logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

নেত্রকোনায় চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতি মৃত্যুর অভিযোগ

বাবা লাশ মেয়ে
নেত্রকোনা সদর হাসপাতালে মেয়ের লাশ নিয়ে বসে আছেন বাবা
ডাক্তার ও নার্সের অবহেলায় নেত্রকোনা শহরের আল-নূর হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিকের বিরুদ্ধে এক প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর অভিযোগ ওঠেছে।

গতকাল রোববার দিনগত রাতে ওই প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর অভিযোগ এনে পরিবারের পক্ষ থেকে নেত্রকোনা মডেল থানায় অভিযোগ করা হয়েছে।

অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাখাওয়াত হোসেন জানান, নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে রাখা প্রসূতি মায়ের মরদেহ দেখা হয়েছে। প্রসূতির পরিবার ও স্বামীর সঙ্গে কথা হয়েছে। এ ব্যাপারে জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গেও কথা বলা হয়েছে।

রোববার রাতে সিজারের মাধ্যমে ছেলে সন্তান জন্ম দেয়ার পর মারা যাওয়া ওই প্রসূতি হলেন নেত্রকোনার বারহাট্টা উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামের কৃষক আশিক মিয়ার স্ত্রী রোজিনা আক্তার (২৩)।

রোজিনার স্বামী আশিক জানান, প্রাইভেট ওই হাসপাতালের ম্যানেজারের সঙ্গে এদিন সন্ধ্যার পরেই ১২ হাজার টাকার মধ্যে সিজারের চুক্তি হয়। কিশোরগঞ্জ থেকে আসা ডা. জীবন কৃষ্ণ সন্ধ্যা ছয়টায় হাসপাতালে তাড়াহুড়ো করে রোজিনার সিজার করেন।

সিজারের আগে ডাক্তার কিংবা হাসপাতাল সংশ্লিষ্ট কেউ অবহিত করেনি রোগীর রক্ত লাগবে। সিজারের মাধ্যমে ছেলে জন্ম হওয়ার ঘণ্টাখানেক পর প্রসূতির অবস্থা সঙ্কটাপন্ন দেখে রক্ত লাগবে জানিয়ে দ্রুততার সঙ্গে হাসপাতাল ত্যাগ করেন ডাক্তার জীবন কৃষ্ণ!

সেখান থেকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় প্রসূতি রোজিনা আক্তারকে। পরে সরকারি হাসপাতালের ইমার্জেন্সি মেডিকেল অফিসার ডা. টিটু রায় রোজিনাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে ডা. টিটু রায় সংবাদমাধ্যমকে জানান, রোজিনাকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।

অভিযোগের বিষয়ে আল-নূর হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিকের কারও সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

প্রসূতির পরিবারের দাবি, ডাক্তারসহ হাসপাতালের দায়িত্বে থাকা যাদের অবহেলায় রোজিনার মৃত্যু হয়েছে। তারা যেন শাস্তি পায়।

সদ্য ভূমিষ্ঠ ছেলে ছাড়াও ওই প্রসূতির সংসারজীবনে একটি ছেলে ও একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে।

জেবি

RTVPLUS