• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১
logo

মঞ্চে বেসুরো গলায় গান, ট্রলের শিকার ফারিণ

বিনোদন ডেস্ক, আরটিভি

  ১০ জুন ২০২৪, ১৬:৫৩
সংগৃহীত
ছবি : সংগৃহীত

ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। সাবলীল অভিনয় দিয়ে অল্প সময়েই হয়েছেন দর্শকপ্রিয়। নিয়মিত নাটকে কাজ করছেন তিনি। একাধিক ওয়েব ফিল্মেও তাকে দেখা গেছে। কাজ করেছেন কলকাতার সিনেমায়। অভিনয়ের পাশাপাশি গেল ঈদে গায়িকা হিসেবে অভিষেক হয় তার। দেশের জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’তে তাহসানের সঙ্গে ফারিণের গাওয়া ‘রঙে রঙে রঙিন হব’ গানটি প্রচারের পর বেশ আলোচিত হয়। এরপর যেখানেই গেছেন, এই গানের জন্য প্রশংসা কুড়িয়েছেন ফারিণ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গানটি ট্রেন্ডিংয়ে ছিল দিনের পর দিন। রেকর্ড পরিমাণ ভিউ হয় গানের ভিডিও।

এতকিছুর মাঝেই হুট করেই ঘটে গেল এক বিপত্তি। লন্ডনে একটু অনুষ্ঠানে মঞ্চে গানটি গাইতে গিয়ে যেন খেই হারালেন ফারিণ। যেই গান প্রচারের পর আলোচনায় এসেছিলেন, মঞ্চে সেই গান বেসুরো গলায় গাওয়ার কারণে সমালোচনার মুখে পড়লেন। রীতিমতো ট্রলের শিকার হচ্ছেন। সম্প্রতি লন্ডনের মাইল অ্যান্ড স্টেডিয়াম মঞ্চে গান গেয়েছেন তিনি

লন্ডনের মঞ্চে তাসনিয়া ফারিণের গাওয়া ‘রঙে রঙে রঙিন হব’ গানটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নানাজন নানাভাবে পোস্ট করেছেন। লিখছেন নিজেদের মতামতও।

মোকতার আহমেদ নামের একজন লিখেছেন, পেশাদার গায়িকা না হয়ে গানের দাওয়াতে না যাওয়া ভালো। যে হারে গানের দাওয়াত গ্রহণ করা শুরু করেছে পেশাদার গায়িকারাও এভাবে করে না। নিজের ক্যারিয়ারের ঝুড়িতে হাজার হাজার গান পড়ে আছে, এমন গায়িকারাও দাওয়াতে যেতে দুবার ভাবেন। আর এই নতুন শিল্পী একটা গান গেয়ে ভাইরাল হয়ে এভাবে যাওয়া ঠিক হচ্ছে না। নিজের ঝুলিতে আরও কিছু ভালো গান জমা পড়ুক, আস্তে ধীরে তারপরে যাওয়াটা উচিত ছিল—তাহলেই ট্রলের শিকার হতে হতো না।’ কেউ কেউ বলছেন, ‘ইত্যাদি’তে প্রচারিত ফারিণের গাওয়া গানটিতে অতিমাত্রায় অটো টিউন ব্যবহার করা হয়েছে।

সমালোচনার পাশাপাশি অনেকেই আবার পক্ষ নিয়েছেন ফারিণের। তিনি জাত অভিনয়শিল্পী শখের বশে একটা গান করেছেন, এটা নিয়ে এতটা সমালোচনা করার কিছু নেই মনে করছেন মনজুর বিন সুলতান নামের একজন।

তিনি লিখেছেন, ফারিণ জাত অভিনেত্রী, কণ্ঠশিল্পী নন! শখের বশে একটা গান করেছেন ‘ইত্যাদি’র মতো প্ল্যাটফর্ম এবং ২ বা ৪ মিলিয়ন সাবস্ক্রাইবারের ইউটিউব চ্যানেল এবং তাহসান ও ফারিণের জনপ্রিয়তার কারণে গানটা দ্রুত ভাইরাল হয়েছে। এমনিতে কোনো কিছু ভাইরাল হয় না, ভাইরাল করে নিতে হয়। সবশেষ কথা হলো লাইভ গান গাওয়া আর স্টুডিও রেকর্ডিং এক নয়। স্টুডিওতে ভুল গাইলে সংশোধন করা যায় বারবার। ভোকাল পিচ এডিট করে সুরে বসানো যায় কিছুটা! কিন্তু লাইভে কিচ্ছু করার থাকে না। বড় বড় রাঘববোয়ালেরাও লাইভে বেসুরো হয়ে যায়।

ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’তে প্রচারিত গানের সঙ্গে লন্ডনে গাওয়া গানের সঙ্গে কেন এত সুরের ফারাক, সে বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কোনো ধরনের মন্তব্য করেননি ফারিণ। তিনি তার মতো করে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এরই মধ্যে লন্ডনে অনুষ্ঠিত রেইনবো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব শেষে জানা গেল, তার অভিনীত ‘ফাতিমা’ ছবিটি উৎসবে সেরা চলচ্চিত্র নির্বাচিত হয়েছে। একই সঙ্গে ছবিটিতে অভিনয়ের জন্য বিশেষ সম্মাননাও পেয়েছেন ফারিণ।

অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ ছোটবেলা থেকে গানের চর্চা করেছেন। গায়িকা হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেতে চাইলেও শুধু মায়ের ইচ্ছাতেই অভিনয় নিয়ে পথচলা শুরু করেন। কয়েক বছরের মধ্যে অভিনয়ে জনপ্রিয় একটি নাম হয়ে উঠেছেন। অভিনয় করেছেন ওপার বাংলার চলচ্চিত্রেও।

মন্তব্য করুন

  • বিনোদন এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
স্লোগানে স্লোগানে ঢাবি ভিসির বাসভবনের সামনে শিক্ষার্থীদের অবস্থান
বর্ণবাদী গানের পর ক্ষমা চাইলেন ফার্নান্দেজ
রাজাকার স্লোগান নিয়ে ঢাবি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি-সম্পাদকদের বিবৃতি
নচিকেতার সঙ্গে দ্বৈতকণ্ঠে গান, আপ্লুত পিজিত