logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২১, ১৪ মাঘ ১৪২৭

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি নিউজ

  ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ২১:৩৬
আপডেট : ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ২১:৫৯

বিশ্বে আধুনিক দাসের সংখ্যা ৪ কোটি

সংগৃহীত
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির চরম উৎকর্ষের যুগেও চার কোটি মানুষ আধুনিক দাস হিসেবে জীবন যাপন করছে। এমনই চমকপ্রদ তথ্য জানিয়েছে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা। যে সব দেশে এ পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ সেখানে আগের চেয়ে কোনো ধরনের উন্নতি পায়নি সংস্থাটি। খবর দ্যা সাবাহের।

আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী, আধুনিক দাস হিসেবে ধরা হয় জোরপূর্বক শ্রম, জোরপূর্বক বিবাহ ও মানব পাচারকে। আর এসবের শিকার কেউ যখন হুমকি, সন্ত্রাস কিংবা পেশিশক্তির কারণে খারাপ অবস্থা থেকে মুক্ত হতে না পারে জাতিসংঘের নিয়ম মোতাবেক তাকে আধুনিক দাস হিসেবে ধরা হয়। 

আইএলও’র হিসেবে আধুনিক দাসত্ব প্রথা হতে সুবিধাভোগীরা বছরে ১৫০ বিলিয়ন ডলার অবৈধ উপার্জন করে থাকে। 

সংস্থাটি আরো জানায়, বিশ্বে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা ১৫ কোটি। যা বিশ্বে প্রতি ১০ শিশুর একজন। বছরে ১০ লাখ শিশু জোরপূর্বক মানব পাচার ও যৌন হয়রানির শিকার হয়।

সংস্থাটি জানায়, বিশ্বে আধুনিক দাসের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি দক্ষিণ কোরিয়া এবং ইরিত্রিয়ায়। অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক সংগঠন ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশনের হিসেবে, লিবিয়া, ইরান, বুরুন্ডি, কঙ্গো, রাশিয়া এবং সোমালিয়া দাসত্ব নির্মূলে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। তবে কাতার, সিঙ্গাপুর, ব্রুনাই ও হংকংয়ের মতো সমৃদ্ধশালী দেশে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলেও জানায় ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশন।

এদিকে, আধুনিক দাস ব্যবস্থা নিয়ে সচেতনতা তৈরিতে প্রতি বছর ২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় দাসত্ব নির্মূল দিবস। মানব পাচার বন্ধ, যৌন হয়রানি রোধ এবং শিশুশ্রম ও জোরপূর্বক বিবাহ বন্ধের বিষয়ে দিনটিতে সচেতনতা তৈরি কার্যক্রম পরিচালনা করে জাতিসংঘ।

২০৩০ সালের মধ্যে আধুনিক দাসত্ব বন্ধের লক্ষ্য নিয়ে ৫ বছর আগে দিবসটি পালন শুরু হয়। কিন্তু সাম্প্রতিক রিপোর্ট বলছে, উক্ত সময়ের মধ্যে এ লক্ষ্য অর্জন কোনো মতেই সম্ভব নয়।

আরও পড়ুন...

ঈশ্বরের বার্তায় সন্তানকে জঙ্গলে পাঠান মা, এখন সে ঘাস খায়

এমএস 

RTV Drama
RTVPLUS