logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৭ ফাল্গুন ১৪২৬

নানা অপকর্মের হোতা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মুকুলকে গ্রেপ্তার

নড়াইল প্রতিনিধি, আরটিভি অনলাইন
|  ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৯:২৮
নানা অপকর্মের হোতা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মুকুলকে গ্রেপ্তার
আশরাফুজ্জামান মুকুল

সাংবাদিকদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা, ছিনতাই ও অপহরণসহ একাধিক মামলার আসামি জেলা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি আশরাফুজ্জামান মুকুলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গতকাল মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) গভীর রাতে মাছিমদিয়ার নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তারের পরে আজ বুধবার কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
 
জানা যায়, নড়াইল জেলা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি আশরাফুজ্জামান মুকুলের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের মারধর, জুয়ার আসর বসানো, নির্বাচনে ব্যালট বাক্স ছিনতাই, অপহরণ, ভিক্টোরিয়া কলেজে মাদকের আখড়া বসানোসহ একাধিক মামলা রয়েছে। এছাড়াও ২০১৬ সালে বাণিজ্য মেলায় লটারির বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক (বর্তমানে সভাপতি) অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলামকে মারধর করার মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

পুলিশ জানায়, অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলামকে মারধর করার মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার অপকর্মের ব্যাপারে তদন্ত করা হচ্ছে। প্রমাণ পেলে আইন অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক থাকাকালীন আশরাফুজ্জামান মুকুল নানা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন। ২০১৭ সালে ওজোপাডিকো কর্মচারী সমিতির নির্বাচনে পিস্তলের মুখে ব্যালট বাক্স ছিনিয়ে নেন। ২০১৭ সালের ২৪ মে মুকুলের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের ছবি তুলতে গিয়ে মারপিটের স্বীকার হন আরটিভি ও দৈনিক সময়ের আলো পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি মোস্তফা কামাল, তার ক্যামেরা ভেঙ্গে ফেলে সন্ত্রাসীরা। হামলার ঘটনায় প্রতিবাদ করতে গিয়ে লাঞ্ছিত হন সাংবাদিক সাইফুল ইসলাম তুহিনসহ অন্যরা। ২০১৭ সালের ২৩ আগস্ট নড়াইল জামে মসজিদ এলাকায় একটি জমি দখল করতে না পেরে পুলিশের এক এসআই এর সহযোগিতায় জুবায়ের ও তার মাকে মাইক্রোবাসে করে অপহরণ করেন সে। তবে, নানা কায়দায় রাজনৈতিক ক্ষমতা ব্যবহার করে মামলা থেকে মুক্ত হয়ে যান এই নেতা।

অপহরণের শিকার জুবায়ের বলেন,পারিপার্শ্বিক নানা চাপে সে সময় আমরা ঘটনার মুল হোতোদের নামে মামলা করতে পারিনি। আমাদের এজাহারে মুকুলের নাম থাকলেও থানা থেকে সেই নাম বাদ দিয়ে মামলা নেয়া হয়।

এদিকে, সাংবাদিক মোস্তফা কামাল বলেন, এই ছাত্রনেতার কাছে সাংবাদিকদের কাজের কোনও স্বাধীনতা ছিলো না। তার নেতৃত্বেই আমার উপর হামলা করা হয়।

জেলা ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি চঞ্চল শাহরিয়ার মিম বলেন, ছাত্রলীগ কোনও অন্যায়কারীর দায় নেবে না। সাবেক সভাপতি যদি সত্যিই কোনও ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকেন তবে তা আইনগত ভাবেই সমাধান হোক। বলেন তিনি।

নড়াইল জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন বলেন, অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলামকে পেটানোর মামলায় আদালতের গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারীর পরে তাকে দীর্ঘদিন ধরে খুঁজছিলো পুলিশ। খবর পেয়ে দ্রুতই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

এজে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • দেশজুড়ে এর সর্বশেষ
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়