logo
  • ঢাকা রোববার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

মার্কিন ভোটারদের তথ্য আছে ইরান-রাশিয়ার হাতে: এফবিআই

FBI says Iran and Russia have US voter information
বিবিসি থেকে নেয়া
যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা কর্মকর্তারা বলেছেন, ডেমোক্রেটিক ভোটার কাছে হুমকিমূলক ইমেইল পাঠানোর পেছনে ইরানের হাত রয়েছে। নির্বাচনের প্রায় দুই সপ্তাহ আগে এক ব্রিফিংয়ে এ কথা জানিয়েছে ন্যাশনাল ইন্টিলিজেন্স।

মার্কিন এই গোয়েন্দা সংস্থার পরিচালক জন র‌্যাটক্লিফ বলেছেন, দেখে মনে হয়েছে যে- ট্রাম্পপন্থী চরম ডানপন্থী একটি গ্রুপ এসব ইমেইল পাঠিয়েছে। ‘অস্থিরতা উস্কানি’ দিতে এসব ইমেইল পাঠানো হয়।

র‌্যাটক্লিফ বলেছেন, ইরান ও রাশিয়া কিছু ‘ভোটারের নিবন্ধন তথ্য’ পেয়েছে বলে জানতে পেরেছে মার্কিন কর্মকর্তারা।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র ১৩ দিন আগে এ ধরনের তথ্য প্রকাশ করলো ন্যাশনাল ইন্টিলিজেন্স। নির্বাচনের এত কাছাকাছি এ ধরনের ব্রিফ সাধারণত দেখা যায় না।

এর মধ্য দিয়ে মার্কিন সরকারের আশঙ্কা অনেকটাই প্রতিষ্ঠা পাবে বলে মনে করা হচ্ছে। মার্কিন সরকার বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশটির নির্বাচনে ইরান, রাশিয়া ও চীনের হস্তক্ষেপের ব্যাপারে বরাবরই অভিযোগ করে এসেছেন।

র‌্যাটক্লিফ বলেছেন, ‘ভোটারদের ভয় প্রদর্শন, অস্থিরতা উস্কানি এবং প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ক্ষতিগ্রস্ত’ করতে প্রাউড বয়েজ-র নামে ইরান থেকে এসব ইমেইল পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নিবন্ধিত ভোটারদের কাছে মিথ্যা তথ্য পৌঁছে দেয়ার জন্য ভোটার ডাটা ব্যবহার করে তারা বিভ্রান্তির বীজ বপন এবং আমেরিকার গণতন্ত্রের প্রতি আস্থা কমানোর চেষ্টা করতে পারে।

র‌্যাটক্লিফ বলেন, রাশিয়া থেকে একই ধরনের কর্মকাণ্ড দেখা যায়নি। তবে তাদের কাছেও ভোটারদের তথ্য রয়েছে বলে জানান তিনি।

এর আগে ২০১৬ সালে রাশিয়ার বিরুদ্ধে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগ ওঠে। তবে দেশটি এই অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে আসছে। তখন ডেমোক্রেটিক পার্টির কম্পিউটার সিস্টেম হ্যাক করা হয়েছিল।

RTVPLUS