Mir cement
logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮

১০ হাজার টাকার আবেদনে পাওয়া যাবে ১৭০ টাকার শেয়ার

১০ হাজার টাকার আবেদনে পাওয়া যাবে ১৭০ টাকার শেয়ার
সোনালী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি

সম্প্রতি পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) আইপিও প্রক্রিয়া থেকে লটারির প্রথা তুলে নিয়েছে। ফলে আইপিওতে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ অনেক বেড়ে গেছে। লটারি প্রথা উঠে যাওয়ার পর শেয়ার বাজারে আসা কোম্পানিটির আইপিওতে ৩৬ গুণ আবেদন জমা পড়েছে। এই বিপুল সংখক আবেদনের বিপরীতে প্রত্যেকে বিনিয়োগকারী শেয়ার পাবেন অতি সামান্য পরিমাণে।

সোমবার (২১ জুন) দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কর্তৃপক্ষ সোনালী লাইফ ইনস্যুরেন্সের আইপিও শেয়ার বণ্টন উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এই অনুষ্ঠানেই চূড়ান্ত হবে কোম্পানিটিতে বিনিয়োগকারীরা কে কত পরিমাণ শেয়ার পাবেন।

সোনালী লাইফ ইনস্যুরেন্সের আইপিওতে প্রতিটি শেয়ার ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে। সর্বনিম্ন ১০ হাজার টাকার আবেদনের বিপরীতে বিনিয়োগকারীরা পাবেন ১৭টি শেয়ার। অর্থাৎ ১০ হাজার টাকার সমমূল্যের শেয়ারের জন্য আবেদন করে প্রত্যেক বিনিয়োগকারী পাবেন ১৭০ টাকার সমমূল্যের ১৭টি শেয়ার। কোম্পানিটির আইপিওতে ৩৬ দশমিক ৪৫ গুণ বেশি আবেদন জমা পড়েছে। কোম্পানিটি আইপিওতে ১ কোটি ৯০ লাখ শেয়ার ছেড়ে ১৯ কোটি টাকার মূলধন সংগ্রহ করেছে।

আইপিও আবেদনের ক্ষেত্রে সেকেন্ডারি বাজারে ন্যূনতম ২০ হাজার টাকা বিনিয়োগের শর্ত জুড়ে দেয়েছে। লটারির প্রথা তুলে নেওয়ার পর কোম্পানিটি ছিল প্রথম আইপিও। বিনিয়োগকারীদের কৌতূহল ছিল কোম্পানিটির আইপিওতে কে কত শেয়ার পাচ্ছেন এবং আইপিওতে আবেদনের সংখ্যা নিয়েও।

গত ১ এপ্রিল লটারির প্রথা তুলে নেওয়ায় আবেদনকারীরা শেয়ার পাওয়ার নিশ্চয়তা তৈরি হওয়ায় কোম্পানিটিতে আবেদন অনেক বেড়ে যায়। এ কারণে ১০ হাজার টাকার আবেদন করে ১.৭১ শতাংশ হারে বা ১৭টি শেয়ার পাবেন আবেদনকারীরা। ২০ হাজার টাকার আবেদনকারীরা পাবেন ৩৪টি শেয়ার। টাকার অঙ্কের ওপর ভিত্তি করে শেয়ার পাওয়ার সংখ্যাও বাড়বে।

সোনালী লাইফ ইনস্যুরেন্সের আইপিও নিয়ম অনুযায়ী, কোম্পানিটির আইপিওতে সর্বনিম্ন ১০ হাজার টাকা এবং সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকার শেয়ারের জন্য আবেদন করেছেন বিনিয়োগকারীরা। সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকার শেয়ারের আবেদনকারী পাবেন ৮৫টি বা ৮৫০ টাকার শেয়ার। বিনিয়োগকারী শেয়ার পাওয়ার পর তার বাকি টাকা ওই বিনিয়োগকারীকে ফেরত দেয়া হবে।

কোম্পানিটির আইপিওতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের বাইরে সর্বোচ্চ শেয়ার বরাদ্দ পাবেন প্রবাসী বাংলাদেশি বা এনআরবি কোটায় আবেদনকারীরা। এ কোটায় আবেদনকারীরা ১০ হাজার টাকার আবেদনের বিপরীতে ৩৩টি বা ৩৩০ টাকার শেয়ার পাবেন। ১০ হাজার টাকার আবেদনের বিপরীতে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারী কোটায় আবেদনকারীরা পাবেন ২২টি বা ২২০ টাকার শেয়ার। তবে বরাদ্দকৃত শেয়ারের ক্ষেত্রে সামান্য একটু পরিবর্তন হতে পারে ভগ্নাংশের হিসাব থাকায়।

এসজে/পি

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS