• ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভের মধ্যেই পতনে শেষ পুঁজিবাজার

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০৯ এপ্রিল ২০১৯, ১৮:৪৯
জাতীয় নির্বাচনের পর দেশের পরিস্থিতি নিয়ে স্থিতিশীলতার মধ্যে বিনিয়োগকারীরা আশা দেখেছিলেন। কিন্তু সে আশার গুড়ে বালি অবস্থা। শেয়ারবাজারে দরপতন থামছেই না।

whirpool
আগের দুই কার্যদিবসের ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবারও প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সবকটি মূল্য সূচকের বড় পতন হয়েছে।

এর মাধ্যমে চলতি সপ্তাহের তিন কার্যদিবসেই বড় দরপতন হলো।

এদিকে শেয়ারবাজারের টানা এ দরপতনের প্রতিবাদে মঙ্গলবারও রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করেছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা।

এদিন মূল্য সূচকের বড় পতনের পাশাপাশি ব্যাংক, বীমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সব খাতের বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমছে। ফলে ডিএসইতে পতনের খাতায় নাম লিখিয়েছে ২৩১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট। বিপরীতে দাম বেড়েছে মাত্র ৫৭টির। আর ৫৯টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, লেনদেনের শুরু থেকেই সূচকের নিম্নমুখী প্রবণতা দেখা যায়। তবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ডিবিএ) জরুরি বৈঠকে বসছে এমন সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর সূচকের কিছুটা ঊর্ধ্বমুখিতা দেখা যায়। কিন্তু সেই ঊর্ধ্বমুখিতা বেশিক্ষণ টেকেনি। ফলে দিন শেষে ঘটে বড় দরপতন।

কিছুক্ষণ ঊর্ধ্বমুখী থেকে আবার সূচক নিম্নমুখী হয়ে পড়লে দুপুর ২টার দিকে ব্রোকারেজ হাউজ ছেড়ে ডিএসইর সামনের রাস্তায় নেমে আসেন কয়েকজন বিনিয়োগকারী। সেখানে আধাঘণ্টার মতো বিক্ষোভ করেন তারা।

বিনিয়োগকারীদের এ বিক্ষোভের মধ্যেই শেষ হয় ডিএসইর লেনদেন। তবে ঘুরে দাঁড়ায়নি মূল্য সূচক। বরং শেষ সময়ে এসে দরপতনের মাত্রা আরও বেড়ে যায়। একের পর এক প্রতিষ্ঠানের দরপতনের কারণে লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক আগের কার্যদিবসের তুলনায় ৫৩ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ৩১৮ পয়েন্টে নেমে যায়।

অন্য সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৩২ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ২৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৯০০ পয়েন্টে।

ডিএসইতে আজ টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৩৬৫ কোটি ৯১ লাখ ৯৯ হাজার টাকার। যা গত কার্যদিবস থেকে ৫৩ কোটি টাকা কম। গত কার্যদিবসে লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৪১৮ কোটি ৪৯ হাজার টাকা।

অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৭৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৬ হাজার ৩০০ পয়েন্টে।

এ সময়ে সিএসইতে লেনদেনে অংশ নিয়েছে ২৩৫টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৫০টির, কমেছে ১৬০টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৫টির।

এস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়