• ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

দৌলতদিয়ায় ইজতেমাগামী গাড়ির দীর্ঘ লাইন, দুর্ভোগ চরমে

রাজবাড়ী প্রতিনিধি
|  ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২১:১৬
টঙ্গীতে ইজতেমাগামী শতশত গাড়ি শুক্রবার সকাল থেকেই দক্ষিণবঙ্গের প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া ঘাটে আসতে থাকায় দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে মুসল্লিরাসহ অন্য সকল যাত্রীরা তীব্র যানজটের শিকার হয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘাটে অপেক্ষা করে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। তদুপরি ঘাটে ফেরির সংকট থাকায় এবং রাতে নদীর সরু চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচলে ধীরগতি ও বড় ফেরি চলতে না পারায় উভয়ঘাটেই নিত্যদিন সকাল থেকেই যানজট লেগেই থাকছে। তবে ইজতেমার সময় যানবাহন পারের সংখ্য বেড়ে যাওয়ায় দৌলতদিয়া ঘাটে এ জট বহুগুণ বেড়ে যায়।

whirpool
টঙ্গীতে শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া মুসলিম বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম সমাবেশ বিশ্ব ইজতেমা। এ ইজতেমায় যোগ দিতে গত বুধবার থেকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা আসতে শুরু করেছেন। দক্ষিণাঞ্চল থেকে আগতদের যানবাহন একযোগে আসতে শুরু করায় শুক্রবার সকাল থেকেই দক্ষিণবঙ্গর প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া ঘাটে দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। এতে করে মুসল্লিরাসহ সংশ্লিষ্ট সবাই দুর্ভোগে পড়েছেন।

বিআইডব্লিউটিসি ও ট্র্যাফিক পুলিশ জানিয়েছে, শুক্রবার থেকে টঙ্গীতে চারদিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমা শুরু হয়েছে। ইজতেমায় যোগ দিতে যাওয়া মুসল্লিদের দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে নির্বিঘ্নে নদী পাড় করতে তাদের পূর্ণ প্রস্তুতি রয়েছে। তবে গত বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে একযোগে বিপুল সংখ্যক গাড়ি আসতে থাকায় ঘাট এলাকায় মহাসড়কে যানজট সৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবারও ওই যানজট অব্যাহত রয়েছে। এ অবস্থায় মুসল্লিদের দুর্ভোগ কমাতে অপচনশীল পণ্যবাহী যানবাহন পারাপার বন্ধ রেখে ইজতেমাগামী গাড়ি ও অন্যান্য যাত্রীবাহী যানবাহনকে অগ্রাধিকার দিয়ে নদী পাড় করা হচ্ছে। এতে করে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটারজুড়ে তিন শতাধিক যানবাহন আটকে পড়েছে। এর মধ্যে পণ্যবাহী শতাধিক ট্রাক রয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে দৌলতদিয়া ক্যানেলঘাট এলাকায় গিয়ে কথা হয় নড়াইল থেকে আসা মুফতি জোবায়ের হাসান, মো. মোজাফফর হোসেন, জুলফিকার ইসলাম, মওলানা ইলিয়াছসহ কয়েকজনের সঙ্গে। তারা বলেন, আমরা কয়েকজনের একটি দল ইজতেমায় যাচ্ছি। এখানে এসে যানজটে আটকা পড়েছি। এতে কিছুটা সমস্যা হলেও আমরা পরিস্থিতি বুঝে মানিয়ে নিচ্ছি।

কুষ্টিয়া শহর থেকে আসা অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা হাজী বাহারুল বলেন, আমরা প্রায় ৫০ জন একটি বাস নিয়ে ইজতেমায় যাচ্ছি। এখানে আটকে পড়ায় পাশের মসজিদের জুম্মার নামাজ আদায় করেছি ও সঙ্গে থাকা শুকনো খাবার খেয়েছি।

দৌলতদিয়া ঘাটে কর্মরত রাজবাড়ীর ট্র্যাফিক ইন্সপেক্টর আবুল হোসেন জানান, ঘাট ও মহাসড়ক এলাকায় বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন আছে। অতিরিক্ত গাড়ির চাপে যানজট সৃষ্টি হলেও মুসল্লিদের যাতে ভোগান্তি না হয় সেদিকে তারা বিশেষ নজর রাখছেন।

বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক সফিকুল ইসলাম জানান, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ১৫টি ফেরি সচল আছে। ঘাট ও চ্যানেলেও কোনও সমস্যা নেই। আটকে থাকা যানবাহনগুলোর মধ্য থেকে ইজতেমাগামী ও অন্যান্য যাত্রীবাহী যানবাহন অগ্রাধিকার দিয়ে নদী পাড় করা হচ্ছে।

পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়