Mir cement
logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ৪ আষাঢ় ১৪২৮

স্বর্ণ ব্যবসায় মন্দাভাব

স্বর্ণ ব্যবসায় মন্দাভাব

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ায় দেশীয় বাজারে গতকাল সোমবার (১১ মে) ভরিতে ২ হাজার ৩৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৭১ হাজার ৪৪২ টাকা হলেও দীর্ঘদিন ধরে স্বর্ণের ব্যবসায় মন্দাভাব চলছে। এতে ব্যবসায়ীরা ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

জানা গেছে, করোনা মহামারির কারণে বিয়ে অনুষ্ঠান কম হওয়ায় স্বর্ণের বাজারে মন্দাভাব এসেছে। তবে দেশীয় বাজারে স্বর্ণের মন্দা হলেও আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশীয় বাজারে দাম বাড়ানো হয়েছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়লেও বিক্রি কম হওয়ায় মাস শেষে দোকান ভাড়া ও কর্মচারীরে বেতন দিতে হিমশিমে পড়েছেন। বিগত বছরগুলোতে স্বাভাবিক সময়ে স্বর্ণের ব্যবসা কমবেশি বিক্রি হলেও রোজার ঈদকে কেন্দ্র করে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ বিক্রি বাড়ে। কিন্তু এবার সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধ ও ঈদকে কেন্দ্র করে স্বর্ণ বিক্রি কয়েকগুণ কমেছে। আর্থিক সংকটের কারণে ঈদের আগে স্বর্ণ বিক্রি হচ্ছে না বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা।

রাজধানীর বায়তুল মোকাররম, নিউ মার্কেট ও পান্থপথ বসুন্ধরা মার্কেটসহ বিভিন্ন এলাকার ছোট-বড় স্বর্ণের দোকানগুলো ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতাশূন্য প্রায় প্রতিটি দোকান। নিউ মার্কেটের সবচেয়ে বড় দোকান সানন্দা জুয়েলার্সেও অলস সময় পার করছেন বিক্রেতারা। মার্কেটের সিরাজ জুয়েলার্সসহ অন্য দোকানেও একই অবস্থা।

সিরাজ জুয়েলার্সের মালিক ও নিউ মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি দেওয়ান আমিনুল ইসলাম বলেন, করোনা মহামারিতে ঈদের আগে মার্কেট খুললেও স্বর্ণ ব্যবসায় বিক্রি বাড়েনি। মার্কেটের অধিকাংশ দোকানে প্রতিদিন ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা মাত্র বিক্রি হচ্ছে। দোকান ভাড়া, কর্মচারীদের খরচ, বিদ্যুৎ বিল ও ইফতার খরচ বাবদ যে টাকা খরচ হয় বিক্রি থেকে তাও উঠছে না। অর্থাৎ এখন দোকান খোলা রাখলেই প্রতিদিন লোকসানে পড়ছেন মালিকরা।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) গতকাল সোমবার স্বর্ণের দাম বাড়িয়ে ২২ ক্যারেট সোনার অলংকার কিনতে ভরিতে ৭১ হাজার ৪৪২ টাকা লাগছে। গত ৯ মার্চ প্রতি ভরি সোনার দাম সর্বশেষ ২ হাজার ৪১ টাকা কমানো হয়েছিল।

এ বিষয়ে বাজুস জানায়, করোনায় সৃষ্ট অর্থনৈতিক সংকট ও নানা জটিল সমীকরণে বিশ্ববাজারে সোনার দাম বেড়েছে। অন্যদিকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ থাকা ও আমদানি পর্যায়ে শুল্ক জটিলতার কারণে ডিলাররা চাহিদার বিপরীতে সোনা আমদানি করতে পারছেন না। সে কারণে দেশীয় বুলিয়নের (সোনার বার) দাম বেড়েছে।

নতুন দর অনুযায়ী ২২ ক্যারেটের এক ভরি সোনার অলংকার কিনতে লাগবে ৭১ হাজার ৪৪২ টাকা। এ ছাড়া ২১ ক্যারেট ৬৮ হাজার ২৯৩, ১৮ ক্যারেট ৫৯ হাজার ৫৪৫ ও সনাতন পদ্ধতির সোনার অলংকারের ভরি বিক্রি হবে ৪৯ হাজার ২২২ টাকায়।

দাম বাড়ার আগে প্রতি ভরি ২২ ক্যারেট সোনা ৬৯ হাজার ১০৯, ২১ ক্যারেট ৬৫ হাজার ৯৬০, ১৮ ক্যারেট ৫৭ হাজার ২১২ এবং সনাতন পদ্ধতির সোনার অলংকার বিক্রি হয়েছে ৪৬ হাজার ৮৮৯ টাকায়। সোনার দাম বাড়লেও অপরিবর্তিত রয়েছে রুপার দাম। ২২ ক্যারেট রুপার ভরি আগের মতোই ১ হাজার ৫১৬ টাকায় বিক্রি হবে। ২১ ও ১৮ ক্যারেট রুপার ভরি যথাক্রমে ১ হাজার ৪৩৫ ও ১ হাজার ২২৫ টাকা। আর সনাতন পদ্ধতির রুপার ভরি ৯৩৩ টাকায় বিক্রি হবে।

এফএ

RTV Drama
RTVPLUS