• ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০১৯, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

বৈশাখের ইলিশে আগুন

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১৩ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:০৬ | আপডেট : ১৩ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:১৮
নববর্ষে ইলিশের সঙ্গে পান্তা না হলে বাঙালিয়ানাই যেন বৃথা। দিনটি একটু ভিন্নভাবে কাটাতে চায় মানুষ। আর সেজন্য সকালে পান্তা ভাতের প্লেটে একটু হলেও চায় ইলিশের স্বাদ। আর এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে রাজধানীর ইলিশের বাজারে এখন উত্তাপ ছড়াচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।

শুক্র ও শনিবার যাত্রাবাড়ী, সূত্রাপুর, রায়েরবাগসহ বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়,সাপ্তাহিক ছুটির দিন থাকায় বাজারে ক্রেতা সমাগম বেশি। ইলিশের বিক্রি বেড়েছে। ইলিশের পসরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানিরা। ক্রেতাদের কাছে টানতে বিক্রেতারা হাক ডাক দিচ্ছেন। বাজারে ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের প্রতিটি ইলিশের দাম দেড় হাজার থেকে ২ হাজার টাকা।
অথচ এই ওজনের ইলিশ কিছুদিন আগেও এক হাজার থেকে এক হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

এছাড়া গত সপ্তাহের মতো সব থেকে কম দামে বিক্রি হচ্ছে তেলাপিয়া,পাঙাস মাছ। এসব মাছ ২০০ টাকার মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে। তবে অন্যান্য মাছে রুই ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা কেজি, পাবদা ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি, টেংরা কেজি ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা, শিং ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি, বোয়াল ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা কেজি, চিতল ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

ইলিশ বিক্রেতা রহমত রহমান জানান, বৈশাখ এলে ইলিশের চাহিদা বাড়ার পাশাপাশি দাম থাকে আকাশচুম্বী। এছাড়া বাজারে ইলিশের ক্রেতাও অনেক কম। কারণ এখন আগে থেকেই সবাই ইলিশ সংরক্ষণ করে রাখে। আজ বাজারে এক কেজি ওজনের একটি ইলিশ ৩ হাজার, ১২০০ গ্রামের একটি ইলিশ ৪ হাজার টাকা, আর এক কেজি ৫০০ গ্রামের একটি ইলিশ ৫ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। যার দাম এক সপ্তাহ আগেও ছিল দেড় হাজার থেকে দুই হাজার টাকা।

কারওয়ানবাজারে বাজারে ইলিশ কিনতে আসা বেসরকারি চাকরিজীবী শান্ত জানান, বাজারে ইলিশ কিনতে আসলাম। ৮০০ টাকা দিয়ে একটি কিনেছি। বিক্রেতা ওজন বলছে ৭০০ গ্রাম। জানি না আসলে কতটুকু হবে। তবে দাম নিয়ে কোনও ক্ষোভ নেই।

এদিকে রাজধানীর বাজারগুলো ঘুরে দেখা গেছে, বাজারে প্রতিকেজি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ টাকা। আর খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৮৫০ থেকে ৮৮০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ব্রয়লার মুরগি কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ১৬৫ থেকে ১৭০ টাকা। লেয়ার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ২৩০ টাকা। আর কক মুরগির দাম অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে কেজি ৩০০ টাকায় পৌঁছে গেছে। এখন বাজারভেদে কক মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৯০ থেকে ৩০০ টাকা কেজি। 

চড়া দামে বিক্রি হওয়া সবজির দাম এ সপ্তাহে মোটামুটি অপরিবর্তিত আছে। তবে নতুন আসা কাকরোল ১২০ টাকা কেজি, বরবটি ৬০ থেকে ৮০ টাকায়। পটল ৫০ থেকে ৭০ টাকা, করলা ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া ঢেঁড়স বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, বেগুন ৫০ থেকে ৭০ টাকা, শিম ৪০ থেকে ৬০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

এস/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়