logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২ ফাল্গুন ১৪২৬

চিকিৎসার নামে ১৭ মাস ধরে তরুণীকে ধর্ষণ, ভণ্ড কবিরাজ গ্রেপ্তার

সিলেট প্রতিনিধি, আরটিভি অনলাইন
|  ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২:৪৮ | আপডেট : ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:১২
চিকিৎসার নামে ১৭ মাস ধরে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে ভণ্ড কবিরাজ গ্রেপ্তার
ভণ্ড কবিরাজ
ঝাড়-ফুঁকের মাধ্যমে চিকিৎসার নামে সিলেটের বিশ্বনাথে ১৭ মাস ধরে ১৯ বছরের তরুণীকে আটকে রেখে ধর্ষণ করার অভিযোগে সস্ত্রীক এক ভণ্ড কবিরাজ ব্লাউজ মোল্লাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

তরুণীর মা-বাবার কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে গেল বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে উপজেলার পুরান বাজার এলাকাস্থ ভণ্ড কবিরাজের ভাড়া বাসা থেকে তালাবন্দী অবস্থায় নির্যাতিতা ওই তরুণীকে উদ্ধার করে পুলিশ

তরুণীকে উদ্ধারের পর ভণ্ড কবিরাজ ব্লাউজ মোল্লা কমরুদ্দিন ওরফে চান মিয়া ও তার স্ত্রী সুমি বেগমকে অভিযুক্ত করে থানায় মামলা করেন নির্যাতিতা তরুণীর মা। 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গ্রেপ্তারকৃত ভণ্ড কবিরাজ ব্লাউজ মোল্লা কমরুদ্দিন বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নের রহিমপুর গ্রামের মৃত ইউনুছ আলীর ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার পুরান বাজারস্থ (শরীষপুর) এলাকার আছদ্দর আলী ম্যানশনে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছেন। ভণ্ড ওই কবিরাজ ওই বাসাতেই ‘সিফা তদবিরালয়’ নামে একটি কবিরাজি ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। কবিরাজি করার নামে সে মূলত কিশোরী ও তরুণীদেরকে নিজ বাসায় আটকে রেখে ধর্ষণ করত বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। আর ভণ্ড কবিরাজকে তার এসব অসামাজিক কাজগুলোতে সহযোগিতা করত তার স্ত্রী।

তরুণীর মা জানান, নানান রকমের রোগব্যাধিতে আক্রান্ত তার বড় মেয়েকে (নির্যাতিতা তরুণী) সুস্থ করতে চিকিৎসার জন্য প্রায় ১৭ মাস আগে ভণ্ড কবিরাজ কমরুদ্দিনের কাছে যান। এসময় কবিরাজ তাকে জানায় চিকিৎসার প্রয়োজনে তার মেয়েকে তিনি মাসের জন্য তার কাছে রেখে যেতে হবে এবং চিকিৎসার জন্য নগদ ১০ হাজার টাকা দিতে হবে। ভণ্ড কবিরাজের কথামতো তরুণীর মা টাকা পরিশোধ করে মেয়েকে সুস্থ করার জন্য তার কাছে রেখে যান। তিন মাস পর মেয়েকে নিজ বাড়িতে ফিরিয়ে নেয়ার জন্যে সিফা তদবিরালয়ে যাওয়ার পর ভণ্ড কবিরাজ তার মেয়েকে ফেরত দিতে অপারগতা প্রকাশ করে তাকে নানা রকমের ভয়-ভীতি দেখান। 

নির্যাতিতা তরুণীর মা আরও জানান, এভাবে প্রায় দেড় বছর ধরেই সিফা তদবিরালয়ে মধ্যে তালাবন্দী করে আটকে রেখেছে তার মেয়েকে। মেয়েকে হারানোর ভয়ে এ ব্যাপারে তিনি কাউকে কিছু বলার সাহস পাননি। 

অবশেষে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা রাতে মেয়েকে উদ্ধারে স্থানীয় সাংবাদিকদের সহযোগিতার জন্য স্বামীকে নিয়ে উপজেলার পুরান বাজারস্থ প্রেসক্লাব কার্যালয়ে আসেন। এসময় প্রেস ক্লাবের নেতৃবৃন্দ থানা পুলিশের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন। এরপর পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে তরুণীকে উদ্ধার করে ও স্ত্রীসহ ভণ্ড কবিরাজকে গ্রেপ্তার করে।

থানা পুলিশ সূত্র জানা গেছে, উদ্ধারের পর তরুণী পুলিশকে জানিয়েছে ভণ্ড কবিরাজ কমরুদ্দিন চিকিৎসার নামে প্রথম থেকে তার সঙ্গে অবৈধ শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলে। তাকে দিনরাত ঘরের ভেতর তালাবন্দী করে আটকে রাখত। কোথাও বের হতে দিত না। সম্প্রতি কমরুদ্দিন ভুয়া বিয়ের কাগজ তৈরি করে নির্যাতিতা তরুণীকে নিজের স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দিতে শুরু করেছিল।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সিফা তদবিরালয়ের আশপাশে বসবাসকারী কয়েকজন জানান, কমরুদ্দিনের সিফা তদবিরালয়ে সুন্দরী তরুণী-যুবতীদের আনাগোনাই ছিল বেশি। এর আগে তিনি (ভণ্ড কবিরাজ) চিকিৎসার নামে আরও একাধিক মেয়েকে এভাবে তার বাসায় আটকে রেখেছিল।

বিশ্বনাথ থানার ওসি শামীম মুসা আরটিভি অনলাইনকে বলেন,  অপরাধ করলে তাকে আইনের আওতায় আসতে হবেই। তদন্ত করে মূল ঘটনার রহস্য উন্মোচন করা হবে।   

এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • দেশজুড়ে এর সর্বশেষ
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়