্তিত ও সেকারণে বিশ্বাসযোগ্যও নয়৷

গত বছরের এপ্রিল মাসে তৎকালীন রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের ৯৭তম জন্মদিন উপলক্ষে এই ছবিটি প্রকাশ করা হয়৷ ছবিতে প্রয়াত রানীকে দেখা যাচ্ছিল তার নাতি-নাতনিসহ পরিবারের আরো শিশুদের সাথে৷ সেই সময় কেনসিংটন প্যালেস জানিয়েছিল, ছবিটি তুলেছেন কেট নিজে, স্কটল্যান্ডে রাজপরিবারের বাসস্থান বালমোরাল কাসলে৷

মঙ্গলবার ছবি বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা গেটি ইমেজেস তার গ্রাহকদের জানায়, বালমোরালের এই ছবিটিকে ডিজিটাল প্রযুক্তির সাহায্যে উন্নত করা হয়েছে৷ কিন্তু এই উন্নতি কেমন বা কতটুকু, সে বিষয়ে কোনো বাড়তি তথ্য দেননি তারা৷

গেটি ইমেজেসের এক মুখপাত্র বলেন, গেটি ইমেজেস তার সরবরাহ করা ছবি যাচাই করছে৷ এছাড়া, আমাদের সম্পাদকীয় নীতি অনুযায়ী যে যে ছবি এভাবে ডিজিটাল কায়দায় পরিবর্তিত, সেই পরিবর্তনের তথ্য ছবির সাথে সম্পাদকীয় টীকা হিসাবে লেখা থাকবে৷ যে সময় এই ছবিটি প্রকাশিত হয়, তখন রয়টার্স বা গেটি ইমেজেস কেউই ধরতে পারেনি যে ছবিটি পরিবর্তিত৷

পরে রয়টার্সের ফটো এডিটরদের দল জানায়, তারা ছবিটির এমন আটটি অংশকে চিহ্নিত করেছেন, যা তাদের মতে ডিজিটাল কেরামতির প্রমাণ৷ কিন্তু এমন পরিবর্তন কেন করা হয়েছে, তা জানেন না রয়টার্সের কর্মীরা৷ কেনসিংটন প্যালেসের তরফে এখনও এ বিষয়ে কোনো বিবৃতি আসেনি৷

রয়টার্সের এক মুখপাত্র বলেন, কেনসিংটন প্যালেসের তরফে দ্বিতীয় ছবিতেও পরিবর্তন দেখার পর আমরা ছবি যাচাইয়ের মানগুলির পুনর্বিবেচনা করছি৷ টমসন রয়টার্স ট্রাস্টের নীতিমালা অনুযায়ী, রয়টার্স প্রকাশিত সকল ছবিকে একটি নির্দিষ্ট মান, সত্যতা ও নির্ভরযোগ্যতার মাপকাঠিতে উত্তীর্ণ হতে হয়৷

পরিবর্তিত ছবি ও কেট মিডলটন চলতি মাসের শুরুতে ব্রিটিশ মাদার্স ডে উপলক্ষে কেনসিংটন প্যালেসের দেওয়া কেট মিডলটন ও তার পরিবারের একটি ছবি সরিয়ে নেওয়া হয় বেশ কিছু পত্রপত্রিকা ও সংবাদসংস্থা থেকে৷ তখনও ডিজিটাল পরিবর্তনের অভিযোগ উঠেছিল৷ পরের দিন কেট ক্ষমা চেয়ে একটি বিবৃতি দেয়া হয়৷ সেখানে বলা হয়, অন্যান্য অপেশাদার চিত্রগ্রাহকদের মতো আমিও মাঝে মাঝে এডিটিং নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাই৷ গতকাল আমাদের ছবি প্রকাশিত হবার পর যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে, তার জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী৷

জানুয়ারি মাসে একটি অস্ত্রোপচারের মধ্য দিয়ে গেছেন কেট মিডলটন৷ তারপর থেকেই সোশাল মিডিয়ায় তাকে নিয়ে চলছে নানা ধরনের জল্পনা-আলোচনা৷

মন্তব্য করুন

daraz
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে না’
নগদ ডিজিটাল ব্যাংক নারী উদ্যোক্তাদের বিশেষ ঋণ সহায়তা দেবে: পলক
নায়ক ফারুক চলে যাওয়ার এক বছর আজ
ধর্ম নিয়ে কটূক্তি : শর্ত মানলে কারাভোগ করতে হবে না তিথির
X
Fresh