logo
  • ঢাকা সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

 ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে অ্যারাবিয়ান মিউজিকের নতুন যাত্রা

ইউটিউবসহ বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ব্যাপকভাবে পাইরেসির শিকার অ্যারাবিয়ান মিউজিকের নতুন লক্ষ্য ডিজটাল মাধ্যমে নতুনভাবে বাণিজ্য। ইউরোপ ও আমেরিকায় সাফল্যের পর মিউজিক জগতের বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্ম মধ্যপ্রাচ্য এবং উত্তর আফ্রিকার দেশগুলোতে নতুন বিনিয়োগ নিয়ে মাঠে নামছে। 

রাজনৈতিক সংঘাতপূর্ণ ও অর্থনৈতিকভাবে অস্থিতিশীল মধ্যপ্রাচ্যে এখন ব্যবসার নতুন ক্ষেত্র চালু করতে চায় লাইভ স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম ‘স্পোটিফাই’। তবে প্রতিষ্ঠানটি বিশ্বব্যাপী পেইড ডিজিটাল সার্ভিস নিয়ে ব্যবসায় অনেকখানি ব্যর্থ হয়েছে। 

স্পোটিফাইয়ের মধ্যপ্রাচ্য ব্যবস্থাপক ক্লাউডিয়াস বোলার বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, স্থানীয় শিল্পী ও দল নিয়ে আমরা কাজ শুরু করতে যাচ্ছি। 

ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব ফোনোগ্রাফিক ইন্ডাস্ট্রিজের তথ্য বলছে, লাইভ স্ট্রিমিং থেকে ২০১৯ সালে বিশ্বব্যাপী ১১ দশমিক চার বিলিয়ন ডলার রাজস্ব আয় হয়েছে। 

১৯৯০ সাল থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত আরব পপ মিউজিকে ভালো সময় কাটলেও গত এক দশকে আরব বসন্তের কারণে সেই অবস্থানে কিছুটা ছেদ পড়েছে। কিন্তু স্পোটিফাই বলছে, তারা অঞ্চল ভিত্তিক মেধাবীদের সুযোগ দিয়ে সে অবস্থার পরিবর্তন আনতে চান। 

বর্তমান সময়ে অ্যারাবিয়ান মিউজিক এবং এর শিল্পীরা বিশ্বব্যাপী নিজেদের প্রতিভার জানান দিচ্ছেন। এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের টাইমস স্কয়ারে মিশরীয় র‌্যাপার রমদানের বিলবোর্ড শোভা পাচ্ছে। 

আন্তর্জাতিক হিপহপ মিউজিক আরবে খুবই জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। আর এসবের বেশিরভাগ শিল্পীই এখন কুয়েত, মিশর ও মরক্কোর। ক্লাউডিয়াস বোলার বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে সুইডেনের মিউজিক স্ট্রিমিং প্রতিষ্ঠান স্পোটিফাইয়ের অগ্রগতি অসাধারণ। 

ফরাসি স্ট্রিমিং সার্ভিস ‘ডিজার’ ২০১৮ সালে সৌদি প্রিন্স আল ওয়ালিদ বিন তালালের মালিকানাধীন আরবের সবচেয়ে বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ‘রোতানার’ সাথে বিশেষ চুক্তি সম্পাদন করে। রোতানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালিম আল হেন্দি আশা জানিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, অবশ্যই দুই বছরের মধ্যে আরবের মিউজিক ইন্ডাস্ট্রি থেকে পর্যাপ্ত আয় হবে। 

লেবাননের জনপ্রিয় মিউজিক স্ট্রিমিং সার্ভিস আনঘামি বলছে, সঙ্গীতের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ও শিল্পীদের নতুন প্রযুক্তিকে বিশেষ করে পেইড প্ল্যাটফর্মকে স্বাগত জানাতে হবে। কারণ, এখনো বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠান ও শিল্পী ইউটিউবে ফ্রি পদ্ধতিতে গান প্রকাশ করছে। তবে অর্থ পরিশোধকারী এবং ফ্রি শ্রোতাদের মধ্যে মৌলিক পার্থক্য রয়েছে বলে মনে করেন আনঘামির প্রধান অরুন সাজ্জান। 

তবে পেইড সার্ভিস চালু রাখতে আনঘামিকে এখনো মোবাইল অপারেটর কোম্পানীগুলোর সাহায্য নিতে হয়। কারণ, সাধারণ মানুষ ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে অর্থ পরিশোধ করে গান শুনতে অভ্যস্ত নয়।

সূত্র- আল জাজিরা।


এমএস

RTVPLUS