logo
  • ঢাকা বুধবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২১, ১৩ মাঘ ১৪২৭

স্বর্ণের ভরি ১৬০ টাকা থেকে ৭৭ হাজার টাকা!

180 to 6 thousand, taka, gold!
স্বর্ণের ভরি ১৬০ টাকা থেকে ৭৭ হাজার টাকা!
আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে দেশীয় বাজারে স্বর্ণের দাম ওঠানামা করায় বিক্রেতা ও ক্রেতা অধিকাংশ সময়ে থাকেন দুশ্চিন্তায়। স্বর্ণের বাজার দর ওঠানামা করতে করতে ১৯৭১ সালে এক ভরি স্বর্ণের দাম ১৬০ টাকা থেকে বর্তমানে এক ভরি স্বর্ণের দাম দাঁড়িয়েছে ৭৭ হাজার ৬৬৭ টাকা। আর স্বাধীনতার আগের বছর সোনার ভরি ছিল ১৫৪ টাকা। স্বর্ণের বাজার পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, মাঝে মধ্যেই স্বর্ণের দাম কমানোর আভাস এলেও দাম বাড়ে তার চেয়ে কয়েকগুণ হারে। 

জানা গেছে, করোনাকালীন সময়েও স্বর্ণের বাজার দর কমেনি বরংচো দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ দাম বেড়েছে। গত বছর ভালো মানের একটি সোনার অলংকারের ভরি ৬০ হাজার ৩৬১ টাকা ছিল। বর্তমানে ২২ ক্যারেটের এক ভরি সোনার অলংকার কিনতে লাগবে ৭২ হাজার ৬৬৭ টাকা। ঘটনার এখানেই শেষ নয়। ২০১৯ সালের প্রথম দিন সোনার ভরি ছিল ৫৯ হাজার ১৯৫ টাকা। চার দিনের মাথায় তা বেড়ে হয় ৬০ হাজার ৩৬১ টাকা। ওই বছর ১৪ বার সোনার দাম পরিবর্তন হয়েছে। এর মধ্যে আটবার বেড়েছে, কমেছে ছয়বার। শেষ পর্যন্ত প্রতি ভরির দাম বাড়ে ১২ হাজার ৩০৬ টাকা। 

হুট করেই বাজারে স্বর্ণের দাম ওঠানামা করছে। ২০২০ সালে ডিসেম্বরে দেশিয় বাজারে দু’ধাপে স্বর্ণের দাম কমিয়েছিল বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। তবে ওই মাসের ৯ ডিসেম্বর ফের স্বর্ণের দাম বাড়ায় বাজুস। এতে দেখা যায়, দু’ধাপে স্বর্ণের দাম যতটুকু কমানো হয়েছিল একবারেই এর চেয়ে বেশি দাম বাড়নো হয়।  

করোনাভাইরাস সংক্রমণের লকডাউন, যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যকার উত্তেজনা, বৈশ্বিক শেয়ারবাজারের অস্থিরতা, মধ্যপ্রাচ্যের রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা ও ডলারের দাম কমে যাওয়ায় গত বছরের শুরু থেকে বিনিয়োগকারীরা স্বর্ণকে নিরাপদ বিনিয়োগ বলে মনে করছেন। তাতে স্বর্ণের চাহিদা ব্যাপক বেড়ে যায়। এতে ৯ বছরের রেকর্ড ভাঙে স্বর্ণের দাম। সেদিন বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স (১ আউন্স সমান ২৮ দশমিক ৩৫ গ্রাম) সোনার দাম বেড়ে হয় ১ হাজার ৯৪৪ ডলার। এর আগে ২০১১ সালে প্রতি আউন্স সোনার দাম উঠেছিল ১ হাজার ৯২১ ডলারে। এরপর লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকে দাম, আগস্টে দামে হয় নতুন রেকর্ড। প্রতি আউন্স সোনার দাম ২ হাজার ৭২ ডলার ৫০ সেন্ট পর্যন্ত উঠে যায়। 

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ায় দেশীয় বাজারেও ব্যবসায়ীরা স্বর্ণের দাম বাড়িয়ে দেয়। তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, করোনা মহামারি শুরুর দিকে বিশ্ববাজারে লাফিয়ে লাফিয়ে স্বর্ণের দাম বাড়লেও ২০২০ সালের নভেম্বরের শেষ দিকে এসে কিছুটা পতনের মধ্যে পড়ে। এতে ২৫ নভেম্বর থেকে দেশের বাজারেও স্বর্ণের দাম কমানো হয়। ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম দুই হাজার ৫০৭ টাকা কমিয়ে নির্ধারণ করা হয় ৭৩ হাজার ৮৩৩ টাকা। ২১ ক্যারেট ৭০ হাজার ৬৮৪, ১৮ ক্যারেট ৬১ হাজার ৯৩৬ ও সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণ ৫১ হাজার ৬১৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়। তবে গত বছরের ৯ ডিসেম্বর ফের স্বর্ণের দাম বাড়ছে। 

এফএ

RTV Drama
RTVPLUS