Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ৫ আষাঢ় ১৪২৮

সৌদির ভিশন ২০৩০-র গুরুত্বপূর্ণ অংশ হবে বিনোদন খাত

Saudi entertainment, amusement sector to be worth $1.17 billion by 2030
সংগৃহীত

সৌদি আরবের কার্যত নেতা ও যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান দেশটিতে নতুন যুগের সূচনা করতে চাইছেন। তাই আমূলে বদলে ফেলছেন সৌদি আরবকেও। এজন্য তেলনির্ভর অর্থনীতি থেকে বের হতে চাইছেন তিনি। এরই অংশ হিসেবে নারী স্বাধীনতাসহ বিনোদন খাতেও ব্যাপক উদার পদক্ষেপ নিয়েছে সৌদি কর্তৃপক্ষ। খবর আরব নিউজের।

আর তারই সুফল পেতে যাচ্ছে সৌদি আরব। আগামী ১০ বছরে ফুলে ফেঁপে উঠবে দেশটির বিনোদন খাত। ২০২০ সালে এই খাতের পরিধি ছিল ২৩.৭৭ মিলিয়ন ডলার। অথচ ২০৩০ সাল নাগাদ এই খাতের পরিধি হবে ১১৭ কোটি ডলার। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক এক মার্কেট জরিপে নতুন এই তথ্য উঠে এসেছে। সেখানে বলা হয়েছে, প্রতি বছর এই খাতে ৪৭.৬৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হবে।

আরও পড়ুন...ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী বলেই তাদের ট্রাকচাপায় হত্যা করা হয়

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌদি আরবের বিনোদন খাত ব্যাপকভাবে বাড়ছে। সৌদি আরব একটি অনন্য এবং বিশ্বমানের বিনোদন কেন্দ্র তৈরিতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে যাতে অভিনব রাইডস, সাংস্কৃতিক বা ঐতিহাসিক আকর্ষণ এবং মেগা ক্রীড়া ইভেন্টও রয়েছে।

এই পরিবর্তনের পেছনে সরকার একটি গুরুত্ব ভূমিকা পালন করেছে। এ লক্ষ্যে ২০১৬ সালে জেনারেল অথরিটি ফর এন্টারটেইনমেন্ট (জিএই) প্রতিষ্ঠা করেছে সৌদি সরকার। সৌদির বৃহত্তম বিনোদন প্রজেক্ট হলো কিদ্দিয়া প্রকল্প। ২০১৭ সালে এই প্রজেক্ট ঘোষণা করা হয়। রাজধানী রিয়াদ থেকে কিদ্দিয়া যেতে গাড়িতে ৪০ মিনিট লাগে। ২০১৮ সালের এপ্রিলে এখানে কাজ শুরু হয়।

এই শহরের ৩৬৬ বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে একটি ফর্মুলা ওয়ান রেসিং ট্র্যাক, একটি সিক্স ফ্ল্যাগের থিম পার্ক, একটি ওয়াটার পার্ক, ফুটবল স্টেডিয়ামসহ স্পোর্টস ফ্যাসিলিটিস এবং তরুণ সৌদি অ্যাথলিটদের উন্নয়নের জন্য অবকাঠামো এবং ব্যাপক পরিসরে সাংস্কৃতিক, সৃজনশীল এবং শৈল্পিক কার্যকলাপের ব্যবস্থা থাকবে।

একই বছরের জানুয়ারিতে ফ্যালকন ফ্লাইটের নকশার কাজ শুরু হয়। এই থিম পার্কে রেকর্ড-ব্রেকিং রোলার কোস্টারটি হবে মূল আকর্ষণ, যা ২০২৩ সালে চালু হওয়ার কথা এবং এখানে ২৮টি রাইড এবং বিভিন্ন আকর্ষণ থাকবে।

ফেব্রুয়ারি মাসে গলফ কিংবদন্তি জ্যাক নিক্লস জানান যে, তিনি তিনি কিদ্দিয়ায় একটি গলফ কোর্সের ডিজাইন করছে। এটাই হবে সৌদি আরবে তার প্রথম গলফ ডিজাইন প্রজেক্ট। কিদ্দিয়ার সিইও ফিলিপ গ্যাস বলেন, কিদ্দিয়া একটি গিগা-প্রকল্প, যা সৌদির ভিশন ২০৩০ থেকে এসেছে। এটা বিনোদন, খেলাধুলা এবং শিল্পের রাজধানীতে পরিণত হবে।

সৌদি সরকারের ভিশন ২০৩০-র একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে বিনোদন। সেক্ষেত্রে আগামী ১০ বছরের মধ্যে এই খাতে সৌদিদের ব্যয় আরও বাড়ানোর লক্ষ্য নিয়েছে সৌদি সরকার। তাদের টার্গেট অনুযায়ী এই খাতে সৌদিদের ব্যয় ২.৯ শতাংশ থেকে ৬ শতাংশে বাড়ানোর লক্ষ্য রয়েছে কর্তৃপক্ষের।

এরই অংশ হিসেবে ২০১৮ সালের এপ্রিলে সিনেমার ওপর থেকে ৩৫ বছর পর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় সৌদি আরব। এর ফলে বিশ্বের বেশ কিছু সিনেমা অপারেট সৌদি আরবে তাদের ব্যবসা খোলে। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে বিশ্বের অন্যতম বড় সিনেমা প্রদর্শনী কোম্পানি এএমসি এন্টারটেইনমেন্ট হোল্ডিংস সৌদি আরবে ছয়টি সিনেমা থিয়েটার খোলে। ২০২৪ সাল নাগাদ ৫০টি লোকেশনে থিয়েটার খুলবে তারা।

এছাড়া সৌদি এন্টারটেইনমেন্ট ভেঞ্চার্সের সঙ্গে মিলে সৌদি সিনেমা কো. প্রতিষ্ঠা করেছে এএমসি। বিনোদন সেক্টরের একটি হাত হওয়ার জন্য এই প্রতিষ্ঠাটি সরকারি অর্থায়নে পরিচালিত হবে। এছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাত ভিত্তিক চেইন ভক্স সিনেমা সৌদি আরবে ২০২৩ সাল নাগাদ ৬০০ স্ক্রিন তৈরি করবে।

RTV Drama
RTVPLUS