logo
  • ঢাকা বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১ কার্তিক ১৪২৬

‘জি কে শামীম নারায়ণগঞ্জে আ.লীগের কোনও রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত নন’ (ভিডিও)

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
|  ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:১৯ | আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৩:৫২
রাজধানীর গুলশানে একটি ক্যাসিনোতে শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) র‌্যাবের অভিযানে নগদ দশ কোটি টাকাসহ আটক যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ‘সমবায় বিষয়ক সম্পাদক’ জি কে শামীমের বাড়ি নারায়ণগঞ্জে হলেও স্থানীয়ভাবে তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নন বলে জানিয়েছে জেলা আওয়ামী লীগ।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাই জানান, জি কে শামীম জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচার করা হলেও বিষয়টি সত্য নয়। জেলা আওয়ামী লীগ বা অঙ্গ-সংগঠনের কোথাও তার কোনও পদ নেই। এই নামে কেউ আছেন বলেও তার জানা নেই। 

দলীয় ফোরামে বিষয়টি আলোচনায় তুলবেন জানিয়ে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবদুল হাই দাবি করেন, বিভ্রান্ত সৃষ্টি করতে ও দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে এ ধরনের অপপ্রচার করা হচ্ছে এবং জি কে শামীমকে তিনি ব্যক্তিগতভাবে চেনেন না, কখনো দেখেননি। 

জি কে শামীমের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের সোনারগা উপজেলার সমান্দি ইউনিয়নে। তবে স্থানীয়ভাবে জানা গেছে, সোনারগা থানা বিএনপির সভাপতি আবু জাফরের চাচাতো ভাই তিনি। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র মির্জা আব্বাসের সঙ্গে তার ব্যক্তিগতভাবে সখ্যতা ছিল। তখন থেকেই তিনি ঢাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস ও ব্যবসা বাণিজ্য করছেন। নিজ এলাকায় তার আসা-যাওয়া তখন থেকেই বন্ধ হয়।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা সোনারগাঁ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম বলেন, তার নাম শুনেছি তবে কখনো দেখিনি। উনি অনেক আগে থেকেই ঢাকায় সেটেল। এলাকায় কখনো আসেন না। আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে তিনি কখনো সম্পৃক্ত ছিলেন না। 

উল্লেখ্য, টেন্ডারবাজির অন্যতম হোতা ছিলেন এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীম (জি কে শামীম)। সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে শামীমকে তার নিকেতনের বাসা ও অফিসে অভিযান চালিয়ে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। এসময় তার বাসা থেকে বিদেশি মদ, নগদ ১ কোটি ৮০ লাখ নগদ টাকা ও ১৬৫ কোটি টাকার এফডিআরের কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়েছে। 

র‌্যাবের পরিচালক (মিডিয়া) সারোয়ার বিন কাশেম বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে শামীমের বাসা ও অফিসে অভিযান শুরু করি। এসময় শামীম ও তার সাত জন দেহরক্ষীকে আটক করা হয়। তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজির অভিযোগ রয়েছে। আমরা সেসব তদন্ত করছি। তবে, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতেই তাকে আটক করা হয়েছে।

এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়