logo
  • ঢাকা সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

মসজিদ পুড়িয়ে দেয়ারও পরিকল্পনা ছিল ট্যারেন্টের (ভিডিও)

নিউজিল্যান্ডে দুটি মসজিদে হামলা চালিয়ে ৫১ জনকে হত্যাকারী অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারেন্টের বিরুদ্ধে সাজার শুনানি শুরু হয়েছে। চারদিন ধরে চলবে এই শুনানি।

এসময় হামলার শিকার হওয়ার ব্যক্তিরা সাক্ষ্য দেবেন। ২০১৯ সালে দুটি মসজিদে হামলা চালান ট্যারেন্ট। এদিন তৃতীয় মসজিদেও হামলার পরিকল্পনা ছিল তার।

এমনকি হামলা চালিয়ে এসব মসজিদ পুড়িয়ে দেয়ারও পরিকল্পনা ছিল ট্যারেন্টে। যাতে ‘যত বেশি সম্ভব মানুষের মৃত্যু’ হয় তা নিশ্চিত করা যায়।

২৯ বছর বয়সী এই অস্ট্রেলিয়ানের বিরুদ্ধে ৫১ জনকে হত্যা, ৪০ জনকে হত্যার চেষ্টা এবং সন্ত্রাসবাদের একটি অভিযোগ আনা হয়েছে।

ট্যারেন্টকে আদালত যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হতে পারে। তবে এসময় তিনি সম্ভবত প্যারোলেও মুক্ত হতে পারবেন না। এর আগে নিউজিল্যান্ডে এ ধরনের কোনও সাজা দেয়া হয়নি।

গত বছরের ১৫ মার্চ ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে হামলা চালিয়ে তা অনলাইনে লাইভ করেন ট্যারেন্ট।

প্রথমে তিনি আল নূর মসজিদে যান, সেখানে শুক্রবারের নামাজের জন্য জমায়েত হওয়া মুসল্লিদের ওপর বন্দুক দিয়ে হামলা চালান। পরে তিনি পাঁচ কিলোমিটার দূরবর্তী লিনউড মসজিদে গিয়েও হামলা চালিয়ে মুসল্লিদের হত্যা করেন।

নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে ভয়াবহতম এই হামলার পর বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড় ওঠে। এরপর তড়িঘড়ি করে বন্দুক আইনে পরিবর্তন আনে নিউজিল্যান্ড।

আরও পড়ুন 

RTVPLUS