logo
  • ঢাকা বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬

নওগাঁয় ধানের দাম নিয়ে চরম হতাশায় কৃষক

নওগাঁ প্রতিনিধি
|  ১৫ মে ২০১৯, ১৬:২০
বৃষ্টি আর বাতাসের কারণে মাঠের ধান পানিতে নুয়ে পড়েছে, ছবি: আরটিভি অনলাইন
প্রতি বছর বোরো মৌসুমে ধান কাটার উৎসব থাকে খাদ্যশস্যের ভাণ্ডার খ্যাত নওগাঁ জেলায়। কিন্তু এবার আনন্দের সেই রূপ নিয়েছে বিশাদে। ফণীর তাণ্ডবের পর ধান নিয়ে চরম বিপদে পড়েছেন নওগাঁসহ উত্তরাঞ্চলের কৃষকরা।

একদিকে মাটিতে নুয়েপড়া ধান কাটতে শ্রমিকদের দিতে হচ্ছে তিনগুন বেশি মজুরি অন্যদিকে ফলনও হচ্ছে তুলনামূলক অনেক কম। আবার বাজারে ধানও বিক্রি হচ্ছে কম দামে। সব মিলে ধান নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন নওগাঁর কৃষকরা।

জেলার বিভিন্ন ফসলের মাঠ ঘুরে দেখা যায়, বৃষ্টি আর বাতাসের কারণে মাঠের ৯০ ভাগ ধান পানিতে নুয়ে পড়েছে। এরমধ্যে বেশির ভাগ ধান নষ্ট হতে শুরু করেছে। অন্যদিকে ধানে ব্লাস্ট রোগের আক্রমণ তো আছেই।

মহাদেবপুর উপজেলার কালোনা গ্রামের কৃষক সিরাজুল ইসলাম আরটিভি অনলাইনকে বলেন, বৃষ্টির কারণে ধান গাছ মাটিতে নুয়ে পড়েছে। ভেজা ধানের কারণে শ্রমিকদের বেশি মজুরি দিয়ে ধান ঘরে তুলতে হচ্ছে। তাও আবার সময় মতো শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। তাই এবছর ধানে কৃষকদের ব্যাপক লোকসান গুনতে হবে।

বীজ, পানি সেচ, বিষ প্রয়োগ আবার ধান কাটার মজুরি সব মিলে প্রতিবিঘা জমিতে খরচ হয় ৮ থেকে ৯ হাজার টাকা। আবার প্রতিবিঘা ধান বিক্রয় করে আছে ১০ থেকে ১১ হাজার টাকা। এভাবে কৃষক আর ধান চাষ করতে পারবে না বলে একাধিক কৃষক আরটিভি অনলাইনকে জানিয়েছেন।

জেলার সবচেয়ে বড় ধানের হাট মাতাজী হাটে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষক মোফাজ্জল হোসেন আরটিভি অনলাইনকে বলেন, এবছর বিঘাপ্রতি গড়ে ২৬ মন ধান পাবার আশা করা হলেও পাওয়া যাচ্ছে ১৬ থেকে ১৭ মন। আবার প্রতি মন ধান কাটতে শ্রমিকদের দিতে হচ্ছে ১৫ থেকে ১৮ কেজি পর্যন্ত ধান। এছাড়াও জমিতে বিষ প্রয়োগের খরচ, সেচের খরচ আবার কৃষকের শ্রম সব মিলে এবার ধানে লাভ করা অসম্ভব। বাজারে প্রতিমন ধান বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ৫শ টাকা পর্যন্ত। আবার ভেজা ধান কিনতে অনীহা দেখাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।

নওগাঁ ফারিহা রাইস মিলের স্বত্ত্বাধিকারী শেখ ফরিদ উদ্দিন আরটিভি অনলাইনকে বলেন, প্রতি বছর কৃষকের ঘরের ধান শেষ হলে সরকারিভাবে ধান কেনা শুরু হয়। এতে করে কৃষকরা কোনোভাবে লাভবান হতে পারে না। সরকারিভাবে দ্রুতই ধান-চাল ক্রয় শুরু করা না গেলে এই অচলাবস্থা থেকে বের হওয়া সম্ভব নয়।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জিএম পাটোয়ারী জানান, এরইমধ্যে চলতি মৌসুমে প্রতি কেজি ধান ২৬ টাকা, আতপ চাল ৩৫ টাকা এবং সিদ্ধ চাল ৩৬ টাকায় কেনার ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়