DMCA.com Protection Status
  • ঢাকা বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি

গ্রাহকের পকেট থেকে বাড়তি যাবে ১৭ হাজার কোটি টাকা

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৩ নভেম্বর ২০১৭, ১৯:৩০ | আপডেট : ২৩ নভেম্বর ২০১৭, ২২:০১
গ্রাহক পর্যায়ে ফের বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ইউনিট প্রতি দাম বেড়েছে গড়ে পাঁচ দশমিক তিন শতাংশ বা ৩৫ পয়সা। এর থেকে খুচরা পর্যায়ের গ্রাহককে বাড়তি গুণতে হবে ১৭ হাজার কোটি টাকা। 

বিদ্যুৎ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা  বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন- বিইআরসি এ তথ্য জানিয়েছে।

বিদ্যুতের দাম বাড়ানো নিয়ে গণশুনানিতে গ্রাহক পর্যায়ে ছয় থেকে সাড়ে ১৪ শতাংশ পর্যন্ত দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছিলো পাঁচটি বিতরণ কোম্পানি। 

সেই প্রস্তাব বিবেচনায় নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে বিইআরসি বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর এ সিদ্ধান্ত জানায়।

২০১০ সালের ১ মার্চ থেকে ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৬ বছরে খুচরা গ্রাহক পর্যায়ে ৭ বার বাড়ানো হয়েছে বিদ্যুতের দাম। 

মাঝে দুই বছর বিরতি দিয়ে আবারো বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হলো। 

সংবাদ সম্মেলনে বিইআরসি জানায়, বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা ও কোম্পানিগুলোর নিট বিদ্যুৎ বিতরণ খরচ বৃদ্ধি বিবেচনায় সব বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা ও কোম্পানির বিদ্যুতের খুচরা মূল্যহার বাড়ানো হয়েছে। 
বিইআরসির তথ্য মতে, নতুন করে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ফলে আবাসিক গ্রাহক, যারা ৭৫ কিলোওয়াট ব্যবহার করে ৩১০ টাকা বিল দিতেন, তাদের এখন ১৫ টাকা বাড়িয়ে দিতে হবে ৩২৫ টাকা।

এভাবে ১০০ কিলোওয়াটে দিতে হবে ২২ টাকা, দেড়শ’ কিলোওয়াটে ৪৮ টাকা, আড়াইশ’ কিলোওয়াটে ৯০ টাকা, সাড়ে তিনশ’ কিলোওয়াটে ১৩৭ টাকা, সাড়ে চারশ’ কিলোওয়াটে ১৯৬ টাকা এবং এক হাজার কিলোওয়াট ব্যবহারকারীদের বাড়তি দিতে হবে ৬০৪ টাকা। তবে কিছুটা ছাড় পাবে লাইফ লাইন ও পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহকরা।

এছাড়া সেচ ব্যবহারকারীদের বাড়তি গুণতে হবে ১৮০ টাকা, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ১০০ টাকা এবং বড় শিল্পে ১১ লাখ ১৯ হাজার ৫৫০ টাকা পর্যন্ত বাড়তি দাম গুণতে হবে। বড় অংকের বিল বোঝা পড়বে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প মালিকদের ঘাড়েও।

 

এস/এসআর

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়